ছাতকে সাংবাদিককে হুমকি, অনুসারীদের দিয়ে কর্মসূচি

প্রকাশিত: ১০:৪০ অপরাহ্ণ, জুন ১৫, ২০২১

ছাতকে সাংবাদিককে হুমকি, অনুসারীদের দিয়ে কর্মসূচি

সুনাগঞ্জ প্রতিনিধি::
ছাতক উপজেলার কৈতক ২০শয্যা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকের দুর্নীতি, অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা ও লুটপাটের সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি প্রদানের পর এবার অনুসারীদের মাধ্যমে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করিয়েছেন বিতর্কিত চিকিৎসক ডা. মোজাহারুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) বিকেল সাড়ে ৪টায় জাউয়াবাজারে ডাক্তারের ক’জন অনুসারীকে দিয়ে মানববন্ধন করান তিনি। তবে বিতর্কিত এই কর্মসূচি পালনের আগে স্থানীয় সচেতন সমাজ এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে এসব কার্যক্রম থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানিয়েছিলেন। জানা গেছে, গত ৭ জুন জাতীয় দৈনিক সংবাদের ছাতক উপজেলা প্রতিনিধি তমাল পোদ্দারের সংবাদের জের ধরে নিজের ফেসবুক আইডি থেকে তমাল পোদ্দারকে হুমকি-ধামকি দেন ডাঃ মোজাহারুল ইসলাম এবং তার কতিপয় অনুসারীদের দিয়ে ফেইসবুকে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরণের কটুক্তি সহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করিয়েছেন।

এ ঘটনায় ৭ জুন ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন সাংবাদিক তমাল পোদ্দার। এর আগে তার দুর্নীতি ও অনিয়মের সংবাদ প্রকাশ করায় ফজলুল হক নোমান নামের আরেক সাংবাদিককেও হুমকি-ধামকি দিয়েছিলেন তিনি। ওই ঘটনায়ও থানায় জিডি করেছিলেন সাংবাদিক। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে ছাতক উপজেলার সাংবাদিকসহ সাংবাদিক সমাজকে নিয়ে কটুক্তি করে ফেসবুকে নিজের আইডিতেই লেখালেখি করেছেন ডাঃ মোজাহারুল ইসলাম। গত এক দশক ধরে হাসপাতালের দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা একক প্রভাবশালী এই চিকিৎসকের নানা অনিয়মে জড়িত থাকার সংবাদ প্রকাশ করে সাংবাদিকরা হুমকি-ধামকির শিকার হচ্ছেন।

ডাক্তারের দূর্নীতির সংবাদ দৈনিক কালের কন্ঠ, দৈনিক সংবাদ সহ জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকা এবং অর্ধ-শতাধিক অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। সাংবাদিকদের হুমকি-ধামকি ও তাদের বিরুদ্ধে ফেইসবুকে লেখালেখির মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় জাউয়া বাজারে চিকিৎসকের সুবিধাভোগী একটি মহল সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করে।

তারা চিকিৎসক মোজাহারুল ইসলামের গুণকীর্ত্তন অতীতে ফেইসবুকে যেভাবে করেছে মানববন্ধনেও তাই করেছে। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সচেতন মানুষজন। তারা এমন বিতর্কিত কর্মসূচির আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মন্তব্য করে এ ধরনের কর্মসূচি থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছিলেন। কিন্তু ডা. মোজাহারুল ইসলাম তার লোকদের দিয়ে মানববন্ধন করিয়ে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে বিষোদগার করিয়েছেন।

সোমবার রাতে মানববন্ধনকারীদের সাথে গোপন সভা করেছেন তিনি। এসময় তাদেরকে মানববন্ধনের ব্যানার বুঝিয়ে দেন তিনি। মানববন্ধনে অংশ নেয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দু’জন জানান, কিসের মানববন্ধন জানিনা। টাকা দেয়া হয়েছে এজন্য ওখানে উপস্থিত হয়ে ফটো তুলার পর চলে এসেছি। কৈতক গ্রামের ঈমান উদ্দিন, কানু ভৌমিক, আব্দুর রফিক, রাউলি গ্রামের ছানাওর আলী, ফয়জুল ইসলাম, দৌলতপুত গ্রামের নূরুজ্জামান ও স্থানীয় গণ্যমান্য, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য সহ বেশ কিছু লোকজন জানান, ডাঃ মোজাহারুল ইসলাম কৈতক হাসপাতালে যোগদানের পর থেকেই হাসপাতালের সুনাম দিনে-দিনে ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। জাতুয়া গ্রামের এক রোগীর ডান হাত ভেঙ্গে গেলে অজ্ঞান অবস্থায় ওই রোগীর বাম হাতে তিনি ব্যান্ডেজ করে দেন। বিষয়টি জানাজানি হলে পরদিন ওই রোগীকে ডেকে এনে তার হাতের ব্যান্ডেজ খুলে দেন। ডাঃ মোজাহারুল ইসলামের ভুল চিকিৎসায় মনবেগ গ্রামের আমিন উদ্দিনের পুত্র সিহাব উদ্দিন (১২) শিশুবয়সে পঙ্গুত্ব বরণ করেছে। তার এরূপ অপচিকিৎসার শিকার হয়েছেন অনেকে। ওই ডাক্তারের একক আধিপত্যের কারণে এ হাসপাতালে কোনো শৃঙ্খলা নেই। হাসপাতালের সুনাম ক্ষুণ্ণ করে নিজের অবস্থান টিকিয়ে রাখতে তিনি যা যা করতে হয় তাই করে যাচ্ছেন। যারা ডাক্তারের গুণগান করে ফেইসবুকে সাংবাদিকদের গালিগালাজ ও মানববন্ধন করছে তারা রোগী নয়, ডাক্তারের সুবিধাভোগী অনুসারী।

এ ডাক্তারের অপসারণের দাবিতে হাসপাতালের নার্স, স্টাফরাও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন। স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন দপ্তরে ওই ডাক্তারের বিরুদ্ধে রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। জাহানারা বেগম, আছমা খাতুন, সাফিয়া বেগম সহ একাধিক মহিলা রোগী জানান, হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য গেলে ডাঃ মোজাহারুল ইসলাম ছবি তুলে ফেইসবুকে রোগীর ছবি আপলোড করেন। এতে তাদের বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ