বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করলেন নবগঠিত সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগ(ভিডিও)

প্রকাশিত: ৪:০৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২১

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করলেন নবগঠিত সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগ(ভিডিও)

আল-মুক্তাকিম কবীর সোহান

সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম বলেছেন সিলেটে কোনো কমিটিতে অনুপ্রবেশকারীর স্থান হবেনা এবং সিলেটের কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাধীনতা বিরোধী,আগুন সন্ত্রাসী ছাত্রদল শিবিরের সন্ত্রাসীদের ঠাই হবেনা।

বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে নবগঠিত সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগ নেতারা। রোববার দুপুরে তিনি এসব কথা বলেন।

সিলেট ছাত্রলীগের আগের দুই কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছিল নানা অনিয়মের অভিযোগে। এরপর দীর্ঘ ৪ বছরের বিরতী। হবে হচ্ছের খাঁড়ায় পড়ে দিনের পর দিন মাসের পর মাস কেটে যাচ্ছিল মহাকালের গর্ভে। কিন্তু কমিটি আর হচ্ছিল। সাত মাস আগে সিলেটে যে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল, সেই সভার পরেও অচলাবস্থার অবসান হয়নি। নেতৃত্বে আসতে ইচ্ছুকদের হতাশার দীর্ঘশ্বাস যখন ভারি থেকে আরও ভারি করছিল বাতাস, ঠিক তখন মঙ্গলবার কমিটি অনুমোদনের ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

সিলেট জেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্ব বর্তেছে যাদের উপর তারা হলেন নাজমুল ইসলাম ( সভাপতি) ও রাহেল সিরাজ ( সাধারণ সম্পাদক)। আর মহানগর ছাত্রলীগের নেতৃত্বে এসেছেন কিশওয়ার জাহান সৌরভ ( সভাপতি ) ও মো. নাঈম আহমেদ। দ্রুত সময়ের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাদের।

কমিটি গঠনের খবরে সাঁড়া পড়েছে সিলেটের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে। প্রায় ৪/৫ বছরের স্থবিরতা কাটিয়ে কমিটি গঠনের পর তাদের প্রত্যাশা, এ দুই কমিটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করবে। আর তাই তারা রাজপথে নেমেছেন। করেছেন আনন্দ মিছিল। নতুন নেতৃত্বকে স্বাগত জানিয়ে সিলেটের বিভিন্ন উপজেলা সদরেও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে মিছিল সামাবেশ হয়েছে। এসব মিছিল-সামাবেশ শেষে নেতাকর্মীরা উচ্ছাস প্রকাশের পাশাপাশি তাদের প্রত্যাশার কথাও জানিয়েছেন। আগামীতে ছাত্রলীগ আরও শক্তিশালী হবে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন তৎপরতার কথা জনগনের কাছে পৌঁছানো হবে, আগামী জাতীয় নির্বাচনে যাতে আওয়ামী লীগ নিজের লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে বা আবারও ক্ষমতায় আসতে পারে সেই লক্ষ্যে কাজ করবে ছাত্রলীগ- এমনটাই প্রত্যাশা তাদের।

সবচেয়ে খারাপ খবর হচ্ছে, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের নতুন সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজের আম্বরখানা বড়বাজারের দারুসসালাম মসজিদ ও মাদ্রাসা গলির বাসায় হামলার ঘটনাও ঘটেছে। সন্ধ্যায় ১৫/২০ জনের একটি দুর্বৃত্তের দল তাকে বাসায় গিয়ে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে ভাংচুর করে । এতে আতঙ্ক আর উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়েছে আম্বরখানা এলাকা ছাড়িয়ে গোটা নগরজুড়ে।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ এবং সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ নেতৃবৃন্দ মিলে বিষয়টির সুন্দর সমাধান বের করবেন বলেই মনে করছেন তারা।

সিলেট ছাত্রলীগ আরও দ্রুত এগিয়ে যাবে বলেও তাদের প্রত্যাশা তৃনমুল ছালীগের নেতা কর্মীদের আশা।

কোন পথে সিলেট ছাত্রলীগ!
 

দীর্ঘ প্রায় ৪বছর পর মঙ্গলবার (১২অক্টোবর) ঘোষণা করা হয় সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি। কমিটি ঘোষণার পর পরই নব গঠিত কমিটির নেতৃবৃন্দকে নিয়ে শুরু হয় সমালোচনা।

এনিয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠে সিলেটের রাজনৈতিক অঙ্গন। শুধু উত্তপ্তই নয়, ছড়িয়ে পড়ছে উদ্বেগ উৎকন্ঠাও। দীর্ঘদিন কমিটিহীন সিলেট ছাত্রলীগ নতুন কমিটি নিয়ে কোথায় নবউদ্যোমে ঝাঁপিয়ে পড়বে দল পুনর্গঠনে, কিন্তু তা আর সহজে হচ্ছে বলে মনে করছেন না সংশ্লিষ্ট মহল। আন্দোলনের হুমকি আর স্বাগত মিছিলে সংঘর্ষের আশঙ্কায় রীতিমত শঙ্কিত তারা।

এদিকে দীর্ঘদিন থেকে সিলেট ছাত্রলীগে রয়েছে অভ্যন্তরীণ কোন্দল, বিভিন্ন গ্রুপ ও উপ-গ্রুপ। সিলেট ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করতে বিভিন্ন বলয় থেকে যোগ্য নেতাদের মাধ্যমে ঘোষণা করা হয় জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি।

কিন্তু ছাত্রলীগের কমিটির রেশ ধরেই এরমধ্যে ফাটল দেখা দিয়েছে সিলেট আওয়ীলীগে। একপক্ষ অবস্থান নিয়েছেন কমিটির পক্ষে অপর পক্ষ কমিটি ভাঙতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন।

কমিটির পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিধান কুমার সাহা ও জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রণজিৎ সরকার।

বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন মহানগরের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমেদ, জেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান ও মহানগরের সহ সভাপতি আসাদ উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদুর রহমান আজাদ।



তাদের অভিযোগ কমিটি গঠনে ছাত্রলীগের দ্বায়িত্বশীল নেতারা স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের সাথে আলাপ-আলোচনা করেননি।

ছাত্রলীগের নব গঠিত কমিটিতে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে টিলাগড় গ্রুপের নাজমুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তেলিহাওর গ্রুপের রাহেল সিরাজের নাম ঘোষনা করা হয়।

এছাড়া মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে দর্শনদেউড়ি গ্রুপের কিশওয়ার জাহান সৌরভ ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কাশ্মির গ্রুপের নাঈম আহমদের নাম ঘোষণা হয়।

এছাড়া কেন্দ্রীয় সদস্য হিসেবে ঘোষণা করা হয় ৬ জনের নাম। তারা হলেন- জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান, বিপ্লব কান্তি দাস, মুহিবুর রহমান মুহিব, কনক পাল অরূপ, হোসাইন মোহাম্মদ সাগর ও সঞ্জয় পাশী জয়। তবে কেন্দ্রীয় কমিটির দুই সদস্য জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খান ও মুহিবুর রহমান মুহিব কমিটি ঘোষনার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই পদত্যাগ করেন।

এই কমিটি ঘোষণার পর ছাত্রলীগের একাংশের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দেয়। তেলিহাওর গ্রুপের রাহেল সিরাজ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ পেলেও গ্রুপের অভ্যন্তরে অসন্তোষ চরমে পৌঁছায়। তেলিহাওর গ্রুপের বড় অংশের নেতাকর্মীরা রাহেল সিরাজের পরিবর্তে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে চেয়েছিলেন জাওয়াদ ইবনে জাহিদ খানকে। কিন্তু জাওয়াদকে সাধারণ সম্পাদক না করে কেন্দ্রীয় সদস্য করায় গ্রুপটির নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে। পরে টাকার বিনিময়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে। একই সময় নব গঠিত কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে নগরীর বিভিন্ন জায়গায় আনন্দ মিছিল করে করা হয়। এইদিন সন্ধ্যায় রাহেল সিরাজের বাসায়ও হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা।

এদিকে, নিজ বলয়ে উপেক্ষিত জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন দুই কমিটির শীর্ষ নেতারা। তবে এই মূহূর্তে নিজ বলয়ে ভেড়াতে সিদ্ধান্তহীনতায় রয়েছেন তারা।

শেষ পর্যন্ত জেলার কোনও নেতা রাহেল সিরাজের দায়িত্ব না নিলে গোলাপগঞ্জ আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ এক নেতা তাকে শেল্টার দেবেন বলে আভাস রয়েছে।

এদিকে দীর্ঘ প্রায় ২যুগ ধরেই ছাত্রলীগের কমিটিতে আধিপত্য ছিল ‘তেলিহাওর গ্রুপ’র নিয়ন্ত্রক জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাসির উদ্দিন খাঁন, দর্শন দেউড়ি গ্রুপ’র নিয়ন্ত্রক আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, কাশ্মীর গ্রুপের নিয়ন্ত্রক মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিধান কুমার সাহা ও টিলাগড় গ্রুপের নিয়ন্ত্রক জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রণজিৎ সরকার অনুসারীদের।

২০১৫ সালে দীর্ঘদিনের আধিপত্যে ভাগ বসান সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আসাদ উদ্দিন আহমেদ ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আাজাদুর রহমান আজাদ। সে কমিটিতে কাশ্মীর গ্রুপকে মাইনাস করে মহানগরের সাধারণ সম্পাদক হন শাহজালাল ব্লকের নিয়ন্ত্রক আসাদ উদ্দিন আহমেদের অনুসারী আব্দুল আলিম তুষার। অপরদিকে জেলায় টিলাগড় গ্রুপকে মাইনাস করে সাধারণ সম্পাদক হন আজাদুর রহমান আজাদ অনুসারী রায়হান চৌধুরী।

সর্বশেষ ২০২১ সালেও পুরোনো চার ছাত্রলীগ নেতা তাদের বলয়ের আধিপত্য ধরে রাখলেও বাদ পড়ে আসাদ উদ্দিনের নিয়ন্ত্রণে থাকা শাহজালাল ব্লক। তবে তেলিহাওর গ্রুপ থেকে জেলা ছাত্রলীগে রাহেল সিরাজ সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হলেও বলয়ে কোণঠাসা রয়েছেন তিনি। তাকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মেনে নিতে নারাজ নিজ বলয়।

তবে দলীয় একটি সূত্র জানায়, তেলিহাওর গ্রুপ ও রাহেল সিরাজের মধ্যকার বিবাধ নিস্পত্তিতে কাজ করছে দলীয় একটি অংশ।

জানা যায়, বর্তমানে রাহেল সিরাজসহ জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের শীর্ষ চার নেতাই ঢাকায় অবস্থান করছেন। তেলিহাওর গ্রুপের অভ্যন্তরীণ বিরোধ নিষ্পত্তি হলে গ্রুপেই ফিরবেন রাহেল। অন্যথায় বিমানযোগে দু-একদিনের মধ্যে টিলাগড়, দর্শনদেউড়ি ও কাশ্মির গ্রুপের সমন্বয়ে সিলেটে ফিরবেন রাহেল সিরাজসহ জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের শীর্ষ চার নেতা। পরে বিশাল শোডাউন করে নিজেদের অবস্থান জানান দেবেন তারা।

রাহেল সিরাজ জানান, নাসির উদ্দিন খান আমার রাজনৈতিক অভিভাবক। আমার সফলতা কেন আমার গ্রুপের অনুসারী ও সহকর্মীরা মেনে নিতে পারছেনা। তা আমার বোধগম্য নয়।

অপরদিকে সিলেট ছাত্রলীগের বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন তৃণমূল ছাত্রলীগ।বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠনে এমন পরিস্থিতির পিছনে গ্রুপিং রাজনীতিকে দায়ী করছেন তারা।

তাদের দাবি, দীর্ঘদিন ধরে স্থবির হয়ে পড়া রাজনৈতিক অঙ্গনে নতুন কমিটি গঠনের মাধ্যমে প্রাণ ফিরেছে ছাত্রলীগে।

তৃণমূল নেতৃবৃন্দ জানান, সামাজিক রাজনৈতিক বিভিন্ন কর্মকান্ডে ছাত্রলীগের বিশাল একটা ভূমিকা রয়েছে। এক্ষেত্রে সিলেট আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মধ্যে অভ্যন্তরীণ বিরোধ বিদ্যমান থাকলে সরকারের নানা উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে সহযোগিতার বদলে প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে উন্নয়ন কর্মকান্ড ব্যহত হবে। সেই সাথে রাজনৈতিক সৌহার্দ্য’র অন্ততম অন্তরায় হয়ে উঠবে।

অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও ঈর্ষান্বিতার রাজনীতি পরিহার করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান তৃণমূল ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ