ধোনির মেয়েকে ধর্ষণের হুমকি দেয়া কিশোর শনাক্ত ,নাবালক হওয়ায় গ্রেফতার করা হয়নি

প্রকাশিত: ১২:০৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০২০

ধোনির মেয়েকে ধর্ষণের হুমকি দেয়া কিশোর শনাক্ত ,নাবালক হওয়ায় গ্রেফতার করা হয়নি

অনলাইন ডেস্ক

ভারতের ক্রিকেট তারকা মহেন্দ্র সিংহ ধোনির শিশুকন্যাকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ধর্ষণের হুমকি দেয়া কিশোরকে চিহ্নিত করেছে পুলিশ।

রোববার গুজরাটের মুন্দ্রা এলাকার দ্বাদশ শ্রেণির এক ছাত্রকে ওই হুমকিদাতা হিসেবে শনাক্ত করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত নাবালক হওয়ায় তাকে গ্রেফতার বা আটক করা হয়নি। আনন্দবাজার পত্রিকা ও এনডিটিভির।

আইপিএলে পর পর খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য ধোনির মেয়ে জিভাকে ধর্ষণের হুমকি দিয়ে ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছিল বলে স্বীকার করেছে অভিযুক্ত কিশোর।

তাকে রাঁচি পুলিশের তদন্তকারী কর্মকর্তাদের হাতে তাকে তুলে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন গুজরাটের কছ (পশ্চিম) জেলার পুলিশ সুপার।

এবারের আইপিএলে মোটেই ভালো সময় যাচ্ছে না চেন্নাই সুপার কিংস অধিনায়কের। বুধবার কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে ম্যাচেও ছিল তার পুনরাবৃত্তি। ওই ম্যাচে ধোনি ১২ বলে করেন ১১ রান।

কেকেআরের বিপক্ষে ১৬৮ রান তাড়া করতে নেমে তার দল হারে মাত্র ১০ রানে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ধোনির ফরম নিয়ে চর্চা চলছিলই। কেকেআর-সিএসকে ম্যাচের পর আরও বাড়ে আক্রমণ-কটাক্ষ। তার মধ্যেই একটি ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে ধোনির মেয়ে পাঁচ বছরের জিভাকে ধর্ষণের হুমকি দেয়া হয় বৃহস্পতিবার। ধোনি বা তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ দায়ের না হলেও স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে তদন্ত শুরু করে রাঁচি পুলিশ।

তদন্তে নেমে রাঁচি পুলিশ মোটামুটি নিশ্চিত হয়, গুজরাটের মুন্দ্রা গ্রামের ওই কিশোরের অ্যাকাউন্ট থেকেই হুমকি দিয়ে ওই পোস্টটি করা হয়েছিল। কছ (পশ্চিম) জেলার পুলিশকে তথ্য পাঠায় রাঁচি পুলিশ।

কছের (পশ্চিম) পুলিশ সুপার সৌরভ সিংহ বলেন, ঘটনার তদন্ত করছে রাঁচি পুলিশ। সেখানকার তদন্তকারীরা রোববার আমাদের জানান, ওই পোস্টটি করেছে কছের মুন্দ্রা গ্রামের এক কিশোর।

রোববারই আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসি। সিএসকে-কেকেআর ম্যাচের পর ইনস্টাগ্রামে ধোনির মেয়েকে ধর্ষণের হুমকি দিয়ে পোস্টের কথা স্বীকার করেছে সে।

তবে অভিযুক্ত নাবালক হওয়ায় তাকে গ্রেফতার বা আটক করা হয়নি জানিয়ে পুলিশ সুপার আরও বলেন, অভিযুক্ত নাবালক। জুভেনাইল আইন অনুযায়ী কোনো মামলা ছাড়া তাকে গ্রেফতার বা আটক করতে পারব না আমরা। আমরা রাঁচি পুলিশের অপেক্ষায় রয়েছি। তারা পৌঁছলেই অভিযুক্তকে হস্তান্তর করব।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ