দেশে প্রথমবারের মতো পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করলেন প্রাথমিক শিক্ষক দম্পতি

প্রকাশিত: ৩:৪২ অপরাহ্ণ, জুন ১০, ২০২১

দেশে প্রথমবারের মতো পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করলেন প্রাথমিক শিক্ষক দম্পতি

স্বপন দেব, নিজস্ব প্রতিবেদক :: জ্ঞান অর্জনের অন্বেষায় বিভোর প্রাথমিক শিক্ষক দম্পতি অর্জন করেছেন পিএইচডি ডিগ্রি।

বাংলাদেশের প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগে প্রধান শিক্ষক থাকাবস্থায় পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন এটাই প্রথম বলে জানা গেছে। তারা হলেন ড. আব্দুল কাইয়ুম ও অন্যজন হলেন ড. হাছনা বেগম। প্রতিবেদককে এই শিক্ষক দম্পতি জানান, পড়াশোনা করার প্রবল ইচ্ছে থেকেই এই ডিগ্রি নেয়ার চিন্তা তাদের মাথায় আসে।

প্রাথমিক শিক্ষায় কুলাউড়া উপজেলা ইতিমধ্যে অনুকরণীয় সাফল্য দেখিয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে ‘আমার স্বপ্ন, আমার স্কুল’ কিংবা ‘রঙিন স্কুল’ এ সাঁজানোর প্রক্রিয়া কুলাউড়া থেকে শুরু হয়েছিলো। যা সারাদেশে প্রশংসা কুঁড়িয়েছে। সম্প্রতি এই শিক্ষক দম্পতির পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনে কুলাউড়াসহ দেশ বিদেশের অনেকেই তাদের সাধুবাদ জানাচ্ছেন।

আমেরিকা ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি ক্যালিফোর্নিয়ার অধিনে বাংলাদেশস্থ শাখা থেকে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের পিএইচডি শিক্ষার্থী হিসেবে উনারা পৃথক বিষয়ের উপর পড়াশোনা করে এই ডিগ্রি অর্জন করেন। আমেরিকা ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি ক্যালিফোর্নিয়ার ভাইস চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ শাখার চেয়ারম্যান ড. সেলিম ভূঁইয়া’র তত্ত্বাবধানে থেকে তারা এই কীর্তি অর্জন করেন।

ড. আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরীর পিএইচডির বিষয় ছিল A Study on the way of Getting Almighty Allah by Mohammadi Islam অর্থাৎ ‘মহানবী (সা.) দেখানো পথে আল্লাহ তায়ালাকে খুঁজে পাওয়া’ এবং ড. হাছনা বেগমের পিএইচডির বিষয় ছিল A Study on Dropouts of Primary School Students in Bangladesh অর্থাৎ ‘প্রাথমিক শিক্ষার্থী ঝরে পড়া রোধ’ এর উপর।

ড. মো. আব্দুল কাইয়ুম কুলাউড়া বিএইচ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ড. হাছনা বেগম কুলাউড়া গ্রাম মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ড. আব্দুল কাইয়ুম দীর্ঘ ৩২ বছর ও উনার স্ত্রী ড. হাছনা বেগম দীর্ঘ ৩১ বছর থেকে শিক্ষকতা পেশায় রয়েছেন।

ড. আব্দুল কাইয়ুম বলেন, ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে দুই বছর মেয়াদী পিএইচডি ডিগ্রি কোর্সে আমেরিকা ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি ঢাকা শাখায় আমরা স্বামী-স্ত্রী ভর্তি হই। প্রত্যেক শুক্রবারে বিকাল ৪টা থেকে ৬টা পর্যন্ত ক্লাস চলতো। ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে কোর্সটি সম্পন্ন হয়। চলতি বছরের মার্চ মাসে পরীক্ষার ফলাফল হয়। ফলাফলে আমরা স্বামী-স্ত্রী দু’জনই পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছি বলে কর্তৃপক্ষ আমাদের জানায়। গত সপ্তাহে সনদপত্র আমাদের হাতে এসে পৌঁছায়।

ড. হাছনা বেগম বলেন, ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার প্রতি আমার আগ্রহ ছিলো। মাস্টার্স এর ডাবল ডিগ্রি অর্জনের পর এল.এল.বি কোর্স করেছি। স্বামীর অনুপ্রেরণায় পিএইচডি ডিগ্রির জন্য ভর্তি হই। প্রাথমিক শিক্ষাক্ষেত্রে অনেক শিক্ষার্থী অকালে ঝরে পড়ে। এই বিষয়টি নিয়ে আমার আলাদা আগ্রহ ছিলো। তাই এই বিষয়ের উপর পিএইচডি অর্জন করেছি। আশা করছি আমার এই জ্ঞানার্জনে সমাজ ও দেশের জন্য কিছু করে যেতে পারবো।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার ইফতেখায়ের হোসেন ভূঁইয়া বলেন, যতটুকু ধারণা করছি প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগে প্রথমবারের মতো এই শিক্ষক দম্পতি পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন। কুলাউড়ার জন্য তো বটেই দেশের সকল প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য বিষয়টি অনুকরণীয়। আশা করছি তাদের এই অর্জন বাংলাদেশের প্রাথমিক শিক্ষা পরিবারকে অনুপ্রাণিত করবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ