আমিরাত-ইসরাইল সম্পর্কে সায় দিয়ে সমালোচিত হামজা ইউসুফ

প্রকাশিত: ১২:৫৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২২, ২০২০

আমিরাত-ইসরাইল সম্পর্কে সায় দিয়ে সমালোচিত হামজা ইউসুফ

অনলাইন ডেস্ক :

অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সম্পর্ক স্থাপনের সিদ্ধান্তে প্রকাশ্যে সমর্থন দিয়ে বিপুল সমালোচনার মুখে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মুসলিম পণ্ডিত হামজা ইউসুফ।

মুসলিম বিশ্বে যখন আমিরাতের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে নিন্দার ঝড় উঠেছে, তখন পশ্চিমা জগতের সবচেয়ে প্রভাবশালী মুসলিম পণ্ডিত হামজা ইউসুফ তাতে সমর্থন দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার ফোরাম ফর প্রমোটিং পিস ইন মিডল ইস্ট সোসাইটিজের (এফপিপিএমইএস) এক বিবৃতিতের মাধ্যমে এই সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণে সায় দেন তিনি।

এই সংগঠনটি ইউসুফের সৌদিভিত্তিক শিক্ষক আবদুল্লাহ বিন বাইয়াহর নেতৃত্বে পরিচালিত হচ্ছে। মিডল ইস্ট আইয়ের এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানা গেছে।

বিবৃতিতে আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল্লাহ বিন জায়েদের বিস্তর তারিফ করে বলা হয়েছে, এতে ফিলিস্তিনি ভূমিতে ইসরাইলি সার্বভৌমত্ব বাড়ানো বন্ধ হয়েছে। বিশ্বজুড়ে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রবর্তিত হয়েছে।

দখলদার ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের অজুহাত হিসেবে আমিরাত বলছে, এটিই ফিলিস্তিনি ভূমিতে ইসরাইলি সম্প্রসারণ বন্ধ ও দ্বিরাষ্ট্রীয় সমাধানের সবচেয়ে ভালো উপায়।

কিন্তু পশ্চিমতীরের বিভিন্ন অংশ দখল করে নিতে নিজের প্রতিশ্রুতিতে অটল রয়েছেন বলে বারবার জানিয়েছেন ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সমসাময়িক ইসলাম শিক্ষার প্রভাষক উসামা আল-আজমি বলেন, আমিরাত সরকারের সিদ্ধান্তকে বৈধতা দিতেই এই অদ্ভূত বিবৃতি দিয়েছে ওই ফোরাম।

২০১৭ সালের ৭ জুন প্রতিবেশী কাতারের বিরুদ্ধে সৌদি আরব ও আমিরাতের সর্বাত্মক অবরোধের ৪৮ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে বিবৃতি দিয়েছিল এফপিপিএমএস। এতে দোহা সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে সমর্থন করছে বলে খুবই জোরালো ভাষায় দোষারোপ করা হয়েছে।

এর আগেও ফিলিস্তিনিদের দুর্দশার জন্য তাদের দায়ী করে বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন হামজা ইউসুফ। এছাড়া সিরীয় বিদ্রোহ নিয়েও তিনি তামাশা করেন। ট্রাম্প প্রশাসনের মানবাধিকার বিষয়ক উপদেষ্টা হতে সম্মতি দিয়ে তিনি বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন।

তবে এসব নিয়ে জানতে চাইলে হামজা ইউসুফের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

পশ্চিমা বিশ্বে ইসলামের নতুন ঐতিহ্যবাদ নিয়ে গবেষণা করছেন ওয়ালা কুইসেই। তিনি বলেন, এফপিপিএমইএসের আন্তঃধর্মীয় উদ্যোগগুলো ট্রয়ের ঘোড়ার মতো। ইসরাইলি সংগঠন ও আরব আমিরাতের মধ্যে কৌশলগত জোট গঠনেই তারা কাজ করছে। যদি নিবিড়ভাবে তাদের পর্যালোচনা করেন, তবে দেখতে পাবেন, তারা ইসরাইলি ও ইহুদিবাদী সংগঠনগুলোর সঙ্গে গভীরভাবে সম্পর্কযুক্ত।

এই ফোরাম কিছু রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরতেই কাজ করছে বলে তিনি জানান।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ