প্রচ্ছদ

তাফিদা: ইসলামী ফতোয়া প্রভাবের আশঙ্কায় আদালতে এনএইচএস, বিচারকের প্রত্যাখ্যান

০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৫২

sylnewsbd.com

লন্ডন: ৭ মাস যাবত রয়েল লন্ডন হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থাকা ৫ বছর বয়সী বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত তাফিদা রাকিবের লিটিগেশন ফ্রেন্ড তাঁর একজন মহিলা পরিবার সদস্যকে অপসারণ করার ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের (এনএইচএস) দাখিলকৃত এক আবেদন নাকচ করে দিয়েছে লন্ডনের একটি আদালত।

গুরুতর অসুস্থ পাঁচ বছরের শিশুটির পরিবার তাদের ইসলামী ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে তার সেরা স্বার্থের পক্ষে ভূমিকা রাখতে পারবে না, এমন যুক্তি উত্তাপন করে এনএইচএস আদালতে তাফিদার ঐ মহিলা পরিবার সদস্যের উপস্থিতির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা চাইলেও আদালত  তা নাকচ করে দেয়।

তাফিদার লাইফ সাপোর্ট প্রত্যাহারের পক্ষে-বিপক্ষে আগামী সপ্তাহে লন্ডনের উচ্চ আদালতে নির্ধারিত ৫দিন ব্যাপী শুনানী সামনে রেখে দাখিলকৃত এনএইচএস এর এই আবেদন নিয়ে তাফিদার মা সেলিনা রাকিব ও বাবা মোহাম্মদ রাকিবের আইনজীবী ডেভিড লক কিউসি এনএইচএস এর কড়া সমালোচনা করেছেন আদালতে। এনএইচএস আইনজীবী কেটি গলপ কিউসি আদালতে বলেছিলেন, ‘এই ফতোয়ার কারনেই পরিবারের কোনও সদস্য লিটিগেশন ফ্রেন্ড হিসাবে কাজ করার উপযুক্ত হতে পারেন না। উচ্চ আদালতের পারিবারিক বিভাগ দ্বারা গৃহীত সিদ্ধান্ত তাফিদার সর্বোত্তম স্বার্থে হতে পারে, কিন্তু ফতোয়ার কারনে এক্ষেত্রে পরিবারের  মুক্ত মনোভাবে থাকা সম্ভব নয়।’

বাবা, মা ও ভাইয়ের সাথে তাফিদা

এনএইচএস আইনজীবীর বক্তব্যের জবাবে তাফিদা পরিবারের আইনজীবী ডেভিড লক কিউসি  বলেন, ‘আপনি যতই যুক্তি দেখান না কেন, একটি সরকারী সংস্থার পক্ষে এটি একটি আপত্তিজনক বক্তব্য’। তিনি বলেন, ‘ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী বলেই সন্তানের স্বার্থ সংরক্ষন হবে না, শুধুমাত্র ধর্মীয় বিশ্বাসের কারনে পরিবার সদস্য লিটিগেশন ফ্রেন্ড হিসেবে থাকতে পারবেন না, এনএইচএস এর এমন যুক্তি শুধু আপত্তিজনকই নয়, বেআইনীও বটে।’

দুপক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য শোনার পর বিচারক আলিষ্টার ম্যাগডোনাল্ড কিউসি এনএইচএস এর আবেদন নাকচ করে দেন। ফলে আগামী সপ্তাহে উচ্চ আদালতে শুনানীর সময় লিটিগেশন ফ্রেন্ড হিসেবে তাফিদার ঐ মহিলা পরিবার সদস্য (রিপোর্টে নাম উল্লেখে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে) ভূমিকা রাখতে পারবেন।

দুপক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য উপস্থানকালে আদালতে উপস্থিত তাফিদার মা সেলিনা রাকিব এনএইচএস এর এই আবেদনকে অপ্রয়োজনীয় আখ্যায়িত করে বলেন, ‘শুনানীতে আসার জন্য আমার মেয়ের রোগশয্যা পাশ থেকে সরে আসতে আমার খুব কষ্ট হয়েছে’।

সন্তানের জীবনাবসানের পক্ষে মা-বাবার সম্মতি দেয়া ধর্মীয় বিধান মতে পাপ, ইসলামিক কাউন্সিল অফ ইউরোপের দেয়া এমন একটি ফতোয়া তাফিদার মা সেলিনা রাকিব এর আগে আদালতে দাখিল করার কারনেই এনএইচএস আদালতে এই আবেদন দাখিল করে।

উল্লেখ্য, মস্তিষ্কে রক্তকরণে আক্রান্ত হয়ে রয়েল লন্ডন হাসপাতালে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে লাইফ সাপোর্টে থাকা বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ৫ বছর বয়সী শিশু তাফিদা রাকিবকে চিকিৎসার সুযোগ না দিয়ে লাইফ সাপোর্ট খুলে নিতে চান ডাক্তাররা। পরিবারের শত আকুতির পরও ইতালিতে নিয়ে চিকিৎসার সুযোগ না দিয়ে লাইফ সাপোর্ট মেশিন খুলে ফেলার অনুমতি দিতে রয়েল লন্ডন হাসপাতাল বারবার চাপ দিচ্ছে তাফিদা পরিবারকে, এর আগে এমন অভিযোগ করেন পেশায় আইনজীবি তাফিদার মা সেলিনা রাকিব। ইতালিতে নিয়ে যাওয়ার জন্য রয়েল লন্ডন হাসপাতাল ছাড়পত্র দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় আদালতের দ্বারস্থ হন তাফিদার মা। পাশাপাশি লাইফ সাপোর্ট খুলে তাফিদাকে মৃত্যুর হাতে তুলে দেয়ার অনুমতির আশায় আদালতের দ্বারস্থ হয় রয়েল লন্ডন হাসপাতালও। আগামী সপ্তাহে এই বিষয়ে ৫দিনব্যাপি শুনানী অনুষ্ঠিত হবে লন্ডনের উচ্চ আদালতে।

সর্বাধিক ক্লিক