অভিষেককে মিষ্টি খাইয়ে বরণ করে নিলেন মাশরাফির বাবা-মা

প্রকাশিত: ১২:৫০ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২০

অভিষেককে মিষ্টি খাইয়ে বরণ করে নিলেন মাশরাফির বাবা-মা

খেলা ডেস্ক :: অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী ক্রিকেটার অভিষেক দাস অরণ্য নড়াইলবাসীর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন। ভক্তদের ফুলেল শুভেচ্ছা এবং তাকে মিষ্টি খাইয়ে বরণ করে নিলেন মাশরাফির বাবা-মা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নড়াইল শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে নড়াইল-যশোর সড়কের গাবতলা এলাকা থেকে ক্রিকেট তারকা মাশরাফির বাবা গোলাম মুর্তজা স্বপন তাকে বরণ করেন।

পরে অভিষেকের বন্ধু, ভক্ত এবং আত্মীয়-স্বজন দুই শতাধিক মোটরসাইকেল, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কার নিয়ে শোভাযাত্রাসহ নড়াইল শহরে প্রবেশ করে।

এর আগে দুপুর ১২টার দিকে অভিষেক একটি ফ্লাইটে যশোর বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান। সেখানে তার বাবা অসিত দাস, মা অরুনা দাসসহ পরিবারের লোকজন অভিষেককে মালা পরিয়ে বরণ করে নেন। তারপর গাড়িতে নড়াইলের উদ্দেশে যাত্রা করেন।

বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা সহকারে অভিষেক দুপুর আড়াইটার দিকে নড়াইল শহরে প্রবেশ করেন। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জাতীয় ক্রিকেট ওয়ানডে দলের অধিনায়ক নড়াইল-২ আসনের এমপি মাশরাফি বিন মুর্তজার বাড়িতে গেলে মাশরাফির মা হামিদা বেগম বলাকা ও বাবা গোলাম মুর্তজা স্বপন অভিষেককে মিষ্টি খাইয়ে দেন। তারা অভিষেকসহ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী দলের জন্য দোয়া কামনা করেন ও শুভেচ্ছা জানান।

এ সময় অভিষেক দাসের বাবা অসিত দাস, নড়াইল জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক শরফুল আলম লিটু, ক্রিকেট কোচ সৈয়দ মঞ্জুর তহিদ তুহিন, আওয়ামী লীগ নেতা হাফিজ খান মিলন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী গিয়াসউদ্দিন খান ডালু, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি চঞ্চল শাহারিয়ার মিম, সাধারণ সম্পাদক রকিবুজ্জামান পলাশ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

পরে শোভাযাত্রাটি অভিষেককে নিয়ে তার বাড়ি শহরের বাঁধাঘাট এলাকায় যায়।

সেখানে তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় অভিষেক বলেন, দেশের মানুষ এবং নড়াইলবাসীর এত বড় ভালোবাসা ও স্নেহ পেয়ে ধন্য। তার দায়িত্ব অনেক বেড়ে গেছে। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ থেকে আরও ভালো কিছু অর্জনের জন্য চেষ্টা করে যাব। আপনারা আমার জন্য আশীর্বাদ করবেন, আমি যেন এর থেকে ভালো কিছু অর্জন করতে পারি, বাংলাদেশকে যেন ভালো কিছু উপহার দিতে পারি।

উল্লেখ্য, অভিষেককে একনজর দেখতে এমপি মাশরাফি ও অভিষেকের বাড়ির সামনে এবং শহরের বিভিন্ন প্রান্তে কয়েক হাজার মানুষ অপেক্ষায় ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের ফেইসবুক পেইজ