কৃষকের পরম বন্ধু ছিলেন বঙ্গবন্ধু : এড. নাসির উদ্দিন খান

প্রকাশিত: ১১:৪৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০২১

কৃষকের পরম বন্ধু ছিলেন বঙ্গবন্ধু : এড. নাসির উদ্দিন খান

নিজস্ব প্রতিবেদক
সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মো: নাসির উদ্দিন খান বলেছেন,হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন জনগণ অন্তঃপ্রাণ। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যুদ্ধ-পরবর্তী দেশের উন্নয়ন করতে হলে এদেশের কৃষকের উন্নয়ন করতে হবে। দেশের প্রকৃত উন্নয়ন করতে হলে খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে হবে।

সে লক্ষ্যে জাতির পিতা কৃষকের উন্নয়নের জন্য নিয়েছিলেন এক যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত। তাদের সব বকেয়া খাজনা ও সুদ মওকুফ করে দিয়েছিলেন। ২৫ বিঘা পর্যন্ত জমির খাজনা ও সুদ চিরতরে মওকুফ করে দিয়েছিলেন, যা আজ অবধি বিদ্যমান। বঙ্গবন্ধু ছিলেন উদার মনের মানুষ। তিনি বুঝেছিলেন, কৃষি তথা কৃষকের উন্নয়ন করতে হলে দক্ষ কৃষি গ্রাজুয়েট তৈরি করতে হবে। সে কথা ভেবে ১৯৭৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সবুজ চত্বরে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে কৃষি গ্রাজুয়েটদের প্রথম শ্রেণির মর্যাদা প্রদান করেন, যার ফলস্বরূপ বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

কৃষিপ্রধান বাংলাদেশের উন্নয়নের মূল চালিকাশক্তি হল কৃষি। কৃষিতেই বাংলাদেশের সমৃদ্ধি ও মুক্তি নিহিত। কৃষির এই অমিত সম্ভাবনাকে ঘিরেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি সুখী ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখতেন। জাতির পিতার সূচিত পথ ধরে তারই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এ দেশের কৃষিকে একটি অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর থেকে গত চার দশকের বেশি সময় ধরে দেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। এই বিপুল জনগোষ্ঠীর খাদ্য চাহিদা পূরণে ধারাবাহিকভাবে কৃষি, কৃষক ও কৃষিবিদরা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছেন।

এডভোকেট মো: নাসির উদ্দিন খান আরোও বলেন, জাতির পিতার স্বপ্ন ধারণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার কৃষির আধুনিকায়ন ও যান্ত্রিকীকরণের জন্য ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে ২৯ হাজার ৯৮৩ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে, যা খাতওয়ারি বরাদ্দে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। কৃষি বাজেটের মধ্যে আধুনিক কৃষি যান্ত্রিকীকরণ বাবদই বরাদ্দ রয়েছে ৩ হাজার ১৯৮ কোটি টাকা। মহামারী করোনার আঘাতে বিশ্বব্যাপী কৃষির উৎপাদন বা উন্নয়নে ব্যাঘাত ঘটলেও প্রধানমন্ত্রীর সুপরিকল্পিত দিকনির্দেশনায় করোনার সময়েও আমাদের কৃষির উন্নয়ন অব্যাহত রয়েছে।

তিনি সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মুজিব জন্ম শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ১০ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার ৭ম দিনে সোমবার সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী কৃষকলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্ত্যবে এ কথা বলেন।

 

সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন,দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে কৃষি খাতের অবদান সবচেয়ে বেশি।কৃষিকে যথাযোগ্য গুরুত্ব দেওয়া ও এই খাতে সরকারের সঠিক নজরদারির ফলে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে পেরেছে।

মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন বলেন, কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে বর্তমান কাজ করে যাচ্ছে। কৃষি কাজে উদ্বৃত করার জন্য বিভিন্ন ধরণের সুযোগ সুবিধা বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করতে সরকার কাজ করচে।

সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ১০দিনব্যাপী আয়োজিত অনুষ্ঠান মালার আজ (২৩ মার্চ) ৭ম দিনে সিলেট জেলা ও মহানগর কৃষক লীগের নিবেদনে আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়।

সিলেট জেলা কৃষক লীগের সভাপতি শাহ নিজাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাসুক উদ্দিন আহমদ, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মো: নাসির উদ্দিন খান, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোঃ জাকির হোসেন, সিলেট মহানগর কৃষক লীগের সভাপতি, কানাইঘাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মোমিন চৌধুরী, বাংলাদেশ কৃষক লীগের সহ অর্থ বিষয়ক সম্পাদক রেজাউল হক রাসেল, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এডভোকেট মোহাম্মদ আব্বাছ উদ্দিন, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক সেলিম আহমদ সেলিম, সিলেট জেলা কৃষক লীগের সহ সভাপতি হাজী তেরাব আলী, মহানগর কৃষক লীগের সহ সভাপতি হোসেন আহমদ, সহ সভাপতি ডা: বিজিত পাল, সহ সভাপতি নজরুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক শমসের সিরাজ সোহেল। এছাড়াও আরো বক্তব্য রাখেন জেলা কৃষক লীগের যুগ্ম সম্পাদক জায়েদ আলী, মহানগর কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরাউল কয়েস লোদী।

সভায় উপস্থিত ছিলেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিধান কুমার সাহা, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রনজিত সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এডভোকেট খোকন কুমার দত্ত, মহানগর আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমরায় বিষয়ক তপন মিত্র, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিক, জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক বুরহান উদ্দিন আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক শামসুল আলম সেলিম, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত, জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা: মোহাম্মদ সাকির আহমদ শাহিন, জেলা আওয়ামী লীগের উপ দফতর সম্পাদক মো: মজির উদ্দিন, মহনগর আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক সোয়েব আহমদ।

অনুষ্ঠান শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
     12
17181920212223
24252627282930
31      
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ