আজ সেই ১৪ ফেব্রুয়ারি

প্রকাশিত: ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২০

আজ সেই ১৪ ফেব্রুয়ারি

শফি আহমেদ :; আজ ঐতিহাসিক ১৪ ফেব্রুয়ারি, ‘স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবস’। কালের পরিক্রমায় আজ পয়লা ফাল্গুন। ১৯৮৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি এ দেশের ছাত্রসমাজ জাতির কাঁধে চেপে বসা সামরিক শাসকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের এক ইতিহাস সৃষ্টি করেছিল, বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে। ফাগুনে আগুন, প্রতিবাদী ছাত্রসমাজের বুকের রক্তে কৃষ্ণচূড়া ফুলের মতো কালো রাজপথকে রক্তিম করে তুলেছিল। আজকের এই দিনে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি সেদিনের শহীদ দীপালি সাহা, জাফর, জয়নাল, মোজাম্মেল, আইয়ুব কাঞ্চনসহ নাম না জানা অসংখ্য শহীদসাথীকে। পাকিস্তানি উপনিবেশের বিরুদ্ধে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ২৩ বছরের সংগ্রাম, চূড়ান্তভাবে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ, ৩০ লাখ শহীদ, ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম হারানোর মধ্য দিয়ে বাঙালি অর্জন করেছিল স্বাধীনতা। আমাদের স্বাধীনতার মূলমন্ত্র ছিল একটি গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, বৈষম্যহীন, মানবিক বাংলাদেশ গড়ে তোলা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মূলমন্ত্রকে একেবারে উল্টো পথে ধাবিত করার চেষ্টা হয়। ক্যু-পাল্টা ক্যুর মধ্যেই আবর্তিত হতে থাকে বাঙালি জাতির আশা-আকাক্সক্ষা। সামরিক শাসকদের পালাবদল হয় জিয়া থেকে এরশাদ। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ লেফটেন্যান্ট জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এক রক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করেন। ২৪ মার্চ ছাত্ররা স্বতঃস্ফূর্তভাবে, বিচ্ছিন্নভাবে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী সোচ্চার হয়। মুক্তিযুদ্ধ ও প্রগতিশীল আদর্শে বিশ্বাসী ছাত্র সংগঠনগুলো ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রচেষ্টা চালায়। ১৯৮৩ সালের ৩ নভেম্বর জেলহত্যা দিবসে ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ মিছিল বের করার চেষ্টা চালায়। কিন্তু পুলিশি বাধায় সে মিছিল পন্ড হয়ে যায়। ৭ নভেম্বর সিপাহি জনতার গণঅভ্যুত্থান দিবসে, ৮ নভেম্বর জাসদ ছাত্রলীগ কলাভবনে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে। এ মিছিলে পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ বহু ছাত্রছাত্রী আহত ও গ্রেফতার হন। বিশ্ববিদ্যালয় পরিণত হয় রণাঙ্গনে। দিন শেষে সিদ্ধান্ত হয় ক্যাম্পাসে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কখনো পুলিশ প্রবেশ করতে পারবে না। ক্যাম্পাস হয় মুক্তাঞ্চল। তিন দফা দাবি সামনে রেখে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করে। দাবিগুলো হলোÑ মজিদ খানের গণবিরোধী শিক্ষানীতি বাতিল, সব ছাত্র ও রাজবন্দীর নিঃশর্ত মুক্তিদান ও সামরিক শাসন প্রত্যাহার করে গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃ প্রতিষ্ঠা করা। সে লক্ষ্যে ১১ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় সমাবেশ ও সচিবালয় অভিমুখে মিছিলের কর্মসূচি ঘোষিত হয়। ১১ জানুয়ারি সকালে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী যখন বটতলায় সমবেত হয়েছেন তখন কেন্দ্রীয় নেতারা আমরা যারা বিশ্ববিদ্যালয়-কেন্দ্রিক নেতা ছিলাম তাদের ঘরোয়াভাবে ডেকে বললেন, অনিবার্য কারণবশত আজকের কর্মসূচি পালন করা যাবে না। ক্ষুব্ধ হয়ে যখন আমরা প্রশ্ন করলাম, কেন? কী সেই অনিবার্য কারণ? নেতারা একান্তে বললেন, দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন প্রস্তুত নয়। সেদিন বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের হাতে বটতলায় আমাদেরই পরম পূজনীয় নেতারা লাঞ্ছিত হলেন। পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হলো ১৪ ফেব্রুয়ারি। সেই ১৪ ফেব্রুয়ারিতে জীবন বাজি রেখে সামরিক স্বৈরাচারের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বটতলায় সমবেত হয়েছিল হাজার হাজার ছাত্র-জনতা। এ দেশের ছাত্র-জনতা শত বছরের আকাক্সক্ষা গণতান্ত্রিক অধিকার নিজেদের হাতে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য মূলত সেই ১৪ ফেব্রুয়ারি স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবসের কর্মসূচিতে শামিল হয়। অকুতোভয় ছাত্রসমাজ কার্জন হলের মুখে জান্তার পুলিশের ব্যারিকেডের সামনে পড়ে। কিন্তু জান্তার কী সাধ্য সেই দুর্বার আন্দোলন অপ্রতিরোধ্য মিছিলকে প্রতিহত করার! শুরু হয় টিয়ার গ্যাস, জলকামান, অবশেষে নির্বিচারে গুলি। লুটিয়ে পড়েন শত শত শহীদ যাদের লাশ গুম করা হয়েছিল পরে। এর প্রতিবাদে ১৫ ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপী হরতাল আহ্বান করা হয়। কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয়, বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গন সামরিক শাসককে মোকাবিলা করার জন্য তখনো তেমনভাবে প্রস্তুত ছিল না। তবু ছাত্র-জনতার আন্দোলন এগিয়ে যেতে থাকে মুক্তির আকাক্সক্ষায়। সে কারণেই আমরা ১৪ ফেব্রুয়ারি স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবস হিসেবে পালন করি।

এই কাক্সিক্ষত আন্দোলন অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে ১৯৯০ সালের ৪ ডিসেম্বর স্বৈরাচারী এরশাদের পতন ঘটিয়ে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের বিজয় সূচনা করে। ৬ ডিসেম্বর এরশাদ আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে বাধ্য হন। এখন প্রশ্ন হলো- মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে পরবর্তীতে নব্বইয়ের গণঅভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে আমরা যা অর্জন করতে চেয়েছিলাম তা পেয়েছি কিনা। আমার মূল্যায়ন হলো, আমরা তা পাইনি। গণতন্ত্র বারবার মুখ থুবড়ে পড়েছে, কখনো কখনো আমরা ভোটের অধিকার হারিয়েছি, আবার তা অর্জন করেছি। বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য উন্নতি করলেও অবনতির দিকটিও উল্লেখ করার মতো। দেশের সাম্প্রদায়িক রাজনীতির উত্থানের লক্ষ্যে কোনো কোনো মহল বেশ তৎপর। সরকারবিরোধী রাজনীতি দিশাহারা। সরকারের বিভিন্ন দায়িত্বশীল ব্যক্তির নানামুখী কথাবার্তা নানান প্রশ্নের উদ্রেক করে। রোহিঙ্গা সমস্যার সহসা সমাধানের কোনো লক্ষণ নেই। ভারতের এনআরসি ও সীমান্ত হত্যাকা- আমাদের ব্যথিত করছে। দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে। দেশের সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানসূমহ কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারছে বলে মনে হয় না। এ অবস্থায় ১৯৮২ থেক ৯০ সময় পর্যন্ত যারা আন্দোলনে সম্পৃক্ত হয়েছিলেন তাদের মধ্যে হতাশা কাজ করে- ‘এত আন্দোলন এত রক্তদান কি বিফলে গেল?’ সমাজকে এ জায়গা থেকে উত্তরণ ঘটাতে হলে দেশের গণতান্ত্রিক রাজনীতির পরিধিকে বিস্তৃত করতে হবে। মনে রাখতে হবে, গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের দুর্বলতা সমাজে মৌলবাদ, দুর্নীতি, লুটপাট, নৈতিক অবক্ষয়ের জন্ম দেয়। তাই স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবসে আমাদের সোচ্চার হতে হবে যে কোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে- আমরা সেই শপথ নিই। বীরেরা বারবার আসে, বারবার যুদ্ধে যায়, শহীদের রক্ত, আত্মদান কখনো বৃথা যায়নি। আজ অথবা কাল শহীদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবেই। ইতিহাস তা-ই সাক্ষ্য দেয়।
লেখক : স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম ছাত্রনেতা।
সৌজন্যে : বাংলাদেশ প্রতিবেদন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের ফেইসবুক পেইজ