দোয়ারাবাজারে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু, এলাকায় তোলপাড় !

প্রকাশিত: ৬:২১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০২০

দোয়ারাবাজারে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু, এলাকায় তোলপাড় !

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি :: দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের কলোনী গ্রামে রহস্যজনকভাবে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে।

নিহত গৃহবধূ হোসনে আরা বেগম (১৯) সে উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের কলোনী গ্রামের সজল মিয়ার স্ত্রী।নিহতের পরিবার দাবি করেছে, তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। মৃত গৃহবধূর স্বামীর পরিবার বলছে, সে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে।

ঘটনা সুত্রে জানা যায়, দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের কলোনী গ্রামের রুস্তম আলীর কন্যা মাদ্রাসা ছাত্রী হোসনে আরা বেগম। তিনি বিয়ে করেছিলেন স্থানীয় কলোনী গ্রামের শহিদ মিয়ার পুত্র সজল মিয়াকে। এর আগে গত ২০১৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর রাত অনুমান ৯ ঘটিকায় সজল মিয়া হোসনে আরা বেগমকে ঝাপটা দিয়ে ধরে টানা হেছড়া করে অপহরণ করিয়া জৈনক রমজান আলীর বসত বাড়ীর পিছনে আম কাঠালের বাগানে নিয়ে হোসনে আরা বেগমের পরিধেয় ওড়না দ্বারা তাহার মুখ বেধে তাকে ধর্ষণ করে।

গত ২০১৭ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর হোসনে আরা বেগমকে ধর্ষণের অভিযোগে তাঁর বড় ভাই লিটন মিয়া মামলা করেন, নারী ও শিশু পিটিশন মামলা নং -২৭১/২০১৭ইং(দোয়ারাবাজার)তারিখ ১৪/০৯/২০১৭ইং ধারা: নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০(সংশোধিত)/২০০৩)এর ৭/৯(১)পরে ধর্ষণ মামলা থেকে বাচতে হোসনে আরা বেগমকে বিয়ে করতে রাজি হন সজল মিয়া।

গত ২০১৭ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর নোটারী পাবলিক সুনামগঞ্জ বিবাহের অঙ্গীকারের এফিডেভিট করেন কিন্ত বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দিতে গড়িমসি শুরু করেন সজল মিয়া পরে ধর্ষণ মামলায় জেলে যান সজল মিয়া।কারাগারে থাকা অবস্থায় হোসনে আরা বেগমকে বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে ঘরে তুলতে রাজি হলে ২০১৮ সালের ১৯ নভেম্বর দুই লক্ষ টাকা মোহরানা ধার্য করে কাবিননামা(নিকাহনামা)রেজিষ্টারের মাধ্যমে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে বিয়ে করে ঘরে তুলে নেন সজল মিয়া কিন্তু বিয়ে মেনে নেয়নি সজলের পিতা শহিদ মিয়াসহ তার পরিবার, বিয়ের পর থেকেই তার উপর চলে অত্যাচার নির্যাতন,গত রবিবার(১৯ জানুয়ারী) নিহত হোসনে আরা বেগমের নানী মৃত্যু বরন করায় তার নানীকে একনজর দেখতে যাওয়ায় হোসনে আরা বেগম তার নানীকে দেখতে যাওয়ায় সজলের পরিবারের লোকজন তাকে গালাগালী করতে থাকে এই অবস্থায় হোসনে আরার পিতা রুস্তম আলী তাকে তার স্বামী সজল মিয়ার বাড়ীতে নিয়ে আসেন তার সামনেই হসনে আরা বেগমকে অত্যাচার শুরু করেন মৃত্ হোসনে আরা বেগমের পরিবারের অভিযোগ সোমবার(২০ জানুয়ারী) নির্যাতন করে মুখে বিষ ঢেলে হোসনে আরা বেগমকে হত্যা করেছেন স্বামীর সহযোগিতায় পরিবারের লোকজন।তার মৃত্যু হলে তাকে সিলেট হাসপাতালে নেওয়া হয় ,হোসনে আরা তিন মাসের গর্ভবতী ছিলেন অন্যদিকে সজলের পরিবার দাবী করছে সে সোমবার(২০ জানুয়ারী) সকালে বিষ পান করার পর দুপুরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে নেওয়ার পর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার হোসনে আরা বেগমকে মৃত ঘোষনা করেন।

দোয়ারাবাজার থানার এসআই (দায়িত্বপ্রাপ্ত ওসি) সজিব দত্ত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে প্রতিবেদককে মুঠো ফোনে বলেন বিষপানের বিষয়টি আমি জেনেছি গৃহবধু বিষপানের পরে তাকে সিলেট ওসমানি হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে মৃত্যু রাস্থায় নাকি হাসপাতালে হয়েছে তা জানানেই তবে কোন অভিযোগ পাইনি অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ খবর

আমাদের ফেইসবুক পেইজ