প্রবাসী অধ্যুষিত মৌলভীবাজার করোনার শীর্ষে থাকলেও লকডাউন চলছে ঢিলেঢালা, মানুষের মধ্যে বেপরোয়া ভাব

প্রকাশিত: ৭:৫২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৬, ২০২১

প্রবাসী অধ্যুষিত মৌলভীবাজার করোনার শীর্ষে থাকলেও লকডাউন চলছে ঢিলেঢালা, মানুষের মধ্যে বেপরোয়া ভাব

স্বপন দেব, নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ করোনা সংক্রমণ আবারও বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারের নির্দেশনায় সোমবার থেকে দেশব্যাপী লকডউন চললেও প্রবাসী অধ্যুষিত মৌলভীবাজারে সরকারের কোন নির্দেশনাই সঠিকভাবে পালিত হচ্ছেনা। মৌলভীবাজারে করোনা সংক্রমণের হার আশঙ্কজনকভাবে বৃদ্ধি পেলেও জনগণের মধ্যে কোন সচেতনতাই দেখা যায়নি। ভয়ানক পরিস্থিতি মোকাবেলায় সংক্রমণের দিক থেকে শীর্ষস্থানে থাকা মৌলভীবাজার জেলার সাত উপজেলায় দুদিন ধরে লকডাউনে শুধুমাত্র বিপনী বিতান ও মার্কেট বন্ধ থাকতে দেখা গেছে।
জেলা ও উপজেলা সদরের কিছুটা পালিত হলেও পাশের হাট বাজারগুলো খোলা ছিলো রাত ১১-১২ টা পর্যন্ত। শুধু পুলিশ দেখলে দোকানের সাটার টেনে দেন দোকানীরা পরক্ষণেই আবার খোলা মেলা বেচাকেনা করতে দেখা গেছে। কুলাউড়ার ব্রাম্মনবাজার, রবিরবাজার, বরমচাল ও ভাটেরা বাজারের দোকান রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত খোলা ছিলো বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন।
এবারে মন্ত্রীপরিষদ থেকে জারি করা ১১দফা নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোরভাবে পালন করার থাকলেও প্রশাসনের ঢিলেঢালা মনোভাবের কারণে লকডাউন মানা হচ্ছেনা বলে সচেতন মহল মনে করেন।
সোমবার সকাল থেকে লকডাউনের শুরু হলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে মৌলভীবাজার জেলা সদরসহ প্রতিটি উপজেলা শহরমুখী সড়কেই যাত্রীবাহী সিএনজি অটোরিক্সা,টমটম, মাইক্রোবাস, মালবাহী ট্রাক, ছোট ট্রাক, মোটর সাইকেল, রিকসা ও ব্যক্তিগত যানবাহন আগের মতই চলাচল করছে। শুধু মাত্র বন্ধ রয়েছে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল।
তবে দুপুরের পর থেকে লকডাউন মানাতে সক্রিয় হতে দেখা যায় প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত ও পুলিশ প্রশাসনের কয়েক জায়গায় অভিযান করতে দেখা গেছে।
লকডাউন অমান্য করে ট্রাক সিএনজি অটোরিকসাসহ প্রচুর পরিমানে যানবাহন চলাচল করছিল। এসব যানবাহনের চালক ও যাত্রীদের মুখেই ছিলনা মাস্ক,তবে পুলিশের ভয়ে অনেকে আবার তাৎক্ষনিক মাস্ক পড়তে দেখা যায়।
তবে মৌলভীবাজার (সদর) সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জিয়াউর রহমান জানান,লকডাউন কার্যকর রাখতে এবং করোনা সংক্রমণ রোধে জনগনকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পুলিশ কঠোর অবস্থান নিয়েছে।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ