প্রচ্ছদ

১৫ রানে যেভাবে ৮ উইকেট হারাল হায়দরাবাদ

১৫ এপ্রিল ২০১৯, ০১:১৯

sylnewsbd.com

স্পোর্টস ডেস্ক :: এই পরাজয় কিভাবে মেনে নেবেন ডেভিড ওয়ার্নার-জনি বেয়ারস্ট্রো। দলকে জয়ের জন্য যথেষ্ট চেষ্টা করেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের এই দুই ওপেনার। কিন্তু মিডল এবং লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দায়িত্বহীনতায় শেষ পর্যন্ত হেরে যায় হায়দরাবাদ।

১৫৬ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দুই ওপেনার ৫৯ বলে ৭২ রান যোগ করে জয়ের স্বপ্ন দেখান। শেষ ৬১ বলে প্রয়োজন ছিল ৮৪ রান। হাতে ছিল ১০ উইকেট। অথচ ৪৪ রানের ব্যবধানে ১০ উইকেট হারিয়ে ১৮.৫ ওভারেই গুটিয়ে যায় সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। তার চেয়েও বড় কথা হলো, শেষ ১৫ রান তুলতে হায়দরাবাদ হারায় ৮ ব্যাটসম্যানের উইকেট।

সাকিবদের হায়দরাবাদকে ৩৯ রানে হারিয়ে প্রতিশোধ নেয় দিল্লি ক্যাপিটাল। ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার কিমু পল ৪ ওভারে মাত্র ১৭ রান দিয়ে টপ অর্ডারের তিন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফিরিয়ে ম্যাচ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেন। বাকি কাজটা সারেন রাবাদা ও ক্রিস মরিস।

খেলায় দিল্লি ক্যাপিটালসের পক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার রাবাদা ৩.৫ ওভার বল করে মাত্র ২২ রান দিয়ে মূল্যবান ৪ উইকেট শিকার করে হায়দরাবাদের ইনিংসে ধস নামান। আর দক্ষিণ আফ্রিকান অলরাউন্ডার ক্রিস মরিস ৩ ওভারে ২২ রান দিয়ে নেন তিনটি উইকেট।

চলতি আইপিএলে দুই দলের প্রথম সাক্ষাতে দিল্লিকে ৫ উইকেটে পরাজিত করে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

এনিয়ে টানা তিন ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের পর দিল্লির বিপক্ষে হেরে পরাজয়ের বৃত্তে আটকে রইল হায়দরাবাদ।

রোববার হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ১৫৫ রান করে দিল্লি। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৫ রান করেন অধিনায়ক স্রেয়াশ আয়ার। এছাড়া ৪০ রান করেন কলিন মুনরো। হায়দরাবাদের হয়ে ৩ উইকেট নেন খালিদ আহমেদ। দুই উইকেট নেন ভুবেনেশ্বর কুমার।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) চলতি আসরের ৩০তম ম্যাচে রোববার মুখোমুখি হায়দরাবাদ ও দিল্লি। টস হেরে প্রথমে ব্যাট করছে দিল্লি।

আইপিএলের চলতি আসরে সপ্তম ম্যাচ খেলছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। আজও হায়দরাবাদের একাদশে জায়গা হয়নি সাকিব আল হাসানের। দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করছে হায়দরাবাদ।

এবারের আইপিএলে হায়দরাবাদের হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলেই দল থেকে বাদ পড়েন সাকিব। এনিয়ে ছয় ম্যাচে সাইড বেঞ্চে বসিয়ে রাখা হয়েছে বাংলাদেশ সেরা এই অলরাউন্ডারকে।

দিল্লি: ২০ ওভারে ১৫৫/৭ (স্রেয়াশ ৪৫, মুনরো ৪০; খালেদ ৩/৩০)।

হায়দরাবাদ: ১৮.৫ ওভারে ১১৬/১০ (ওয়ার্নার ৫১, বেয়ারস্ট্রো ৪১; রাবাদা ৪/২২)।

ফল: দিল্লি ক্যাপিটালস ৩৯ রানে জয়ী।

7Shares

সর্বাধিক ক্লিক