প্রচ্ছদ

আবার বিপর্যয়ে অস্ট্রেলিয়া

১১ জুলাই ২০১৯, ১৮:৩৩

sylnewsbd.com

খেলা ডেস্ক :; এজবাস্টনে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ে অস্ট্রেলিয়া

বেশ ভালোই চলছিল অ্যালেক্স ক্যারি আর স্টিভ স্মিথের জুটিটা। চরম বিপর্যয়ের মধ্যে দাঁড়িয়ে এই দুই ব্যাটসম্যান গড়েছিলেন ১০৩ রানের জুটি। ১৪ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর দুর্দান্ত ফেরাই। কিন্তু লেগ স্পিনার আদিল রশিদের ঘূর্ণিতে পাঁচ বলের মধ্যে ২ উইকেট হারিয়ে আবারও বিপর্যয়ের মুখে অস্ট্রেলিয়া। এ প্রতিবেদন লেখার সময় অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ছিল ৩১ ওভারে ৫ উইকেটে ১৩৫। ৬১ রানে অপরাজিত থেকে স্মিথ অবশ্য একদিন ধরে রেখেছেন।

ক্যারি ৭০ বলে ৪টি চার মেরে করেছেন ৪৬। ২৮ ওভারের দ্বিতীয় বলে আদিলের লেগ স্টাম্পের ওপর পড়া বলটিকে ফ্লিক করে তুলে দিয়েছিলেন ক্যারি। কিন্তু ডিপ মিড উইকেটে অপেক্ষায় ছিলেন বদলি ফিল্ডার জেমস ভিনস। ক্যাচটি ধরে নেন তিনি সহজেই। ১০৩ রানের জুটি ভেঙে যাওয়ার পর মার্কাস স্টয়নিসে ভরসা ছিল অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু তিনি চার বলের বেশি টিকতে পারেননি। রশিদের গুগলিতে পুরোপুরি পরাস্ত হয়ে পড়ে যান এলবিডব্লুর ফাঁদে। ৩ উইকেটে ১১৭ রান থেকে অস্ট্রেলিয়া হঠাৎই ৫ উইকেটে ১১৮।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা হয়েছে ভয়াবহ। ১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে রীতিমতো কাঁপছিল অস্ট্রেলিয়া। ক্রিস ওকসের বলগুলো মনে হচ্ছিল যেন ছোবল দিয়ে যাচ্ছে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের। শুরুর বিপদটা ভালোই সামলেছিলেন স্মিথ আর ক্যারি। দ্রুত ২ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর স্মিথের সঙ্গী এখন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

শুরুটা ভারতের চেয়ে অন্তত ভালো করতে পেরেছে অস্ট্রেলিয়া। কাল প্রথম সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের ২৩৯ রান তাড়া করতে নেমে ১৯ বলের মধ্যে ৫ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়েছিল ভারত। আজ এজবাস্টনে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়া যেন ভারতের পথেই হাঁটল! কিছু বুঝে ওঠার আগেই একে একে ফিরে গেলেন অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ, ডেভিড ওয়ার্নার আর পিটার হ্যান্ডসকম্ব।

এজবাস্টনের মাথার ওপর পরিষ্কার আকাশ দেখেই হয়তো টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক ফিঞ্চ। দ্বিতীয় ওভারে প্রথম বলেই ফিঞ্চকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন জফরা আর্চার। নির্ভেজাল ‘ডাক’ মেরে ফিরেছেন অস্ট্রেলীয় অধিনায়ক। বিশ্বকাপে এ নিয়ে ১৮ উইকেট নিলেন আর্চার। বিশ্বকাপের এক টুর্নামেন্টে ইংল্যান্ডের হয়ে ইয়ান বোথামের গড়া সর্বোচ্চ উইকেট নেওয়ার (১৬) রেকর্ড আগেই ভেঙেছেন আর্চার।

আর্চার ও ক্রিস ওকস শুরু থেকেই বাউন্স পাচ্ছেন উইকেটে। লেংথ ধরে রেখে গতিময় বল করায় অস্ট্রেলিয়ার টপ অর্ডার বেশিক্ষণ দাঁড়াতে পারেনি। পরের ওভারেই নিখুঁত লেংথ থেকে বল তুলে ডেভিড ওয়ার্নারকে শিকার করেন ওকস। উঠে আসা বল সামলাতে না পেরে দ্বিতীয় স্লিপে ক্যাচ দেন এ ওয়ার্নার (৯)। স্টিভেন স্মিথের সঙ্গে পিটার হ্যান্ডসকম্বের জুটিও টেকেনি। সপ্তম ওভারে ওকসের ফুল পিচ বল ড্রাইভ করতে গিয়ে স্টাম্পে টেনে নিয়ে প্লেড অন হন হ্যান্ডসকম্ব (৪)।

সর্বাধিক ক্লিক