গাধাচালক থেকে সুলতান

প্রকাশিত: ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৯, ২০২২

গাধাচালক থেকে সুলতান

অনলাইন ডেস্ক :: ইওজ খলজি ১২১২ থেকে ১২২৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বাংলার মুসলিম রাজ্য লখনৌতির সুলতান ছিলেন। তিনি ছিলেন উত্তর আফগানিস্তানের গরমশির-এর এক নগণ্য বাসিন্দা। প্রথম জীবনে তিনি মালবাহী গাধার চালক হিসেবে দূরবর্তী স্থানে মালামাল পৌঁছে দিতেন। এমনি এক সফরে তিনি কয়েকজন দরবেশকে খাদ্য ও পানি দিয়ে তুষ্ট করেন এবং তাঁরা আশীর্বাদ করে তাঁকে ভারতবর্ষে যেতে নির্দেশ দেন। পথিমধ্যে বখতিয়ার খলজির সঙ্গে তাঁর সাক্ষাৎ ঘটে এবং তাঁরা ১১৯৫ খ্রিস্টাব্দে ভারতে পৌঁছেন। বখতিয়ারের সহকারী হিসেবে তিনি উদন্তপুর বিহার জয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। বিহারে তাঁর বীরত্বপূর্ণ অবদান বখতিয়ারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। লখনৌতি (বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের মালদা) বিজয়ের পর ইওজের বীরত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ বখতিয়ার তাঁকে দেবকোটের দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত কাঙ্গোরির জায়গির প্রদান করেন। বখতিয়ারের মৃত্যুতে তাঁর অধস্তন প্রতিনিধিদের মধ্যে অন্তর্দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। এমনি এক সংকটময় মুহূর্তে সুলতান কুতুবউদ্দীন আইবকের নির্দেশে অযোধ্যার গভর্নর কায়েমাজ রুমী বাংলা আক্রমণ করেন। রাজনীতিতে জ্ঞানসম্পন্ন ইওজ সম্রাটের বাহিনীকে স্বাগত জানান। রুমী সফলতার সঙ্গে বাংলা অধিকার করে ইওজকে দিল্লির অধীন সামন্ত নিযুক্ত করে অযোধ্যায় প্রত্যাবর্তন করেন। আলী মর্দান খলজি ১২১০ খ্রিস্টাব্দে দিল্লির সালতানাতের অধীন বাংলার শাসনকর্তা হিসেবে পুনরায় দায়িত্ব পালনের পূর্ব পর্যন্ত ইওজ এ পদে আসীন ছিলেন। তাঁর আগমনের পর ইওজ প্রদেশের শাসনভার তাঁর নিকট ন্যস্ত করে স্বীয় কর্মস্থলে প্রত্যাবর্তন করেন। অল্প দিনের মধ্যেই আলী মর্দানের কঠোর নীতির ফলে রাজ্যে তাঁর বিরুদ্ধে অসন্তোষ দেখা দেয়। এ পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে ইওজ অসন্তুষ্ট খলজি অমাত্যদের সংগঠিত করে আলী মর্দানকে হত্যা করেন এবং ১২১২ খ্রিস্টাব্দে সুলতান গিয়াসউদ্দীন ইওজ খলজি উপাধি ধারণ করে বাংলার সিংহাসনে আরোহণ করেন। অতি অল্পকালের মধ্যেই ইওজ খলজি লখনৌতিতে তাঁর ক্ষমতা সুদৃঢ় করেন। আলী মর্দান কর্তৃক নির্বাসিত প্রভাবশালী খলজি অমাত্যদের ইওজ খলজি ডেকে পাঠান, তাদের ক্ষতিপূরণ প্রদান করেন এবং তুর্কি সৈন্যদের নিজের পক্ষে নিতে সক্ষম হন। তাঁর গৃহীত প্রাথমিক পদক্ষেপগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিল দেবকোট হতে লখনৌতিতে (গৌড়) রাজধানী পুনঃ স্থানান্তরিত করে এখানে সম্পূর্ণ নতুন একটি নগরের পত্তন ঘটানো। সেসময় নগরটির পশ্চিম পাশ দিয়ে নদী প্রবাহিত ছিল। ইওজ রাজধানীর অপর তিনদিকে মাটির কেল্লা নির্মাণপূর্বক প্রতিরক্ষার ব্যবস্থা করেন। একই উদ্দেশ্যে রাজধানীর সন্নিকটে বসনকোটে দুর্গ নির্মাণ করেন।

সুদীপ্ত সুজন

সূত্র : বিডি প্রতিদিন

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
   1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ