প্রচ্ছদ

অপরাধ দমনে ডিসি (উত্তর) আজবাহার আলী শেখ একাই লড়ছেন
জাহাঙ্গীর ও জুনেদরা নগরজুড়ে ভাইরাস ছড়াচ্ছে !

১২ জুন ২০১৯, ১৭:৩৯

sylnewsbd.com

নিজস্ব প্রতিবেদক ::: কোনোদিন ছিলোনা কোনো ছাত্র সংগঠনে। করেনি রাজনীতি। কিন্তু রাজনীতির মানুষগুলোর সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে ফায়দা হাসিল করছে প্রতিনিয়ত। নিজেদের হীন উদ্দেশ্য সফলের লক্ষ্যে কখনো আওয়ামী লীগ আবার কখনো বিএনপি নেতৃবৃন্দের নাম ভাঙ্গিয়ে চলছে তাদের সকল অসামাজিক কার্যক্রম। কেউ কেউ নেতা নেতৃদের পাশে নিজের ছবি উঠিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করে দিচ্ছে ।

এর ফলে নিজেদেরকে দলীয় পরিচয় দেওয়ার একটা প্রয়াস চালানোর অপচেষ্টা চলছে। সম্প্রতি সিলেটের বিভিন্ন অপরাধ আস্তানায় পুলিশী হানায় ভেসে উঠেছে এমন চিত্র।

এমনি এক চরিত্রের নাম জুনেদ আহমদ। সম্প্রতি নগরীর মাদীনা মার্কেটস্থ কালীবাড়ি এলাকায় অবৈধ জুয়ার আস্তানা থেকে জুনেদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতার কালে নিজেকে কখনো সরকার দলের এবং কখনো বিএনপির নেতাদের মানুষ বলে পরিচয় দেয়। জুনেদ নিজেকে ছাত্রলীগের কর্মী পরিচয় দিতেও কার্পণ্য করেনি। পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে জুনেদ নামে কোনোদিনই ছাত্রলীগের কোনো কর্মী ছিলোনা।

শুধু এই জুনেদই নয়। এরকম শ’য়ে শ’য়ে জুনেদ রয়েছে অপরাধ কার্যক্রমে। যারা নিজেদের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনের পরিচয় দিয়ে অবৈধ কাজে প্রভাব কাটিয়ে যাচ্ছে।

এদের নেতৃত্বেই দীর্ঘদিন থেকে ব্যাঙ্গের ছায়ার মতো জাল বিস্তার করেছে তীর খেলা। নষ্ট হচ্ছে যুব সমাজ। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেও ব্যর্থ হয়েছেন স্ব-স্ব এলাকার স্থানীয় অধিবাসীরা। তাছাড়া তীর ও জুয়া খেলার আধিপত্যকে কেন্দ্র করে বিগত সময়ে সিলেটে একাধিকবার মারামারি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তীর ও জুয়া খেলার ক্যাডারদের ভাগাভাগি নিয়েও হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। যা অনেক সময় আড়ালে থেকে যায়।

সিলেটের যে কোন এলাকায় বসেই তারা শীলং জুয়ায় বাজি ধরছে। এ খেলাটি সপ্তাহে ছয়দিনই বসে থাকে। প্রতিদিন দুইবার এ খেলার ড্র অনুষ্টিত হয়। সিলেট তাদের নিজস্ব এজন্টেদের মাধ্যমে ভারতের এজেন্টের সাথে জুয়ার আসরে সমন্বয় করে থাকে। আর ভারতীয় এ ভাগ্যের খেলায় স্কুল কলজেরে ছাত্র, শিক্ষক, দিন মজুর, রিক্সা ও যানবাহন চালক-শ্রমিকসহ যুবকরা অংশ নিচ্ছেন। আর এতে করে অনেক স্কুলগামী ছাত্ররা স্কুল ফাঁকি দিয়ে দিন দিন বিপদগামী হচ্ছে। তাই ছাত্রদের মনযোগ এখন বইয়ের পরিবর্তে তীর খেলার দিকেই বেশী। র্দীঘদিন ধরে এই খেলা চললেও এদের বিরুদ্ধে প্রশাসন নিরব ভূমিকা পালন করছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সিলেট শহরের কাজির বাজার, শেখঘাট, বেতের বাজার, শামীমাবাদ, কাজলশাহ্, রিকাবীবাজার, মদিনা মার্কেট, কুমারগাঁও বাসষ্ট্যান্ড, পাঠানটুলা পেট্রোল পাম্প, তেমুখী, টুকের বাজার, আখালিয়া, বালুচর, টিলাগড়, আম্বরখানা, মেন্দিবাগ, কদমতলী, উপশহর, তেররতন সহ প্রায় শতাধিক স্পটে ভারতীয় এ জুয়ার আসর বসে থাকে।

সর্বাধিক ক্লিক