আইনজীবী সহকারী শামীম হত্যার মুল হোতা শাহেদ গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: ৪:১৭ অপরাহ্ণ, জুন ৩০, ২০২০

আইনজীবী সহকারী শামীম হত্যার মুল হোতা শাহেদ গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় আইনজীবী সহকার ইউনুছ আহমদ শামীম হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী শাহেদ আহমদকে (৩২) গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৯।

গতকাল ২৯ জুন, সোমবার রাত সাড়ে ৭টায় মৌলভীবাজারের বড়লেখা থানার শাহবাজপুরে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করেন। শাহেদ আহমদ সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার কাছাটুলা গ্রামের মনিরুল ইসলামের পুত্র।

এর আগে শুক্রবার (১২ জুন) মোগলাবাজার থানাধীন শ্রীরামপুর থেকে আরো ২ আসামীকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৯। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- রুহুল আমিন (৩৫) ও তার স্ত্রী মৌসুমী বেগম (২৩)।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামীদ্বয় হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। মূলত ভিকটিম ইউনুস আহমদ শামীম (৩৮) মৌসুমী বেগমকে উত্ত্যক্ত করায় এবং অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের চাপ প্রদান করার প্রতিশোধ হিসাবে মৌসুমী বেগমের স্বামী রুহুল আমীন ও বন্ধু পলাতক আসামী শাহেদ এই হত্যা পরিকল্পনা এবং বাস্তবায়ন করেন।

এই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ১০ জুন আইনজীবী সহকারি ইউনুস আহমদ শামীমকে বিয়ানীবাজার নিজ বাড়িতে ডেকে নেয়। দিনগত রাত অনুমানিক ১টায় শামীমকে হত্যা করে মৃতদেহ বস্তাবন্দী করে দক্ষিণ সুরমায় ফেলে দেয়।

১১ জুন বিকেল ৩টার দিকে নগরীর দক্ষিণ সুরমার ধোপাঘাট এলাকার রাস্তার পাশে সাদা রঙের বস্তাবন্দী এক অজ্ঞাতনামা (৩৮) ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠায় পুলিশ।

ওইদিন রাতেই দক্ষিণ সুরমা থানায় ছবি এবং ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মরদেহ দেখে শামীমকে সনাক্ত করেন তার স্বজনরা।

এ ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই মো. ইউসুফ আহমদ (৩২) বাদি হয়ে দক্ষিণ সুরমা থানায় অজ্ঞাতনামা আসামী উল্লেখ করে মামলা (০৫(০৬)২০২০) দায়ের করেন। চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত থানা পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব-৯ মামলাটির ছায়া তদন্ত শুরু করে ক্লু উদঘাটনে সক্ষম হয়।

নিহত ইউনুছ আহমদ শামীম সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার ঘরপুর দত্তপুর গ্রামের আব্দুল আলীর ছেলে। সিলেট সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী সহকারি ছিলেন।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ