ঝুঁকিপূর্ণ ভবন নির্ণয়ে একসাথে কাজ করবে শাবিপ্রবি ও সিসিক

প্রকাশিত: ৪:১০ অপরাহ্ণ, জুন ১০, ২০২১

ঝুঁকিপূর্ণ ভবন নির্ণয়ে একসাথে কাজ করবে শাবিপ্রবি ও সিসিক

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেট নগরীতে ভূমিকম্পের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ ভবন নির্ণয়ে একসাথে কাজ করবে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) এবং সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ (সিইই) ও পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষকরা এই কাজ করবেন। ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোকে খুঁজে বের করে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করে এসব ভবন কতটুকু ঝুঁকিপূর্ণ- এ নিয়ে সিসিককে পরামর্শ দেবে শাবি।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সকালে ও বিকেলে পৃথক দুটি তদন্ত দল ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেটগুলো পরিদর্শন করেন। তাদের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মার্কেট খোলা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সিসিক। এর আগে বুধবার বিকেলে উপাচার্যের কনফারেন্স কক্ষে সিসিকের সঙ্গে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান। তিনি জানান, বিশেষজ্ঞ টিমের একটি দল বৃহস্পতিবার সকালে ও বিকেলে ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেট পরিদর্শন করেন। তাদের দেয়া প্রতিবেদন পাওয়ার পর সিদ্ধান্ত নেবে সিসিক। শাবির বিশেষজ্ঞ টিম পরিদর্শনের পর তাদের নির্দেশনা পেলে খুলে দেয়া হবে ঝূঁকিপূর্ণ হিসেবে বন্ধ থাকা মার্কেট বা ভবন।

জানা যায়, গত ২৯ মে কয়েকদফা ভূমিকম্প পরবর্তী সম্ভাব্য ঝুঁকি এড়াতে নগরের ৬ টি মার্কেট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গত সোমবার (৩১ মে) সকাল থেকে বুধবার ( ৯ জুন) পর্যন্ত এ সকল মার্কেট বন্ধ ঘোষণা করা হয়। মার্কেটগুলো হলো- সিলেট নগরীর মিতালি ম্যানশন, সিটি সুপার মার্কেট, মধুবন সুপার মার্কেট, রাজা ম্যানশন, সমবায় ভবন ও সুরমা মার্কেট। এই ৬টি ভবন (মার্কেট) আগে থেকেই ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকায় ছিল বলে জানিয়েছে সিটি কর্পোরেশন। এছাড়া অতিঝুঁকিতে থাকা জিন্দাবাজারের একটি দোকান স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি নগরীর পনিটুলা এলাকায় সামান্য হেলে থাকা ভবনের বাসিন্দাদেরও ১০ দিনের জন্য অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ