ভুমি খেকোদের মিথ্যা মামলায় খালাস পেলেন শ্রীমঙ্গলের ৪ সাংবাদিক ও ১ জনপ্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৭:৫৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২০

ভুমি খেকোদের মিথ্যা মামলায় খালাস পেলেন শ্রীমঙ্গলের ৪ সাংবাদিক ও ১ জনপ্রতিনিধি

স্বপন দেব, নিজস্ব প্রতিবেদক :: শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবের অফিস, হলরুম নিউজ কর্নারের আসে পাশের ভুমি নিজ নামে বন্দোবস্ত নেয়ার হীন চক্রান্ত করে এক লন্ডন প্রবাসীর পক্ষে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের চার জন সিনিয়র সাংবাদিক ও একজন জেলা পরিষদের সদস্যের উপর মিথ্যা মামলা দায়ের করে মৌলভীবাজার সদরের বাসিন্দা ভুমি খেকো আব্দুল হালিম।

বিচারিক কার্যক্রম শেষে মৌলভীবাজার জুডিশিয়াল ২য় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. মিজবাহ উর রহমান মামলাটি মিথ্যা প্রমানিত হওয়ায় ৪ সাংবাদিকসহ জেলা পরিষদ সদস্যকে বেকসুর খালাস প্রদান করেছেন।

খালাস প্রাপ্তরা সংবাদকর্মীরা হলেন শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ সভাপতি দৈনিক সমকালের প্রতিনিধি শামীম আক্তার হোসেন, সিনিয়র সহ সভাপতি আরটিভি ও আমাদের সময়ের মৌলভীবাজার স্টাফ রিপোর্টার চৌধুরী ভাস্কার হোম, সাধারণ সম্পাদক ও একুশে টেলিভিশনের মৌলভীবাজার প্রতিনিধি বিকুল চক্রবর্তী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক দৈনিক প্রথম আলোর প্রতিনিধি শিমুল তরফদার ও আবু বক্কর সিদ্দিকি মোহনের আম মুক্তার মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ সদস্য মশিউর রহমান রিপন।

জানা যায়, শ্রীমঙ্গল সাগরদীঘি রোডের শান্তিবাগ এলাকায় সরকারের জিম্মায় থাকা অর্পিত সম্পত্তিতে শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাব, নিউজ কর্নার, মুক্তিযুদ্ধের আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও আবুবক্কর সিদ্দিকি মোহন ভাড়াটিয়ার মাধ্যমে সেখানে ভোগদখল করে আসছেন এবং বৈধভাবে বসবাসের লক্ষে সরকারকে রাজস্ব প্রদানের জন্য সমস্ত কাগজপত্রসহ আবেদনও করেন।

কিন্তু উক্ত জায়গাটি বন্দোবস্ত পাওয়ার স্বার্থে ভুমি লোভী ওই লন্ডন প্রবাসী ও আব্দুল হালিম জায়গায় অবস্থানকারী আবু বক্কর সিদ্দিকি মোহন ও শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবসহ অনান্য দখলদারদের উঠিয়ে দিয়ে নিজেদের দখলে নিতে নানা পায়তারা চালায়।

এর ধারাবাহিকতায় তারা শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবের ৪ সংবাদকর্মী ও এক জনপ্রতিনিধির উপর মিথ্যা মামলা দায়ের করে। বিজ্ঞ আদালত দীর্ঘ বিচারিক কার্য শেষে তাদের বেকসুর খালাস দেন।

প্রেসক্লাবের পক্ষে এ মামলাটি পরিচালনা করেন জেলার সিনিয়র আইনজীবি রাধাপদ দেব সজল, অ্যাডভোকেট মিজবা উদ্দিন আহমদ, অ্যাডভোকেট প্রনব কান্তি দাশ রাকু ও অ্যাডভোকেট জাহেদুল হক কচি।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাপ্তাহিক জয়বার্তার সম্পাদক মৌলভীবাজার জজ কোর্টের পিপি অ্যাডভোকেট আজাদুর রহমান জানান, এই ভুমিখেকো চক্র সরকারী জমি দখলে নিতে বিভিন্ন সময় শহরে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। বিগত তিন বছর ধরে সাংবাদিক ও ওই এলাকার ব্যবসায়ীদের নানাভাবে হয়রানি করে আসছে। এ চক্রের প্রতি প্রশাসনের সার্বক্ষনিক নজর রাখা প্রয়োজন বলে তিনি জানান।

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ