প্রচ্ছদ

কালবৈশাখীর তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড জগন্নাথপুর

১৬ এপ্রিল ২০১৯, ০১:০১

sylnewsbd.com

সিলনিউজ ডেস্ক :; জগন্নাথপুরে কালবৈশাখী ঝড়ে প্রায় পাঁচ শতাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও সহস্রাধিক গাছপালা উপড়ে পড়েছে রাস্তার উপর। বিদ্যুতের খুঁটি তার ছেড়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে পড়েছে। এতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বোরো ফসলের।

সোমবার সকাল ৮ টার দিকে উপজেলার ওপর দিয়ে কালবৈশাখী ঝড়ে এসব ক্ষয়ক্ষতি হয়।

স্থানীয়রা জানান, আধাঘন্টাব্যাপি কালবৈশাখী ঝড়ে জগন্নাথপুর পৌরশহরের ইকড়ছই, হবিবনগর, ভবানীপুর, যাত্রাপাশা, জগন্নাথপুর, হবিবপুর, কেশবপুর, লুদরপুর, ইসহাকপুরসহ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ৫ শতাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। ভেঙে পড়েছে অসংখ্য কাঁচা বসতঘর। উড়ে গেছে শত শত ঘরবাড়ির টিনের চাল। পৌর শহরসহ উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জগন্নাথপুরের আনাচে-কানাছে হাজারো গাছ গাছালি উপড়ে পড়ে আছে।

এদিকে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কে শতাধিক গাছ ভেঙে সিলেট থেকে আসা জগন্নাথপুরে বিদ্যুতের ৩৩ হাজার কেভি সংযোগ লাইনে পড়ে তার ছিড়ে আছে অসংখ্য স্থানে। বন্ধ হয়ে গেছে বিদ্যুৎ সরবরাহ। ঝড়ের সঙ্গে সামান্য শিলাবৃষ্টি বয়ে যাওয়ায় পাকা বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে কৃষকরা জানিয়েছেন।

জগন্নাথপুরের সর্ববৃহৎ নলুয়া হাওরপাড়ের কৃষক নেতা হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, বৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডবে নলুয়া হাওরপাড়ের ভুরাখালি, দাসনাগাঁও, চিলাউড়া, সমদলসহ বিভিন্ন গ্রামের অসংখ্য বসতবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। ওড়ে গেছে ঘরের টিনের চাল। ঝড়ের সঙ্গে শিলাবৃষ্টি হওয়ায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বোরো ফসলের। পাকাধান জমিনেই পড়ে গেছে।

তিনি বলেন, এমনতিতেই এবার ব্রি-২৮ জাতের ধানের চিটা মড়ক থাকায় কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত। এরমধ্যে শিলাবৃষ্টিতে আরোও ক্ষতির সম্মুখিন হলেন কৃষকরা।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে বোরো ধানের তেমন ক্ষতি হয়নি। তারপরও আমরা খোঁজখবর রাখছি।

জগন্নাথপুর উপজেলা বিদ্যুৎ বিভাগের প্রধান কর্মকর্তা প্রকৌশলী আজিজুল ইসলাম বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে জগন্নাথপুরের বিদ্যুৎ খুঁটি ও তার ছিড়ে গেছে। জগন্নাথপুর-সিলেট সংযোগ লাইনে কমপক্ষে ২০ থেকে ২৫টি স্থানে অসংখ্য গাছগাছালি বিদ্যুতের তারের উপর পড়ে আছে। আমরা বিদ্যুৎ সরবরাহ রাখতে কাজ করছি।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তের তালিকা তৈরীর কাজ চলছে।

সর্বাধিক ক্লিক