প্রচ্ছদ

আনন্দের শহরে উৎসব শেষ হচ্ছে আজ

১৭ নভেম্বর ২০১৮, ১১:১৯

329

বিনোদন ডেস্ক :: এক মঞ্চে আটজন। সবাই চলচ্চিত্রের মানুষ। কথা বলছেন এখনকার সিনেমার নানা বিষয় নিয়ে। ভারতের নানা প্রান্তের ছবির বাজেট, চলচ্চিত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার, সাউন্ড, লুক, ডাবিং, প্রচারণাসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা মঞ্চ ছাড়িয়ে চলে গেল উপস্থিত দর্শকদের মাঝেও। মঞ্চে বসা আটজনই সবার কাছে পরম আরাধ্য। টিকিট কেটে যাঁদের অভিনয় ও পরিচালনা দেখেন দর্শকেরা। সেখানে ছিলেন ২৪ তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সভাপতি ও অভিনয়শিল্পী প্রসেনজিৎ, তনুশ্রী চক্রবর্তী, গার্গী রায়, পরিচালক অরিন্দম শীল, কৌশিক গাঙ্গুলি ও সৃজিত মুখার্জি। সঞ্চালনায় ছিলেন অরিন্দম গাঙ্গুলি। আলোচনার বিষয় ছিল ‘চলচ্চিত্রের এক শ বছর—নতুন প্রজন্ম’। তাঁদের আলাপের মাঝামাঝি সময়ে প্রসেনজিৎ মঞ্চে ডেকে নেন পরিচালক সুজিত সরকারকে। সম্প্রতি অক্টোবর সিনেমা বানিয়ে আলোচনায় এসেছেন এই বাঙালি পরিচালক। উপস্থিত অভিনয়শিল্পীরা একমত হলেন, আগাগোড়া পরিচালকেরাই চলচ্চিত্রের প্রাণ। ছবি ভালো হলে সেটা অভিনয়শিল্পী আর খারাপ হলে পরিচালকের দায়, এটা সত্যি নয়। বাজেট নিয়ে সুজিত সরকার বলেন, শিল্পী চাইলেই হুট করে গান শুরু করতে পারেন, কিন্তু একজন পরিচালক চাইলে সিনেমা শুরু করতে পারেন না। বাজেট তো লাগেই, লাগে চরিত্র অনুযায়ী অভিনয়শিল্পী ও দল।

গতকাল নন্দনে ছিল বেশ ভিড়। তবে সকালের চেয়ে বিকেলে ভিড় ছিল বেশি। নন্দনের ৩ নম্বর হলে সাড়ে সাতটায় দেখানো হয় ঋত্বিক ঘটকের মেঘে ঢাকা তারা ছবিটি। বড় পর্দায় পুরোনো ছবি দেখতে দর্শকের বাড়তি আগ্রহ দেখা যায়। একই সঙ্গে সুজিত সরকারের অক্টোবর নিয়েও ছিল আগ্রহ। রবীন্দ্রসদনে যখন অক্টোবর চলছে, তখন সংবাদ সম্মেলনে হাজির হয়েছিলেন সুজিত সরকার। বাংলাদেশ প্রসঙ্গে বলতেই বলেন, বাংলাদেশের সংগীতশিল্পীদের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ আছে। ক্যারিয়ারের শুরুতে জেমসকে নিয়ে বিজ্ঞাপন নির্মাণ করেছিলেন। একতারা মঞ্চের নিয়মিত উপস্থাপক ঘোষণা করেন, ‘আজ আমাদের নবমীর রাত। আগামীকালই ভাঙছে এই মিলনমেলা।’ আনন্দের শহরে বিশ্ব সিনেমার উৎসব শেষ হচ্ছে আজ।

2 বার পঠিত
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

সর্বাধিক ক্লিক