বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন উদার চেতনার অধিকারী একজন খাঁটি ইমানদার : পলাশ

প্রকাশিত: ১১:৩১ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৪, ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন উদার চেতনার অধিকারী একজন খাঁটি ইমানদার : পলাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ::
নাদিয়াতুল কুরআন মাকাতিব শিক্ষা বোর্ড মুলাগুল শাখার উদ্যোগে ও কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক তমিজ উদ্দিন মেম্বারের অর্থায়নে স্থানীয় হাজী নুরজাহান সেন্টারে ১৫০ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান আকর্ষণের বক্তব্যে সিলেট জেলা আওয়ামিলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মস্তাক আহমদ পলাশ বলেন, বঙ্গবন্ধু যেমন ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক বাঙালি, তেমনি ছিলেন একজন প্রকৃত মুসলমান। বঙ্গবন্ধুর সারা জীবনের কর্মপ্রয়াস ছিল বাংলার জনগণের শোষণ ও মুক্তির অন্বেষণ। স্বাধীন বাংলাদেশে ইসলামি অগ্রযাত্রায় বঙ্গবন্ধুর অবদান অবিস্মরণীয়। বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর সাড়ে তিন বছরের শাসনামলে ইসলামের প্রচার প্রসারে যে অবদান রেখেছেন, তা সমকালীন ইতিহাসে বিরল। স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন উদার চেতনার অধিকারী একজন খাঁটি ইমানদার। পারিবারিকভাবেই ইসলামিক চেতনা নিয়ে জন্মেছিলেন তিনি ইসলামের মহানুভবতা ও উদারতার আদর্শ আজীবন লালন করেছেন বাঙালির এ মহানায়ক।

৭ মার্চের ভাষণে দৃঢ়প্রত্যয়ীভাবে ‘ইনশাআল্লাহ’ বলে যে ঘোষণা তিনি দিয়েছিলেন, সেই ‘ইনশাআল্লাহ’ থেকেই বাঙালি মুক্তির সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার প্রেরণা পেয়েছিল। লাখো মানুষের রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জনের পর বঙ্গবন্ধু যখন স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করলেন, একই মাঠে তার মুখে শোনা গেল বাঙালির জাতিসত্তার পরিচয়। ১৯৭২ সালে পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের মুক্ত বাতাসে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিশাল জনসমুদ্রে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমার ফাঁসির হুকুম হয়েছিল, জীবন দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়েছিলাম, আমি বলেছিলাম তোমরা আমাকে মারতে চাও মেরে ফেল। আমি বাঙালি, আমি মানুষ, আমি মুসলমান। মুসলমান একবার মরে, বারবার মরে না।’

বাংলাদেশকে সব ধর্মের সব মানুষের জন্য শান্তির দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে বঙ্গবন্ধু ছিলেন সদা সচেষ্ট। তার স্বল্পকালীন শাসনামলে দেশ ও জাতির সার্বিক কল্যাণার্থে গৃহীত নানামুখী পদক্ষেপগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং ভৌত অবকাঠামোগত পদক্ষেপ যেমন ছিল, তেমনি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশের মানুষের ধর্মীয় অনুভূতি ও মূল্যবোধের বিষয়াদি বিবেচনায় রেখে তিনি ইসলামের প্রচার-প্রসারে গ্রহণ করেছিলেন বাস্তবভিত্তিক ও কার্যকরী নানা ব্যবস্থা। তিনি যেমন একটি স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্রের মহান স্থপতি, তেমনি বাংলাদেশে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় ইসলামের প্রচার-প্রসারের স্থপতিও তিনিই। এ দুটি অনন্য সাধারণ অনুষঙ্গ বঙ্গবন্ধুর জীবনকে দান করেছে উজ্জ্বল মহিমা।

উত্তম আখলাক,তাকওয়া ও মানবিক আচরণ প্রকৃত ইসলামি সংস্কৃতির অংশ। শান্তির ধর্ম ইসলামে হিংসার কোনো স্থান নেই। নাদিয়াতুল কুরআন মাকাতিব শিক্ষা বোর্ড মুলাগুল প্রকৃত আলেমদের দ্বারা পরিচালিত এবং আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের দয়ায় এবং সকলের সহযোগিতায় এই প্রতিষ্ঠান তার সুনাম অক্ষুণ্ন রেখে চলেছে চলছে ইনশাআল্লাহ। এসময় উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য হাজি আলমাছ উদ্দিন ,মাওলানা জাকারিয়া আহমেদের সভাপতিত্বে এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা নুমান আহমদ এছাড়াও বিশেষ অতিথি জনাব মোঃ মঞ্জুর হুসেন সেলিমসদস্য ১নং ওয়ার্ড -১নং ইউপি প্রমুখ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
     12
17181920212223
24252627282930
31      
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ