প্রচ্ছদ

সিলেট সিটি কর্পোরেশন
পদবী ডে লেভার, জনসংযোগ কর্মকর্তা’র পরিচয় দিচ্ছেন সাবেক শিবির ক্যাডার শিহাব !

০৪ মার্চ ২০১৯, ১৩:২৪

sylnewsbd.com

নিজস্ব প্রতিবেদক : শাহাব উদ্দিন শিহাব। বাড়ি সিলেটের জৈন্তা উপজেলার চিকনাগুল গ্রামে। বর্তমানে সিসিকের জনসংযোগ কর্মকর্তার পরিচয় দেন তিনি। তবে, আশ্চর্য্যরে বিষয় হলো- তিনি মাষ্টার রোলে দৈনিক ডে লেভার হিসেবে সিসিকের বেতনভুক্ত কর্মচারী।

জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যুনতম গ্রেজুয়েশন থাকার কথা থাকলেও মাধ্যমিক সার্টিফিকেটধারী হওয়ায় তিনি অস্থায়ী চুক্তিভিত্তিতে দৈনিক ৫শত টাকা মজুরী গ্রহণের মাধ্যমে ডে লেভারের বিল পান তিনি। তবে, সিসিকের মূল কাগজপত্রে সিহাবকে দেখানো হয়েছে ডে লেভার (অস্থায়ী) হিসেবে। কিন্তু অস্থায়ী ডে লেভার সিহাবকে সিসিকের ওয়েবসাইটে মাধ্যমিক পাশ করা আলোচিত এই সিহাবকে দেখানো হয়েছে জনসংযোগ কর্মকর্তা (অস্থায়ী) হিসেবে। মেয়র আরিফুল হককে ম্যানেজ করে এই কাজটি বাগিয়ে নিয়েছেন তিনি।
এই পদবী ব্যবহারের পর থেকেই ভাগ্য বদলে যায় সিহাবের। রাতারাতি পাল্টে যান তিনি। পদের প্রভাব কাটিয়ে নগরভবনের সবকটি শাখায় টনক নাড়েন তিনি। শাহাব উদ্দিন সিহাব কখনো নিজেকে সিসিক মেয়রের একান্তজন, কখনোবা মেয়রের নির্ভরতা এবং বিশ^স্থ লোক পরিচয় দিয়ে অনৈতিক ফায়দা হাসিল করেন বলে জনশ্রুতি রয়েছে।
নিজ উপজেলায় শিবিরের দায়িত্বশীল হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও সিলেট মদন মোহন কলেজে উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে আবার সক্রিয় হন একই সংগঠনে। জেলা শিবিরের সাথি হিসেবেও যুক্ত ছিলেন তিনি।

এ ব্যাপারে সিসিকের প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা (যুগ্মসচিব) বিধায়ক রায় চৌধুরী সিলনিউজ বিডিকে বলেন, ‘সিসিকে আমি নবাগত। মাত্র দু’মাস হলো সিসিকে যোগ দিয়েছি। তিনি শাহাব উদ্দিন সিহাব প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বলেন, সিসিকের ডে লেভার লিস্টে এই নাম রয়েছে। সিসিকের ওয়েবসাইটে জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে সিহাবের নাম আছে স্মরণ করিয়ে দিলে তিনি বলেন, ‘অস্বিকার করছিনা। তবে সিসিকের মূল ফাইলে সিহাবের পরিচয় ডে লেবার হিসেবে দেখানো হয়েছে। আমি সেই ফাইল দেখেই আপনাকে নিশ্চিত করেছি।

এদিকে, শিবির সংশ্লিষ্ট অনেকেই শাহাব উদ্দিন শিহাবের শিবিরের রাজনীতি করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা শিবিরের সাবেক সভাপতি সাইফুল্লাহ আল হোসাইনের ব্যক্তিগত সেলফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও ফোন রিসিভ না করায় মন্তব্য আদায় করা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে সুজন সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ বলেন, যেখানেই অনিয়ম সেখানেই সুজন। একইভাবে সিসিকে যদি এ রকম ভুয়া পদবী ব্যবহার করা হয়, তারও নিন্দা জনায় সুজন।

সর্বাধিক ক্লিক