আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে মুসলিম যুবকের কাছে হারতে পারেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী!

প্রকাশিত: ২:৪৮ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৮, ২০১৯

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে মুসলিম যুবকের কাছে হারতে পারেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাজ্যের আসন্ন নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেন এক মুসলিম যুবক। লেবার পার্টির হয়ে তার আসনে লড়াই করা ওই ব্যক্তির নাম আলি মিলানি। ২৫ বছর বয়সী আলি ইরানি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ। ধারণা করা হচ্ছে জনসনের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে তার। আলি নিজেই জনসনকে হারানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

ব্রেক্সিট ইস্যুতে নানা বিতর্কের পর আগামী ১২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্যে পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন। নিয়ম অনুযায়ী, প্রতি পাঁচ বছর পর নির্বাচনের কথা থাকলেও গত পাঁচ বছরের কম সময়ের মধ্যে এটি দেশটিতে তৃতীয় সাধারণ নির্বাচন। ধারণা করা হচ্ছে, নির্বাচনে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল কনজারভেটিভ পার্টি এবং প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির মধ্যে। দুই দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন যথাক্রমে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং অপেক্ষাকৃত বামপন্থী হিসেবে পরিচিত জেরেমি করবিন।

জনসন ও আলী নির্বাচনে দাঁড়াবেন আক্সব্রিজ থেকে। এক দশক ধরে আসনটিতে জনসনের দল ‘নিরাপদ’ নয়। ২০১৭ সালের নির্বাচনে জনসন ৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেন। বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আলী যদি ৫ শতাংশ ইলেকটোরেট নিজেদের দিকে আনতে পারেন, তাহলে জনসন বিপদে পড়ে যাবেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আক্সব্রিজে বরিস জনসন বাস করেন না। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মাঝে মাঝে হয়তো যান। আর এজন্যই সেখানে তার খুব বেশি জনপ্রিয়তা নেই। অন্যদিকে আলি মিলানি সেখঅনে খুবই জনপ্রিয়। ব্রুনেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রনেতা ছিলেন তিনি। তিনি ঘোষণা দিয়েছেন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে হারিয়ে ছাড়বেন।

মঙ্গলবার রাতে মিলানি অনেক বাড়িতে গিয়ে ভোট চেয়েছেন, বরিসকে হারানোর আহ্বান জানিয়েছেন।ব্রিটেনের ১০০ বছরের ইতিহাসে কোনো প্রধানমন্ত্রী আসনহীন থাকেননি। আলী বলছেন এবার তিনি ইতিহাস গড়তে চান, ‘এটা ঐতিহাসিক নির্বাচন। প্রথমবারের মতো আমরা কোনো প্রধানমন্ত্রীকে আসনহীন করে দিতে পারি। ঠিক এখানে বরিস জনসনকে ক্ষমতাহারা করার শক্তি আমাদের আছে।’

আলির জন্ম তেহরানে। পাঁচ বছর বয়সে লন্ডনে আসেন তিনি। তখন মা ছাড়া কেউ ছিলো না তার। আংশিক বৃত্তিতে পড়াশোনা করেছেন স্কুলে। অন্যদিকে বরিস জনসনের জন্ম নিউ ইয়র্কে। তার বাবা একজন কূটনীতিক ছিলেন। মা ছিলেন শিল্পী। তার পড়াশোনা অক্সফোর্ডে। রাজনীতিতে আসার আগে একজন জনপ্রিয় সাংবাদিক ছিলেন।

যুক্তরাজ্যের আইন অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য কোনও আসনে এমপি হওয়ার দরকার নেই। জনসন হাউস অব লর্ড থেকে সরকার চালঅতে পারেন। তবে বিগত ১০০ বছরে এই ঘটনা ঘটেনি।

(ওয়ান বাংলা )

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ