প্রচ্ছদ

চেলসি কোচের ‘সারি বল’ এখন ‘স্যরি বল’?

১৯ মার্চ ২০১৯, ০০:০৪

sylnewsbd.com
পুরো ম্যাচে রিচার্লিসনকে এভাবেই আটকাতে পারেনি চেলসি। ছবি: সংগৃহিত।

খেলা ডেস্ক :: চেলসির কোচ মরিজিও সারি দলকে যে বিশেষ ধরনে খেলান, তার একটা আলাদা নাম রয়েছে—‘সারি বল’। এই পদ্ধতির কল্যাণে লিগের প্রথম ১২ ম্যাচ জিতলেও এখন আর সেভাবে জিততে পারছে না চেলসি। প্রিমিয়ার লিগের দলগুলো আস্তে আস্তে সারির কারিকুরি বুঝে ফেলতে শুরু করেছে। ফলে প্রিমিয়ার লিগ জেতার আশা নিয়ে মৌসুম শুরু করা চেলসি মৌসুম শেষে ন্যূনতম চতুর্থ অবস্থানে থেকে লিগ শেষ করতে পারে কি না, তা নিয়ে পড়ে গেছে সংশয়ে।

ফলাফল যতই নেতিবাচক হোক না কেন, সারি তাঁর কৌশল থেকে বিন্দুমাত্রও সরে আসতে নারাজ। কেবল তা-ই নয়, সে কৌশল মাঠে বাস্তবায়ন করার জন্য শুধু একই ধরনের কিছু খেলোয়াড়ের ওপর নির্ভর করছেন তিনি। যার মাশুল গুনছে চেলসি। গতকালও তাই হয়েছে। প্রথমার্ধে চেলসি দুর্দান্ত খেললেও এভারটনের কোচ মার্কো সিলভা হাফটাইমে চেলসির কৌশল ধরে ফেলেন। দ্বিতীয়ার্ধে সম্পূর্ণ ভিন্ন এক এভারটনকে দেখা যায়। ফলে ব্যাকফুটে চলে যায় সারির দল। ৪৯ মিনিটে ব্রাজিলের উইঙ্গার রিচার্লিসনের গোলে এগিয়ে যায় এভারটন। ৭২ মিনিটে স্প্যানিশ লেফটব্যাক মার্কোস আলোনসোর ভুলে এভারটনকে পেনাল্টি দিয়ে বসে চেলসি।
সে পেনাল্টি থেকে গোল করতে না পারলেও ফিরতি বলে গোল করতে ভুল করেননি এভারটনের আইসল্যান্ডের মিডফিল্ডার গিলফি সিগুর্ডসন। পরে এডেন হ্যাজার্ড, গঞ্জালো হিগুয়েইনরা শত চেষ্টা করেও ব্যবধান কমাতে পারেননি। শেষ মুহূর্তে কোচ সারি মরিয়া হয়ে জর্জিনহোর জায়গায় ক্যালাম হাডসনকে নামালেও, ততক্ষণে অনেকটাই দেরি হয়ে গেছে। হাডসন তাঁর খেলা দিয়ে বুঝিয়ে দেন মূল একাদশে তিনি সুযোগ পেলে ম্যাচটা হয়তো এভাবে চেলসির হাতছাড়া হতো না।
মরিজিও সারির কৌশল এভাবে প্রতিপক্ষ দলগুলোর কাছে আস্তে আস্তে সহজ হয়ে যাচ্ছে, ফলে ‘সারি বল’ ধীরে ধীরে রূপান্তরিত হচ্ছে ‘সরি বল’–এ। একের পর এক দুঃখজনক পারফরম্যান্সের প্রদর্শনী করে যাচ্ছে চেলসি। ২০১৩ সালের পর এবারই প্রথম এভারটনের মাঠে গিয়ে কোনো গোল না করেই হেরে এল চেলসি। ২০১৯ সালে লিগে ঘরের মাঠের বাইরে এই নিয়ে চারটা ম্যাচ হারল তারা। জেতেনি একটাতেও। ম্যাচ হেরে পয়েন্ট তালিকার ছয়ে নেমে গেছে চেলসি। এক পয়েন্ট বেশি নিয়ে পঞ্চম স্থানে আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। আর ৬০ পয়েন্ট নিয়ে চেলসির চেয়ে তিন পয়েন্ট বেশি পাওয়া আর্সেনাল আছে চতুর্থ অবস্থানে। চ্যাম্পিয়নস লিগে জায়গা পাওয়ার জন্য এই তিন ক্লাবের মধ্যেই মৌসুমের শেষ পর্যন্ত তুমুল লড়াই হবে, বোঝা যাচ্ছে।

সর্বাধিক ক্লিক