প্রচ্ছদ

আবুসিনা ছাত্রাবাস আন্দোলনকারীরা উন্নয়ন ও সিলেট বিদ্বেষী
স্বল্প আয় এবং সুবিধাবঞ্চিত মানুষের ভরসাস্থল হবে ‘সিলেট জেলা হাসপাতাল’

১২ মার্চ ২০১৯, ১৯:০৬

sylnewsbd.com

নিজস্ব প্রতিবেদক :: ‘জেলা হাসপাতাল নির্মান সিলেট বাসীর প্রাণের দাবি। স্বল্প আয়ের এবং সুবিধা বঞ্চিত মানুষগুলোর সুচিকিৎসা নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে নির্মান হচ্ছে হাসপাতালটি। এই হাসপাতাল নির্মাণ বন্ধে যারা আন্দোলন করছেন তারা সিলেট এবং উন্নয়ন বিদ্বেষী। স্থাপত্যের নিদর্শন রাখা হয় জাদুঘরে। আসলে দুর্বল যুক্ত জাহির করে ঐসব কুচক্রি মহল নিজেদের ফায়দা হাসিল করতে চায়।’ ক্ষোভের সাথে এমন কথাই বললেন,বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট সিলেট বিভাগীয় কমিটির সভাপতি মামুন হাসান। আবু সিনা ছাত্রাবাসের স্থলে জেলা হাসপাতাল নির্মান বন্ধে মানববন্ধন পালনকারীদের উদ্দেশ্যে এমন মন্তব্য রাখেন তিনি।
তিনি বলেন, সিলেটের কোটি মানুষের চিকিৎসা সেবার কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা হাসপাতালের কাজ শুরু করেছেন। আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। আমরা চাই সিলেট জেলা হাসপাতালের উন্নয়ন কাজ অব্যাহত থাকুক।

উল্লেখ্য গত বছরের জানুয়ারিতে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট সিলেট জেলা হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সিলেটের সাধারণ মানুষের প্রাণের দাবী পূরণে কাজ করেছেন বর্তমান সরকার। জন-মানুষের স্বাস্থ্য সেবায় নিশ্চিত করতে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সদর হাসপাতালের পাশাপাশি নির্মিত হচ্ছে জেলা হাসপাতাল। সমাজের মধ্যবিত্ত থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সেবার কথা চিন্তা করে সরকারের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন সিলেটের সাধারণ মানুষ। বেসরকারী হাসপাতালকে সুযোগ-সুবিধা দিতে একটি কুচক্রিমহলকে দিয়ে হাসপাতাল নির্মান কাজ বাধাগ্রাস্থ করতে আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যেতে মদদ প্রদান করা হচ্ছে। সিলেটবাসীর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে হাসপাতালটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন স্থানীয়রা। আওয়ামী সরকার সর্বক্ষেত্রে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধশীল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে। দেশের মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতে সমগ্র দেশব্যাপী কমিনিউটি ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা করেছেন। চিকিৎসা সেবা দিতে রিতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে সিলেট বিভাগের একমাত্র হাসপাতাল সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। হাসপাতালের দৃশ্য দেখলে যেকোন মানুষ আবেপূর্ণ হয়ে উঠেন। ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালের সিট থেকে শুরু করে মাটিতে পর্যন্ত রোগীদের অবস্থান।

দেওয়ান মোহাম্মদ হরমুজ আলী বলেন, সিলেট জেলা হাসপাতাল বন্ধ করলে প্রাইভেট ক্লিনিকের মালিকরা বেশি লাভবান হবেন। আর চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হবে আমজনতা। যারা হাসপাতাল না হওয়ার জন্য আন্দোলনে নেমেছেন, তারা টাকা ওয়ালা। তাদেরকে আল্লাহ তা’য়ালা তাদেরকে সব কিছু দিয়েছে, তাই মৌলিক অধিকার থেকে সিলেটবাসীকে বঞ্চিত করতে চায় তারা।

এ ব্যাপারে জাগো সিলেট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আলা উদ্দিন আলো বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ স্বাধীনের পর অন্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা নিশ্চিতের লক্ষ্যে ৭২’র এর সংবিধান প্রণয়ন করেছিলেন। আর উনারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশব্যাপী এই মৌলিক দাবীগুলো বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। শেখ হাসিনা সিলেটবাসীর প্রতি অত্যন্ত আন্তরিক। এরই ধারাবাহিকতায় দেশ স্বাধীনের ৪৮ বছরের পর সিলেটবাসীর প্রাণের দাবী সিলেট জেলা হাসপাতালের কাজ শেখ হাসিনা শুরু করেছেন। আর কোটি মানুষকে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত করতে একটি কুচক্রি মহল যাতে এখানে হাসপাতাল না হয়, তাই নানা ধরনের চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। জাগো সিলেট কোটি মানুষকে সাথে নিয়ে এই আন্দোলন প্রতিরোধ করবে। আমরা চাই ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালটি পর্যায়ক্রমে ১ হাজার শয্যাবিশিষ্ট হউক।
মুক্তিযোদ্ধা আফতাব আলী বলেন, আমরা মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশনিয়েছিলাম দেশ ও জাতির জন্যে। আমরা চাই দেশ ও জাতির সুচিকিৎসা নিশ্চিত হউক, চলমান ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের কাজ অব্যাহত থাকুক। মানুষ তার মৌলিক অধিকার চিকিৎসা সেবা পাক।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • 34
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    34
    Shares

সর্বাধিক ক্লিক