সিলেট-তামাবিল সড়কের ময়লার ভাগাড় রুপ নিচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ওয়াকওয়েতে

প্রকাশিত: ৪:২৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২০

সিলেট-তামাবিল সড়কের ময়লার ভাগাড় রুপ নিচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ওয়াকওয়েতে

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেট সদর উপজেলার খাদিমপাড়া ইউনিয়নের সিলেট-তামাবিল সড়ক সংলগ্ন মেজরটিলা এলাকার রাস্তার ধার যেন রীতিমত ময়লার ভাগাড়। প্লাস্টিক, পলিথিন আর নানা পচনশীল বর্জ্যের দুর্গন্ধে এতদিন এ পথে চলা ছিল দায়।

আলোকিত সিলেটের রূপকার সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য এবং সফল পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের বিশেষ তত্ত্বাবধানে এবার নূরপুর-চামেলীভাগের ময়লার ভাগাড় পরিবর্তিত হয়ে রুপ পাচ্ছে ১ কি.মি. দৃষ্টিনন্দন ওয়াকওয়ে ও লেকে।

খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের জননন্দিত এবং ক্যারেশম্যাটিক চেয়ারম্যান এড. আফছর আহমদ জানান, সিলেট-তামাবিল সড়কের মেজরটিলা এলাকার গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কের পাশে এতোদিন ইউনিয়নের ১,২ ও ৪ নং ওয়ার্ডের জনসাধারণ ময়লা আবর্জনা ফেলতেন। ইতিমধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ সিসিকের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে অত্র এলাকার সব ময়লা-আবর্জনা টিলাগড় ডাম্পিং স্টেশনে ফেলতে। শুধু তাই নয়, ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকটি ময়লার গাড়ি দেওয়া হচ্ছে প্রতিটি ওয়ার্ডে। মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধান ও প্রচেষ্টায় সিলেট-তামাবিল সড়কের মেজরটিলা এলাকার রাস্তা সংলগ্ন ১ কিলোমিটার এলাকা বদলে যাচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ওয়াকওয়ে ও লেকে।

ক্ত ওয়াকওয়েতে গাছ-গাছালি বেষ্টিত মনোরম পরিবেশে থাকবে হাটা ও বসার সুব্যবস্থা। তাছাড়া থাকছে বিশুদ্ধ পানি, ওয়াইফাই এবং মিনি ক্যান্টিনের ব্যবস্থা। পরিচ্ছন্ন ও পরিবেশ বান্ধব পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে তাই ব্যাপক উন্নয়ন কাজ চলমান আছে। ইতিমধ্যে ওয়াকওয়ে ও লেকের কাজ শুরু হয়েছে এবং এটি সম্পন্ন হলে পর্যটন নগরী সিলেটের চেহারা আরো বদলে যাবে।

উল্লেখ্য, সিলেটের বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটির পুরকৌশলী ফেরদৌস আব্বাস চৌধুরী, রুবেল আহমেদ, শাহনেওয়াজ রশিদ এবং ওয়াফা আরবাব চৌধুরী প্রস্তাবিত নান্দনিক এবং দৃষ্টিনন্দন নূরপুর-চামেলীবাগ ওয়াকওয়ে ও লেকের সার্বিক ডিজাইন, ল্যান্ডস্কেপিং ও সুপারভিশনের দায়িত্ব পালন করছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ