অবশেষে সিলেটে খেলার মাঠ থেকে মেলার মাল অপসারন

প্রকাশিত: ১১:২১ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০২১

অবশেষে সিলেটে খেলার মাঠ থেকে মেলার মাল অপসারন

নিজস্ব প্রতিবেদক

আইন অনুযায়ী খেলার মাঠ খেলা ছাড়া অন্য কোনো কাজে ব্যবহার বা ভাড়া দেওয়া দণ্ডনীয় অপরাধ। কিন্তু এই আইন লঙ্ঘন করেই বছরে পর বছর চলে সিলেট সদর উপজেলার শেখ মিনি রাসেল স্টেডিয়ামে মেলা । সিলেট নগরীর শাহী ঈদগাহ শেখ মিনি রাসেল মাঠে সিলেট উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির উদ্যোগে মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে নারী উদ্যোক্তাদের মাসের পর মাস মেলা চালিয়ে গেলে খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হন খেলােয়াররা। সিলেট সদর উপজেলার শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম খেলার মাঠ থেকে খোলা শুরু হয় বাণিজ্য মেলার মালামাল ! আজ শনিবার দেখা যায় মাল সরানো প্রায় শেষ।

মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদ্‌যাপন উপলক্ষে নারী উদ্যোক্তা সম্মেলন ও পণ্য প্রদর্শনী মেলা শেষ হলেও করোনাকালে চলতে থাকে মেলা এ সময় অনেক তদবির করেও মেলার সময় বাড়াতে পারেনি তারা সিলেটের জেলা প্রশাসক বন্ধ করে দেন মেলা কিন্ত মেলার মাল সরাননি মেলার আয়ােজকরা ।
এ নিয়ে গত শনিবার ২৯ মে ২০২১ সিলেট সদর উপজেলার শেখ মিনি রাসেল স্টেডিয়ামে বছরের পর বছর খেলার মাঠে মেলা এর প্রতিবাদে প্রতিকী কালো ব্যাজ ধারন করেন খাদিমপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান এডভোকেট আফসর আহমদ ও টুলটিকর ইউপি চেয়ারম্যান এসএম আলী হোসেন সহ খেলোয়ার ও সর্বস্তরের দর্শকবৃন্দ।

সিলেটে বন্ধ হলো নারী উদ্যোক্তা সম্মেলন ও পণ্য প্রদর্শনী মেলা বন্ধ ঘোষণা

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সিলেটে নারী উদ্যোক্তা সম্মেলন ও পণ্য প্রদর্শনী মেলা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বুধবার (৩১ মার্চ) সকালে মেলা স্থগিতে জেলা প্রশাসনের নির্দেশক্রমে এই মেলা সাময়িক স্থগিত করে একাধিক নোটিশ টাঙিয়েছে মেলা কর্তৃপক্ষ।

গত ৮ মার্চ সিলেট নগরীর শাহী ঈদগাস্থ সিলেট সদর উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে সিলেট উইমেনস চেম্বারের উদ্যোগে নারী উদ্যোক্তাদের নিয়ে মাসব্যাপী নারী উদ্যোক্তা সম্মেলন ও পণ্য প্রদর্শনী মেলার উদ্বোধন করা হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান এডভোকেট আফসর আহমদ জানান বছরের পর বছর যাতে এ মাঠে মেলা না হয়, সে দিকে লক্ষ্য রেখে খেলাধুলার জন্য মাঠ উন্মুক্ত করতে উর্ধ্বতন মহলের প্রতি তিনি অনুরোধ জানান।

টনক নড়ে মেলার আয়োজকদের অবশেষে ( গত রবিবার ৩০ মে ২০২১ )সিলেট সদর উপজেলার শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম খেলার মাঠ থেকে খোলা শুরু হয় বাণিজ্য মেলার মালামাল ! আজ শনিবার দেখা যায় মাল সরানো প্রায় শেষ।

গত (০৩ জুন ) নগরীর শাহী ঈদগায় শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে মস্তাক আহমদ পলাশ কাপ ফুটসালের প্রথম সেমিফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এড.নাছির উদ্দিন খান বলেছেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার খেলাধুলার প্রতি আন্তরিক। জননেত্রী শেখ হাসির নেতৃত্বে দেশ আজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে ।
তিনি আরো বলেন, খেলাধুলার মাধ্যমে যুব সমাজকে আলোর পথে অগ্রসর করতে হবে। খেলাধুলা যুব সমাজকে অপরাধ থেকে বিরত রাখে। আগামী সুন্দর সমাজ বিনিমার্ণে যুব সমাজের বিকল্প নেই। আমরা চাই শাহী ঈদগায় শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে যেন আর মেলা ও গরুর হাট না বসে সারা বছর খেলা ধুলা হয় । মেলার জন্য অন্য জায়গায় মাঠ করা হয় ।

এডভোকেট আফছর আহমেদ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট, বালক (অনূর্ধ্ব-১৭) ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল বালিকা (অনূর্ধ্ব-১৭) খেলার উদ্বোধন এর জন্য আমাদের উপজেলার মাঠ শেখ মিনি রাসেল স্টেডিয়াম পাইনি।

পরে সিলেট সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে ও যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় শনিবার (২৯ মে) সকাল ১০টায় নগরীর দলদলি চা-বাগান মাঠে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়।তাই সিলেটবাসীকে নিয়ে প্রতিবাদ করি। সিলেট উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি মেলার নামে মাঠ দখল করে রাখে। এতে মাঠের পুরো অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি স্থানীয় ব্যক্তিরাও বঞ্চিত হচ্ছে খেলাধুলার সুযোগ থেকে।

তিনি আরোও বলেন, খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান, উদ্যান ও প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন ২০০০-এর ৫ নম্বর ধারা অনুযায়ী, খেলার মাঠ অন্য কোনোভাবে ব্যবহার বা অনুরূপ ব্যবহারের জন্য ভাড়া, ইজারা বা অন্য কোনোভাবে হস্তান্তর করা যাবে না৷ এই আইন লঙ্ঘনে অনধিক পাঁচ বছরের কারাদণ্ড বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অথবা উভয় সাজার বিধান আছে।
এবারই প্রথম নয়। এই খেলার মাঠে কয়েক বছর ধরে এমন ছোট-বড় মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। আসলে মেলার মাধ্যমে মাঠ ব্যবহার করে কিছু লোক কোটি টাকা কামিয়ে নিচ্ছেন। এটা আসলে টাকার মেলা।

তিনি বলেন, ‘আমি খেলার মাঠে মেলা আয়োজন সমর্থন করি না। মাঠটি সবার জন্য উন্মুক্ত। মেলার কারণে খেলাধুলা বন্ধ রয়েছে। খেলাধুলা বন্ধ থাকলে এলাকার তরুণেরা বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ার প্রবণতা বাড়ে।’ তাই আর কখনো যেন এই মাঠে মেলা বা গরুর হাট না বসে এ দাবী জানাচ্ছি।

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ