অবশেষে মারা গেলেন সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ নেতা বিজয়

প্রকাশিত: ১১:২১ অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০২০

অবশেষে মারা গেলেন সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ নেতা বিজয়

অনলাইন ডেস্ক :;

প্রতিপক্ষের হামলায় আহত সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ নেতা এনামুল হক বিজয় অবশেষে মারা গেলেন। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লাইফ সাপোর্ট খুলে দেয়ার পর ঢাকার নিউরো সাইন্স হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত এনামুল হক বিজয় কামারখন্দ উপজেলার চালা শাহবাজপুর এলাকার আবদুল কাদেরের ছেলে। তিনি সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ও কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল হাজী কোরপ আলী ডিগ্রি কলেজ শাখার সভাপতি ছিলেন।

এনামুলের মৃত্যুর খবর সিরাজগঞ্জ শহরে ছড়িয়ে পড়লে বেলা দেড়টার দিকে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ বিন আহম্মেদের নেতৃত্বে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে ঘণ্টাব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

জানা গেছে, গত ২৬ জুন বিকালে শহরের শহীদ এম. মনসুর আলী অডিটোরিয়ামে প্রয়াত নেতা মোহাম্মদ নাসিমের স্মরণে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। ওই দোয়া মাহফিলের আসার পথে শহরের বাজার স্টেশন এলাকায় জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দিয়ারধানগড়ার জিহাদ ও আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক ভাঙ্গাবাড়ি মহল্লার আল আমিনসহ বেশ কয়েকজন মিলে এনামুল হক বিজয়কে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে।

এ ঘটনার পর আহত এনামুল হক বিজয়কে প্রথমে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিব জেনারেল হাসপাতাল ও পরে এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকার নিউরো সাইন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ দিকে দুপুরে সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল লতিফ বিশ্বাস ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্না এমপি জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন এবং নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন।

এ ছাড়াও হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য্, হাজী ইসহাক আলী, আবদুল বারী সেখ, সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম আহমেদ, প্রচার সম্পাদক শামসুজ্জামান আলো, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ফরিদ আহম্মেদ চৌধুরী পিয়ার, যুব বিষয়ক সম্পাদক বদরুল আলম, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ইমরুল কায়েস তপন, উপ-প্রচার সম্পাদক নাসিমুর রহমান নাসিম, জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আবদুর রউফ পান্না, অ্যাড. আবদুল হাকিম, বর্তমান সভাপতি রাশেদ ইউসুফ জুয়েল, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জিহাদ আল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আসাদুজ্জামান সোহেল, জাকিরুল ইসলাম লিমন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, নাজমুল হক প্রমুখ।

এনামুল হক বিজয়ের ওপর হামলার ঘটনায় তার বড় ভাই রুবেল বাদী হয়ে জেলা ছাত্রলীগের ২ সাংগঠনিক সম্পাদকসহ সংগঠনের ৫ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৪-৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। ইতিমধ্যে মামলার এজাহারভুক্ত ৫ জনের মধ্যে ৪ জন গ্রেফতার হলেও প্রধান আসামি শিহাব আহমেদ জিহাদ এখনও পলাতক রয়েছেন। এ ঘটনার পর জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আল আমিন ও শিহাব আহমেদ জিহাদকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ সদর থানার ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, ২৬ জুন এনামুল হক বিজয়ের ওপর হামলার ঘটনার পর থেকে যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ