প্রতিমন্ত্রীর সামনে হাতাহাতির ঘটনার নেপথ্যে কে?

প্রকাশিত: ১১:৩৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৭, ২০১৯

প্রতিমন্ত্রীর সামনে হাতাহাতির ঘটনার নেপথ্যে কে?

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের সামনে হাতাহাতির ঘটনায় তোলপাড় চলছে জেলাজুড়ে। তাৎক্ষনিকভাবে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও স্থানীয় এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের পক্ষের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অনেকেই ক্ষোভের বিস্ফোরণ করছেন। একজন প্রতিমন্ত্রীর সামনে দায়ীত্বশীল নেতারা কেন এমন আচরন করলেন আর তাদের সমর্থকরা কেন হাতাহাতির মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটালো। এ ঘটনার নেপথ্যে কে? এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে জনমনে।

জানা যায়, গত রোববার দুপুরে নবীগঞ্জ উপজেলার উমরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নব-নির্মিত একাডেমিক ভবন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। তিনি অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশের সময় স্থানীয় নেতাকর্মীরা ফুল দিয়ে বরণ করেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও ক্লিপ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ওই দিন বেলা দুপুর ঠিক সাড়ে ১২ ঘটিকার দিকে প্রতিমন্ত্রী ফিতা কেটে উদ্বোধনের জন্য নাম ফলকের দিকে এগিয়ে আসেন।

এসময় এমপি শাহনওয়াজ গাজী মিলাদ একটু পিছনে পড়ে যান তখন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ-বিন-হাসান ও পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ওহি দেওয়ান চৌধুরী এমপিকে কিছু বলতে দেখা যায়। পরে এমপি দ্রুত এগিয়ে যান। একপর্যায়ে প্রতিমন্ত্রীর পাশে দাড়ানো নিয়ে স্থানীয় এমপি শাহনওয়াজ গাজী মিলাদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরীর মধ্যে বাকবিত-া হচ্ছে এমন দৃশ্য দেখা যায়। তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটির মধ্যে উপজেলার দেবপাড়া ইউপি সদস্য শিবলু আহমদ এসে ‘বেয়াদবের মতো’ দু‘জনের মধ্য স্থানে ঢুকে কোনো কিছু না বুঝেই ধাক্কাধাক্কি শুরু করলে চারিদিকে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের পক্ষের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে খোদ প্রতিমন্ত্রীর সামনেই। এ ঘটনায় অনুষ্ঠানস্থলে টান টান উত্তেজনা দেখা দিলে নবীগঞ্জ থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত অনেকই জানান, ‘যখন এমপি মিলাদ গাজী ও সাইফুল জাহান চৌধুরীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হচ্ছিল এসময় হঠাৎ শিবলু মেম্বার পিছন থেকে এসেই দু‘জনের মাঝকানে ডুকে সাইফুল জাহান চৌধুরীকে ধাক্কা দিয়ে পেলে দেয়। তখন সাথে সাথে উত্তেজনা ছড়িয়ে যায় পুরো অনুষ্ঠান স্থলে। ’

পরে উভয় বিভিন্ন এলাকা থেকে উভয় পক্ষের কয়েক শতাধীক কর্মী-সমর্থক ঘটনাস্থলে আসলেও প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপে বড় ধরনের ঘটনা থেকে রক্ষা হয়। ওই বির্তকিত ইউপি সদস্য শিবলুর এহেন কা- অনেকেই আঞ্চলিক ভাষায় ‘অতি ভক্তি চোরের লক্ষন’ এই প্রবাদ বলতে শুনা গেছে। এমপির সাথে আওয়মীলীগ সাধারণ সম্পাদকের বাকবিতনণ্ডা দেখে এমপির মন পেতে মেম্বার শিবলু অতি উৎসাহি হয়ে ধাক্কাধাক্কি শুরু করে। পরে পুলিশ কঠোর হস্তক্ষেপ না করলে বড় ধরনের মারামারির ঘটনা ঘটতো। বিতর্কিত এই ইউপি সদস্য শিবলুর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছেন সচেতন মহল। অনেকে প্রকাশ্যে মন্তব্য করেছেন- শিবলুর মতো ‘ভাইরাস’কে সমাজ থেকে প্রতিহিত না করলে এলাকায় দাঙ্গা হাঙ্গামা বৃদ্ধি পাবে।

এদিকে উক্ত অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্য শাখার লেষ্টার আওয়ামী লীগ সভাপতি সৈয়দুর রহমান সাঈদ এর সভাপতিত্বে উল্লেখিতরা ছাড়াও হবিগঞ্জ-মৌলভীবাজার সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা জহুরা আলাউদ্দিন, হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডা. মুশফিক হুসেন চৌধুরী, নবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম, নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদ-বিন-হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুলসহ আরো অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর সামনে কেন এমন ঘটনা ঘটলো এ ব্যাপারে গাজী শাহনওয়াজ মিলাদ এমপি বলেন, ‘সাইফুল জাহান চৌধুরী অনুষ্ঠানে যে আচরণ করেছেন, তা শিষ্টাচারবহির্ভূত। তার আচরণে প্রতিমন্ত্রী নিজেই ক্ষুব্ধ হয়েছেন। এমনকি অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবাই হতবাক। ’

অপর দিকে সাইফুল জাহান চৌধুরী বলেন, ‘এমপি মিলাদ গাজী আমাকে মন্ত্রীর কাছ থেকে সরিয়ে নিতে ঘুষি মারেন। আমি আত্মরক্ষার্থে তার হাত ধরে ফেলি। এছাড়া কোনো ঘটনা ঘটেনি। ’ শিবলু মেম্বার ধাক্কা দিলে উত্তেজনা দেখা দেয়।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সহকারী সিনিয়র পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী বলেন, অনুষ্ঠানে কিছু সমস্যা হয়েছিল, পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ