আসুন আমরা সবাই যার যা কিছু আছে তা নিয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাড়াই : পীর মিসবাহ এমপি

প্রকাশিত: ৮:৩১ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৩, ২০১৯

আসুন আমরা সবাই যার যা কিছু আছে তা নিয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাড়াই : পীর মিসবাহ এমপি

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্ বলেছেন, জেলার যেসব এলাকার মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমাদের সবার উচিত যার যা কিছু আছে তা নিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাড়ানো ।

শনিবার বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সুনামগঞ্জ জেলার সদর ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সাম্প্রতিক বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এ কথা বলেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও জেলা প্রশাসক, সুনামগঞ্জ এর রুটিন দায়িত্বরত জনাব মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে এসময় উপ-পরিচালক, স্থানীয় সরকার, সুনামগঞ্জ জনাব মোহাম্মদ এমরান হোসেন, সিভিল সার্জন ডা: আশুতোষ দাশ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোঃ হারুন অর রশীদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব হায়াতুন নবী, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, সুনামগঞ্জ এর নির্বাহী প্রকৌশলী পওর-১ জনাব মোঃ আবু বকর সিদ্দিক ভূইয়া, নির্বাহী প্রকৌশলী পওর-২ জনাব খুশি মোহন সরকার, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব সমীর বিশ্বাস, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর সুনামগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী জনাব মোঃ আবুল কাশেম, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব নুসরাত ফাতিমা, জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জনাব নিগার সুলতানা কেয়া, ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. আবুল হোসেন, সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যমকর্মীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা জানান, সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ইতোমধ্যে ২৪৮ মে.টন জিআর চাল, ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার জিআর ক্যাশ এবং ৩ হাজার ৭শত ৬৫ প্যাকেট শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়েছে। বন্যায় এ জেলায় মোট ২ লক্ষ ৬০ হাজার হেক্টর আবাদী জমি তলিয়ে গেছে; ১ লক্ষ ৪ হাজার লোকজন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যায় ১২৬৩ হেক্টর আউস এবং ১২৫ হেক্টর আমন বীজতলা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তাছাড়া ২ কোটি ৬২ লক্ষ ৩৪ হাজার ২ শত টাকার মৎস্য সম্পদ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বতর্মানে ৫০০ মে.টন জিআর চাল, ১০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার জিআর ক্যাশ এবং ৫ হাজার ২শত ৩৫ কাটুন/প্যাকেট শুকনা খাবার মজুদ রয়েছে। সভায় মাননীয় সংসদ সদস্য মহোদয় চলমান বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় স্থানীয় সংসদ সদস্য, জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ, সাধারণ জনগন সকলকে একযোগে সুষ্টু সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করার এবং ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে সকলকে একযোগে কাজ করার পরামর্শ প্রদান করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ