প্রচ্ছদ

সিলেটের বিশ্বনাথে প্রবীণ গাজিলদের সুরের মুর্ছনায় অনুষ্ঠিত হলো গজল মিটিং

১৫ মার্চ ২০১৯, ০৭:২৫

sylnewsbd.com

 

কাজি রেজাউল করিম রেজা: বিশ্বনাথ থেকে ফিরে:আলহামদুলিল্লাহ হিল্লাজি জ্বো মালিকে আরদ্বোছামা, পরওয়ার দিগারা রাব্বুল আ’লা খালিকও মাওলা আরদ্বোছামা, আল্লাহ তোমার নাম আমরা স্মরন করিলাম অকুলে ভাসাইলাম অাল্লাহ এ ভাঙ্গাতরি, রহমতে ইজদানে নবী মাক্কি মাদানী নবী জিসমে আ’তর নুরে নূরানী, সবছে আওয়াল ও আ’লা হামারা নবী, আমার মন হইল দেওয়ানা আমার প্রাণ হইল দেওয়ানা আমায় লইয়া যাওগো সোনার মদীনা, নিন্দ্রাহতে জাগো মুমিন, হুকমে খোদা জিবরীল আমদ নজদে মোস্তফা জবতে রাসুলুল্লাহ গারহে’রা, ইয়া মোহাম্মদ সাইয়্যেদুনা মুজে জিকিরমে দিওয়ানা বানাইলে না, ইবতেদাহাম দেখোদানতকে জবা জিসমে দিয়া ইত্যাদি হামদ ও না’ত এবং ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশন করে সুরের মুর্ছনায় মাতিয়ে গেলেন এক যাক ইসলামী সঙ্গীত শিল্পিরা। বুধবার রাতে সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজি ইউনিয়নের কেশবপুর ডাক্তারবাড়ি গ্রামে শানে মোস্তফা (সা:) ইসলামী সাংস্কৃতিক সংসদ সিলেট কর্তৃক আয়োজিত ইসলামী গজল মিটিং, প্রতিযোগিতা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
ডাক্তার আবদুল গফুর ও কমরু মিয়ার যথাক্রমে সভাপতিত্বে এবং মাওলানা গাজিল ছালিক আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত গজল মিটিংয়ে বিচারক মন্ডরী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সৎপুর কামিল মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা আবদুর বাছিত, মাস্টার আলীনুর হোসেন বিপ্লবসহ অন্যান্যরা। পুরাতন ডায়েরি থেকে হামদ, না’ত ও ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশন করে সুরের মুর্ছনায় উপস্থিত গজলপ্রেমিদের প্রাণবন্ত করে তুলেন অাল-বদর, হোসাইনিয়া ও অাল হেরা শিল্পিগোষ্ঠির প্রবীন গাজিল মুফতি মাওলানা অাফজল খান সিরাজী, অামির উদ্দিন, অাফরাফ অালী, কাজি রেজাউল করিম রেজা, অাবদুল অাজিজ, সালেহ অাহমদ, মাওলানা মনোয়ার খান, ফারুক অাহমদসহ অারো অনেকেই। এছাড়া স্থানীয় শিল্পিরাও এ মিটিংয়ে অংশ নেন।
জানা গেছে, এক সময়ে এসব গজল বা গজল মিটিং সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় বেশ জনপ্রিয় ছিল। বছরের হেমন্ত শুরু হলে ওয়াজ মাহফিলের সাথে পাল্লা দিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও গ্রামে গঞ্জে গজল মিটিং অনুষ্ঠিত হতো। অার এসব গজলে সুর দিতেন অনেক প্রবীন গাজিলরা। তাদের সু মধুর কন্ঠে গজল শুনতে দল বেঁধে সকল বয়সি গজল প্রেমিরা গজল মিটিংয়ে অংশ নিতেন। কালের পবর্তনে প্রায় একযোগ থেকে এসব হারিয়ে গেছে। বলতে গেলে অাধুনিকতার যাতাকলে পুরাত ডায়েরির গজলগুলো ভাজপড়ে বিনষ্ট হচ্ছে। বিলীন হচ্ছে সেই সু-মধুর সুরগুলোও।
অাগের মতো সবখানে গজল মিটিংয়ের অায়োজন করা হয় না। গজলপ্রমিরাও সেই গজলগুলো অার শুনতে পান না। সবাই নতূন নতূনত্ব নিয়ে ব্যস্ত। সমাজের চারদিকে এসব অায়োজন থেমে গেলেও চাহিদা কমে নি শানে মোস্তফা (সাঃ) ইসলামী সাংস্কৃতিক সংসদের মাওলানা ছালিক অাহমদসহ গজলপ্রেমি তাঁর পরিবারের। তাঁর পরিবারের লোকজনের সহযোগিতায় তিনি গাজিলদের জমায়েত করে হারিয়ে যাওয়া সেই গজল মিটিংয়ের অায়োজন করেন। প্রকৃত পক্ষে হারিয়ে যায়নি গাজিল বা শিল্পীদের পুরাতন ডায়েরির পাতার সেইসব গজল। অাছে প্রতিটি গাজিলের কন্ঠে গজল ও সু-মধুর সুর। শিল্পিরা এখনো চান সেই আগের মতো চারদিকে গজল মিটিংয়ের আয়োজন করা হোক। চর্চা করা হোক হারিয়ে যাওয়া সেইসব গজলগুলো। গান-বাজনা কিংবা অন্যান্য অপসংস্কৃতি থেকে সমাজের মানুষকে মুখ ফিরিয়ে অানতে গজল মিটিংয়ের বিকল্প নেই।
সচেতন মহলের ধারণা, বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া গজল মিটিংয়ের প্রথা চালু হলে আবারো যেমন শিল্পিরা ফিরে পাবে ইসলামী সঙ্গীতের প্রাণ তেমনি গজল প্রেমিরাও পাবে সুস্থ্যধারার সংস্কৃতি ও সুরের তান। প্রবীন অালেম উলামা ও মুরব্বিদের ঐতিহ্য ধরে রাখতে এবং সমাজের মানুষকে সুস্থ্য ও সঠিক পথে পরিচালিত করতে প্রতিটি এলাকায় প্রতিযোগিতামুলক ভাবে গজল মিটিংয়ের অায়োজন এখন সময়ের দাবি।
গজল মিটিংয়ে বিজয়িদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ শেষে মিলাদ ও দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা অাবদুল বাছিত।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    8
    Shares

সর্বাধিক ক্লিক