ভাটির ছেলেরা ভাটিতে ফিরে যাবে আপনাদের রক্তের খেলা বন্ধ করুন !

প্রকাশিত: ৯:২৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২১, ২০১৮

ভাটির ছেলেরা ভাটিতে ফিরে যাবে আপনাদের রক্তের খেলা বন্ধ করুন !

জিল্লুর রহমান :: ওরা অবুঝ,ওরা বিনয়ি,ওদের রক্তে বেঈমানি নেই,ভাটির ছেলে গুলি ভাটিতে ফিরে যাবে আপনাদের রক্তের খেলা বন্ধ করুন।

বীরদর্পে সুলেমানি জুতা, শেরওয়ানী পাঞ্জাবি পরে আপনি যখন রাজার হালে রাজপথে হাটেন,
রশীদের মতো ছেলেরা আপনার পিছন থেকে জয়বাংলা স্লোগানে প্রকম্পিত করে পিছনের পথ।

বিরোধীদলের কঠিন কর্মসূচি প্রতিরোধ করতে আপনি যখন পুলিশের পিছনে, সরকারি কোন ভবনের ছাদের নীচে অবস্হান নিয়ে প্রানের ভয়ে থর থর করে কাপেন,রশীদরাই তখন আপনার বগল টেনে রাজপথে বের করে বিপ্লবী ছবি তুলতে সহযোগিতা করে,সেই ছবি ফেইসবুক এ ভাইরাল হয় টেলিভিশনের পর্দায় ভাসতে থাকে বার বার,আপনি তখন সভানেত্রীর কাছে বনে যান বিরাট নেতা!
আপনি নেতা হোন,রথি মহারথি হোন,তাতে কারো কিছু আসে যায়না,
আপনার ভিতরের রুপ দেখাতে যান কেনো?
হাওরের জল রাশির সাথে খেলা করে,সাতরে শৈশবে বেড়ে উঠা ছেলে গুলি বড্ড সরল,সহজে বিশ্বাস করতে শিখেছে,
আপন করতে শিখেছে।
সুমন দাশ, জগৎ জ্যোতি নিজের জীবন বলি দিয়ে পাড়ি জমিয়েছে পরপারে;
বিনিময়ে কি পেয়েছে বলতে পারেন?
কেউ কি জগৎ জ্যোতির পরিবারের খবর নিয়েছেন?
কেউ কি সুমন দাসের পাগল প্রায় একমাত্র বোনটির খবর জানতে চেয়েছেন?
এসব জানা আপনাদের কাজ নয়, কারন আপনারা যে মুজিব কোটধারী নেতা!

লাশের বিনিময়ে আপনারা কি কম পেয়েছেন?
প্রতিবাদ সভা করে প্রতিশোধ নেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন বজ্রকন্ঠে,যোগবিয়োগ মিলিয়ে একটু দেখেন তো,কি প্রতিশোধ নিয়েছেন?
প্রতিশোধ কি নিবেন?
আপনি মুজিব কোটধারী নেতা,আপনার পোষাকে ময়লার চাপ পরলে যে আপনার ব্যক্তিত্বে ধরবে!
রশীদ,অরুন সাগরের মতো নেতারা মার খায় আবার পুনজন্ম হয়,এটা তাদের ভাগ্যের জোরে।
আপনার কোন অবদান নেই।

একটু পিছনে আসুন
বরুন রায়,অক্ষয় কুমার,সামাদ আজাদ,সুরঞ্জিত সেন উনারা কিন্তু আপনাদের উছিলায় নেতা হন নি।
বিশাল হাওর পাড়ি দিয়ে নৌকায় চড়ে জাতীয় নেতা হতে কিন্তু কোন সমস্যা হয়নি।
আপনার এতো চাকচিক্যের শহরে, এতো আধুনিক রাজনৈতিক চর্চায় জাতীয় নেতা কি হতে পেরেছেন???

আরেকটু মনে করিয়ে দেই,
আপনি তখন রাজনীতির “র” বর্ন টির সাথে পরিচিত হতে পারেননি!
আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনে যখন সিলেটের রাজপথ উত্তাল,কোর্ট পয়েন্ট-এর জনসভায় আইয়ুব খানের মুখে জুতা ছুরে ছিলেন হাওর পারের আরেক সুসন্তান তৎকালীন ছাত্র ইউনিয়ন নেতা নাছির চৌধুরী।

এই শহরে নিরপরাধ ছেলেরা খুন হয়,আবার আপনার ইন্দনে আরেক টি নিরপরাধ মানুষ প্রধান আসামী হয়ে হয়তো দেশ ছাড়তে হয়,নয়তো জেলের মধ্যে মুক্তির প্রহর গুনতে হয়।
লাশের সারি পিছনে ফেলে আপনার স্বার্থে একঘরে হতে কুন্ঠাবোধ আপনার নেই।

জগৎজ্যোতি,সুমন দাস হারিয়েছে,
আর যেন কাউকে হারাতে নাহয়,
আপনার স্বার্থেই বাছিয়ে রাখুন,
আপনি রাজাদ্বিরাজ হবেন,
কাছারিতে প্রজা থাকবেনা এ কেমন হয়?
মহারাজা আসছেন এ কথা জানান দিতে অন্তত রশীদের মতো প্রজাদের বাছিয়ে রাখুন,

তানা হলে কে বলবে জয়বাংলা?
কে আপনার হেটে যাওয়া পথ কন্ঠক মুক্ত করবে?
কর্মি শুন্য নেতা হয়ে আপনি হয়তো উন্মাদ হয়ে যাবেন!
ব্যাংককের কোন প্রমোদতরিতে পরে থাকবেন,আপনার খোঁজ নেওয়ার মানুষও খুজে পাবেন না!!!
লেখক : রাজনৈতিক কর্মী

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের ফেইসবুক পেইজ