উন্মাদনার উৎসব বিশ-কুড়ির ক্রিকেটের

প্রকাশিত: ১১:২২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২১

উন্মাদনার উৎসব বিশ-কুড়ির ক্রিকেটের

পারভেজ আলম চৌধুরী

শুভ্র বসনে লাল বলের ক্রিকেটে তন্ময়তার দিন এখনো বহমান। ক্রিকেটের আদিরূপের মায়াবী মগ্নতা এখনো মন কাড়ে। তিন কাঠির খেলার রূপ-রস আস্বাদনের রোমাঞ্চ এখনো তুলনারহিত। প্রৌঢ়ত্বের প্রান্তে পৌঁছে যাওয়া, বার্ধক্যের বারান্দায় দাঁড়ানো, স্মৃতির রোদ পোহানো, বিশুদ্ধবাদী ব্যাকরণপ্রেমীরা এখনো বিভোর হন টেস্ট ক্রিকেটের সনাতনী সৌকর্যে। স্বমহিমান্বিত সৌন্দর্যে।

কিন্তু রূপান্তরের আবশ্যকতা অনস্বীকার্য। পৃথিবী বদলাচ্ছে অহর্নিশ। অবিরাম চলছে ভাঙা-গড়া। ক্রিকেটও রূপ বদলাচ্ছে। প্রায় ১৪৫ বছর আগে টেস্ট ক্রিকেটের উষালগ্ন ক্রীড়াপ্রেমীদের করেছিল বিস্ময়াভিভূত। বিমুগ্ধ নয়নে খেলাটির মৌন সৌন্দর্য, শাশ্বত গরিমা চাক্ষুষ করার অবর্ণনীয় আনন্দানুভূতি ঘর থেকে মানুষকে টেনে এনেছিল মাঠে।

টেস্ট ক্রিকেট যেন পাবলো পিকাসোর চিত্রকর্ম, লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির মোনালিসা।

রাগাশ্রয়ী ধ্রুপদি সংগীত শুনতে শুনতে, টিনের ছাদে বৃষ্টির নূপুর-নিক্কনের রিমঝিম মৌতাতও একসময় একঘেয়ে লাগে। এক বরষায় বৃষ্টিতে

ভিজে দুটি মন কাছে আসে। এক অলস অপরাহ্নে মেলবোর্নে সত্যি সত্যি বৃষ্টি এলো। ভাসিয়ে নিয়ে গেল টেস্টের রোমাঞ্চ। তখনই উন্মেষ ঘটে একদিবসী ক্রিকেটের। কথায় বলে, প্রয়োজন হলো আবিষ্কারের জননী।

বৃষ্টিতে ভিজে একশা দর্শকরা যাতে একেবারে খেলা-বঞ্চিত না হয়, ঈষৎ মনোরঞ্জন হয় তাদের, সেই চাওয়ায় তাৎক্ষণিক উদ্ভাবনে অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড মাঠে নেমে পড়ল টেস্ট ক্রিকেটের দুঃখ ভুলে সদ্য আবিষ্কৃত একদিবসী ক্রিকেটের রস আস্বাদনে। ইতিহাসের অভিষেক টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরেছিল ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ড। একদিনের ক্রিকেটেও সেই একই ফলাফল। কিন্তু সে আরেক গল্প। আরেকদিন না হয় হবে।

অস্ট্রেলীয় ধনকুবের ক্যারি প্যাকারের পাগলামোর জেরে রঙিন পোশাকের ক্রিকেটের আমদানি ব্যাট-বলের রোমাঞ্চ তুঙ্গস্পর্শী করে তোলে। পৃথিবী আছড়ে পড়ে নতুন ফরম্যাটে। উদ্ভিন্নযৌবনা রমণীর কুন্তল বন্যা তখন ববকাট হয়ে সংক্ষেপিত, সংকুচিত। অচিরেই বিশুদ্ধবাদীরা গেল গেল রব তুলে নৈশালোকের ক্রিকেটের নাম দিলেন ‘ক্যারি প্যাকারের সার্কাস’। ভাঁড়ামোয় ভরা। তাদের আপত্তি অগ্রাহ্য করে ঝাঁকে ঝাঁকে তাবৎ তারকা জড়ো হলেন সেই সার্কাসের তাঁবুতে। ক্রিকেট পেল নতুন সংস্করণ। ডাকনাম ওডিআই।

সনাতনপন্থিরা শঙ্কিত হলেন, টেস্ট ক্রিকেট বুঝি স্বকীয়তা হারাল। কিন্তু বহতা নদীর মতো ক্রিকেটের আদি সংস্করণের অন্তর্নিহিত সৌন্দর্য আজও সমানভাবে আকৃষ্ট করে ক্রিকেটপ্রেমীদের।

একদিবসী ক্রিকেটও একসময় পানসে মনে হয়। তখনই আবির্ভাব টি ২০-র। ক্রিকেটের নবরূপে নতুন প্রজন্মের দর্শকরা বিমোহিত, চমৎকৃত। বিশ-কুড়ির ক্রিকেটের নবউন্মাদনায় মাতল গোটা বিশ্ব। ফ্র্যাঞ্চাইজিরা টি ২০ টুর্নামেন্টের বদৌলতে পল্লবিত, পুষ্পিত করে তুললেন নববধূকে। পপকর্ন ও কোমল পানীয় হাতে চার-ছক্কার ফোয়ারায় ভিজে অনিশ্চয়তার অশ্বারোহী হয়ে ওঠার আনন্দই আলাদা। এখন আবার টি ১০-র হুজুগ শুরু হতে যাচ্ছে। আধুনিকতার অশ্ব ছুটতে ছুটতে ক্রমশ সংক্ষেপিত হতে থাকে। এখন আর কেউ বলে না-চিঠি দিও। খুদে বার্তার যুগ এখন। ক্রিকেটও এই ট্রেন্ড বা ধারায় সমর্পিত।
সুত্র : যুগান্তর

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ