ভারী গাড়ির চালকের যোগ্যতা শিথিল আরও এক বছর

প্রকাশিত: ১০:৫৭ অপরাহ্ণ, জুন ১১, ২০২০

ভারী গাড়ির চালকের যোগ্যতা শিথিল আরও এক বছর

অনলাইন ডেস্ক :; ভারী ও মধ্যম মানের গাড়ির চালক হওয়ার যোগ্যতা আরও এক বছরের জন্য শিথিল করেছে সরকার। এ সময়ে মাত্র দুই বছরের অভিজ্ঞতায় ড্রাইভিং লাইসেন্সে হালকা গাড়ি থেকে ভারী গাড়ির চালানোর সুযোগ পাবেন চালকেরা। তাদের লাইসেন্সে ভারী গাড়ি সংযোজন করে দেয়া হবে।

সম্প্রতি এ সংক্রান্ত একটি সংশোধিত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ।

চালকের অপ্রতুলতার কারণ দেখিয়ে ‘জনস্বার্থে’ এ সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে প্রজ্ঞাপনে।

তবে চালকের যোগ্যতা শিথিলের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। এতে সড়কে দুর্ঘটনা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা তাদের। এ বিষয়ে যোগাযোগ করে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলামের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, হালকা যানবাহনের পেশাদার চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ এক বছর হলে ওই লাইসেন্সের মধ্যম শ্রেণির মোটরযান সংযোজনের আবেদন করতে পারবেন। একইভাবে মধ্যম মানের চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ এক বছর অতিক্রম করলে তিনি ভারী যানবাহনের চালকের লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

এ ছাড়া হালকা যানবাহনের চালকের লাইসেন্সের মেয়াদ তিন বছর অতিক্রান্ত হলে সরাসরি ভারী গাড়ির চালানোর অনুমোদনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। যদিও এ সুযোগ আগামী জুন পর্যন্ত দেয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে প্রজ্ঞাপনে।

বিআরটিএ’র সংশ্লিষ্টরা জানান, চালকের সংকট দেখিয়ে এ সুযোগ দেয়া হচ্ছে। এতে কম যোগ্যতাসম্পন্ন চালকের হাতে চলবে ভারী শ্রেণির গাড়ি। তাদের মতে, বাস, ট্রাক, কার্গোভ্যান, কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকারের মতো গাড়ি ভারী যানবাহন হিসেবে চিহ্নিত। দেশে এ সব গাড়ির সংখ্যা ২ লাখ ৬১ হাজার ৮২১টি। এর বিপরীতে চালক রয়েছেন ১ লাখ ৫৪ হাজার ৭২০ জন। অপরদিকে মিনিবাস ও ডেলিভ্যারি ভ্যান মধ্যম শ্রেণির যানবাহন। ৫৯ হাজার ৫৫৪টি মধ্যম শ্রেণির গাড়ির বিপরীতে ৯৫ হাজার ৫০৩ জন চালক রয়েছেন।

তারা বলেন, আইন অনুযায়ী- হালকা শ্রেণির চালকের তিন বছর অভিজ্ঞতা থাকলে মধ্যম শ্রেণির এবং আরও তিন বছরের অভিজ্ঞতা থাকলে ভারী শ্রেণির গাড়ির লাইসেন্স পেতেন। কিন্তু সংশোধিত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, হালকা লাইসেন্সের মেয়াদ এক বছর হলেই মধ্যম ও দুই বছর হলেই ভারী গাড়ি চালানোর সুযোগ পেতে যাচ্ছেন। অর্থাৎ ভারী গাড়ি চালাতে ছয় বছরের অভিজ্ঞতার স্থলে দুই বছরেই সেই সুযোগ দেয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, চালক সংকটের কথা বিবেচনা করে সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে এ সিদ্ধান্ত যথাযথ হয়নি। এতে সড়ক দুর্ঘটনা বাড়বে। সড়ক অনিরাপদ হয়ে উঠবে। সড়ক নিরাপত্তায় সরকারের পদক্ষেপ প্রশ্নবিদ্ধ হবে।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

আমাদের ফেইসবুক পেইজ