চুরির ভয়ে আতঙ্কিত এলাকাবাসী! চুরের সরদার সাহাব উদ্দিনকে গ্রেফতারের দাবি

প্রকাশিত: ৬:২৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০২০

চুরির ভয়ে আতঙ্কিত এলাকাবাসী! চুরের সরদার সাহাব উদ্দিনকে গ্রেফতারের দাবি

 

নিজস্ব প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার ৫নং ফতেহপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড বালিপাড়া গ্রামে বেশ কয়েকদিন যাবৎ দেখা যাচ্ছে চুরির ভয়ে আতঙ্কিত এলাকাবাসী।

ঘটনা সুত্রে জানা যায়, গত ১৫/১০/২০২০ইং রোজ বৃহস্পতিবার রাত অনুমান ৩ ঘটিকায় বালিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আরব আলীর বাড়িতে ঘরের দরজার তালা ভেঙ্গে ৩টি নকেয়া মোবাইল ফোন ১টি সিম্ফনি মোবাইল ফোন ১টি ব্লাক বেড়ি মোবাইল ফোন মোট ৫ (পাঁচ)টি মোবাইল ফোন যাহার মুল ১৫,০০০(পনের হাজার) টাকা নগদ ৪,০০,০০০ (চার লক্ষ) টাকাসহ ২(দুই) ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার মূল্য অনুমান ১,৪৮,০০০(এক লক্ষ আটচল্লিশ হাজার) টাকা চুরি হয়।

আরব আলীর ছেলে হুমায়ুন আহমেদ ১৫/১০/২০২০ইং বৃহস্পতিবার সকাল ১০ ঘটিকায় জৈন্তাপুর মডেল থানা বরাবর একটি অজ্ঞাত নামা চুরির অভিযোগ করেন।

পরেরদিন ১৬/১০/২০ইং শুক্রবার রাত অনুমান ৪ ঘঠিকায় আবারো পাশের বাড়ি ও একটি দোকান চুরির চেষ্টায় ৪নং দরবস্ত ইউনিয়ন দরবস্ত (উত্তর মহল্লা) গ্রামের মৃত মুজাম্মিল আলীর ছেলে হাবিবুর রহমান(৩২)কে আটক করে গ্রামবাসী তার সাথের আরো ২জন চুর পালিয়ে যায় ।

আটককৃত হাবিবুর রহমান কে ইউপি সদস্য আব্দুল মতিন জিজ্ঞেসাবাদ করলে হাবিবুর রহমান বলেন, আমি লামা শ্যামপুর গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে সুহেল আহমেদ(২৫) ও বালিপাড়া (কুমারচটি) গ্রামের মৃত আহমেদ আলীর ছেলে সাহাব উদ্দিন উরফে মারা সাহাব উদ্দিন(৩৫) এদের নেতৃত্বে এই এলকায় চুরি করি। আমার সাথে আরোও রয়েছে হেমু পশ্চিম পাড়া গ্রামের লোকমান আহমেদ(২৫), হেমু ভাটপাড়া গ্রামের আব্দুল মনাফের ছেলে সাদেক আহমেদ(৩৩)। আমরা গতকাল বৃহস্পতিবার বালিপাড়া গ্রামের আরব আলীর বাড়ি থেকে নগদ বেশ কিছু টাকা ও ৫টি মোবাইল ফোন, ২ভরি ওজনের স্বর্ণালংকর চুরি করি। আরোও আরব আলীর প্রতিবেশী ফারুক আহমেদের বাড়ি থেকে কিছু টাকাও ২বা দের ভরির মতো স্বর্ণালংকার চুরি করে সুহেলের কাছে জমা রাখি আমরা আসকে রাতে চুরি করে সবগুলো একত্রিত করে ভাগাভাগি করে ৫জনে নিয়ে নেবো আজ।

ইউপি সদস্য আব্দুল মতিন এবিষয়ে হাবিবুর রহমানের মুখে শীকারুক্তি পেয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানার এসআই আতিকুর রহমান রাসেল কে অবগতি করেন।

আরব আলীর ছেলে হুমায়ুন আহমেদ বাদী হয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করে উক্ত আটককৃত চুর হাবিবুর রহমান কে জৈন্তাপুর মডেল থানার এসআই আতিকুর রহমান রাসেলের হাতে তুলে দেন। আটককৃত চুর হাবিবুর রহমানের শিকারুক্তি পেয়ে এসআই আতিকুর রহমান রাসেল সুহেল আহমেদকে ও গ্রেফতার করেন ।

চুরের সরদার সাহাব উদ্দিন উরফে মারা সাহাব উদ্দিন কে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব গ্রেফতার করার দাবি ও এসকল চুররের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেন এলাকাবাসী।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ