আমাদের প্রাণ প্রিয় ভাবী শামীমা শাহরিয়ার….

প্রকাশিত: 11:54 PM, November 21, 2019

আমাদের প্রাণ প্রিয় ভাবী শামীমা শাহরিয়ার….

প্রিতিশ তালুকদার :: আমি তখন ক্লাস নাইনে পড়ি। ১৯৯৩ সালের বর্ষাকাল । আফালে আমাদের ঘরের অর্ধেক ভেঙ্গ নিয়ে যায়। ঘরে আমার অসুস্থ দাদা ,বাবা কাকারা তখন জীবিকার তাগিদে কোম্পনী গঞ্জ। আমি আমার দাদার কাছেই ঘুমাইতাম । দাদা প্রায়ই আমাকে বলতেন আমি যদি মারা যাই তাইলে আমাকে চিতায় পোড়াবে । আর বড় হয়ে একটা মুর্তিশীলা দিবি। আমি বললাম আচ্ছা । বর্ষাকালের এক রাতে আমার দাদা মারা যান । বাড়িতে পুরুষ মানুষ বলতে ক্লাস নাইনে পড়া আমি। আমার দাদার শেষ ইচ্ছা ছিল যেন উনাকে আগুনে পুড়িয়ে সৎকার করি। আফালে ভেঙ্গে যাওয়া ঘরের বাশঁ জমা করি চিতার জন্য। বাড়ীতে সৎকার করার মতো জায়গাও নাই। এক মাত্র ভরসা বাঘাই সরকারের পুতা। রাত তখন ১,00 ঘটিকা। অন্ধকার রাত আর মুশল ধারে বৃষ্টি ছিল। লাশ নিয়ে আমাদের গ্রামের শশ্মান ঘাটে যাই। কিন্ত বৃষ্টির জন্য কিছু করতে পারছিলাম না । সবাইকে দাদার শেষ ইচ্ছার কথা বলছিলাম কিন্তু কারো কিছু করার ছিলনা। কারাণ খোলা আকাশের নীচে বৈরী আবহাওয়ার দরুন সৎকার করা সম্ভব ছিলনা। শেষে বাধ্য হয়ে আমার দাদাকে মাটি চাপা দিয়ে চলে আসতে হয়েছে। সেদিন আমার দাদার শেষ ইচ্ছাটুকু পুরণ করতে পারি নাই শ্মশান ঘাটের ব্যবস্থাপনার অভাবে। আর এই জন্য আমার দাদা,তার দাদা,অন্যদের কত আত্মীয় স্বজনদের শেষ ইচ্ছাটুকূ একটা চুলা আরা টিন শেটের ঘরের অভাবে মাটি চাপা দিতে হইছে। স্বাধীনতার পর থেকে কত জনপ্রতিনিধি আসল গেলো কিন্তু শ্মশান ঘাটের বিষয়টি নিয়ে চিন্তাও করেন নাই। কোন একদিন কথা প্রসঙ্গে শাহরিয়ার স্যারকে বলছিলাম যে আমাদের গ্রামে শশ্সান ঘাটের সংস্কার করা দরকার তাতে সাধারন মানুষ উপকৃত হবে। সাথে সাথে স্যার বললেন হয়ে যাবে যা চিন্তা করিস না তোর ভাবীকে বলতেছি বিষয়টা। আমি বিষয়টি ভুলে গেছিলাম কিন্তু আজকে জানলাম আমাদের প্রাণ প্রিয় ভাবী শামীমা শাহরিয়ার আমাদের শশ্মান ঘাটের উন্নয়নের জন্য ৮ মেঃ টঃ বরাদ্দ দিলেন । কি যে খুশি লাগছিল ভাষায় প্রকাশ করতে পারবনা। আমার দাদার শেষ ইচ্ছা পুরণ করতে পারিনি এইটা আমাকে খুবই যন্ত্রনা দিতো। ঐ বরাদ্দ বাস্তবায়ন হলে অন্তত আমার দাদুর শেষ ইচ্ছার মতো আর কারো দাদুর শেষ ইচ্ছা মাটি চাপা দেওয়া লাগবেনা। সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রর্থনা করি স্যার আপনারা ভালো থাকুন । আপনারা ভালো থাকলে আমাদের স্বপ্নগুলো ধীরে ধীরে একদিন বাস্তবায়ন হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের ফেইসবুক পেইজ