প্রচ্ছদ

সত্যকে গোপন না করা মহান আল্লাহর নির্দেশ

১৫ মার্চ ২০১৯, ০৮:৫২

sylnewsbd.com

মাওলানা আবদুর রশিদ :: মহান আল্লাহপাক সূরা বাকারার ৪২ নম্বর আয়াতে ইরশাদ করেছেন ‘এবং তোমরা সত্যকে মিথ্যার সহিত মিশ্রিত করিও না এবং জানিয়া বুঝিয়া সত্যকে গোপন করিও না।’ সূরা বাকারার উপরোক্ত আয়াতে মুমিনদের সত্যনিষ্ঠ হওয়ার যে তাগিদ দেওয়া হয়েছে তা মানুষের ব্যক্তি, পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনে অবশ্য পালনীয় হওয়া উচিত।

রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, মিথ্যা সংবাদ প্রচার করা, মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়া কবিরা গুনাহ। (বোখারি মুসলিম)। সংবাদ প্রচারের ক্ষেত্রে মিথ্যাচারের আশ্রয় নেওয়া সেহেতু ইসলামের দৃষ্টিতে জঘন্য অপরাধ সেহেতু সাংবাদিকতার ক্ষেত্রেও এটি অনুসরণীয় বলে বিবেচিত। ইসলামের দৃষ্টিতে সত্য প্রকাশই হওয়া উচিত সাংবাদিকতা ও সংবাদপত্রসহ সব সংবাদমাধ্যমের অবশ্য পালনীয় নীতি। পবিত্র কোরআন নাজিল হয়েছিল মানব সমাজকে সত্য সম্পর্কে অবহিত করার জন্য। হজরত আদম (আ.) থেকে আখেরি নবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পর্যন্ত এক বা দুই লাখ ২৪ হাজার নবী-রসুলের আবির্ভাব হয়েছে মানুষকে সুপথে পরিচালিত করার জন্য। তারা পৃথিবীতে আবির্ভূত হয়েছিলেন আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের পক্ষ থেকে সত্যের সংবাদবাহক হিসেবে। সাংবাদিকতার ক্ষেত্রেও যা এটি অনুসরণীয় নীতিমালা বলে বিবেচিত। আমাদের এ যুগে যারা সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে যুক্ত তাদের সবারই উচিত সংবাদ পরিবেশনে আল্লাহ ও রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশনা মেনে চলা। সংবাদমাধ্যমের জন্যও এ ঐশী নির্দেশের তাৎপর্য অপরিসীম। সাংবাদিকদের দায়িত্ব সত্যকে তুলে ধরা। সঠিক খবর ও বিষয় সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করা। এক্ষেত্রে কোরআনের নির্দেশনা গাইডলাইন হিসেবে বিবেচিত হওয়া উচিত। পবিত্র কোরআনের সূরা হুজুরাতের ৬ নম্বর আয়াতে সর্বশক্তিমান আল্লাহ ইরশাদ করেছেন, ‘হে মুমিনগণ, যদি কোনো পাপাচারী তোমাদের কাছে কোনো বার্তা আনয়ন করে, তোমরা তা পরীক্ষা করে দেখবে, পাছে অজ্ঞতাবশত তোমরা কোনো সম্প্রদায়কে ক্ষতিগ্রস্ত করে বস এবং তোমাদের কৃতকর্মের জন্য তোমাদের অনুতপ্ত হতে হয়।’ প্রতিটি সংবাদকর্মীর উচিত সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে প্রাপ্ত তথ্যের সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া। সংবাদ পরিবেশনে সীমা লঙ্ঘন যাতে না হয় সে বিষয়েও সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। কারণ দায়িত্বহীনতার পরিণতিতে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে দেশ জাতি ও সাধারণ মানুষ। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘কিন্তু সীমা লঙ্ঘন কর না। নিশ্চয় আল্লাহ সীমা লঙ্ঘনকারীদের ভালোবাসেন না।’ বোখারি ও মুসলিম শরিফের হাদিসে রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মিথ্যা সংবাদ প্রচার ও মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়াকে কবিরা গুনাহ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। সংবাদ পরিবেশনে সততার ব্যত্যয় মানুষের ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক এমনকি রাষ্ট্রীয় জীবনকে দুর্বিষহ করে তুলতে পারে। ছড়িয়ে পড়তে পারে অশান্তির দাবানল। অসত্য সংবাদ পরিবেশনা ও গুজব সৃষ্টি জাতীয় জীবনে কী বিপর্যয় সৃষ্টি করে তা দেশ ও বিশ্বের সমসাময়িক ঘটনাপ্রবাহের দিকে তাকালেও অনুমিত হবে। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রাপ্ত প্রতিটি তথ্যকে যাচাই করে সিদ্ধান্ত নিতেন। সংবাদ পরিবেশনের আগে তার যথার্থতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া প্রতিটি সংবাদকর্মীর নৈতিক দায়িত্ব। ইসলামী গবেষক।

সৌজন্যে : বাংলাদেশ প্রতিদিন

সর্বাধিক ক্লিক