ভূমির অবক্ষয় শূন্যে নামানোর লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার: পরিবেশমন্ত্রী

প্রকাশিত: ১১:৫০ অপরাহ্ণ, জুন ১৭, ২০২১

ভূমির অবক্ষয় শূন্যে নামানোর লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার: পরিবেশমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক :: পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি বলেছেন, ‘ঊর্বর ভূমি সংরক্ষণের পাশাপাশি সবুজ অর্থনীতি ও টেকসই ভবিষ্যত গড়তে ২০৩০ সালের মধ্যে ভূমির অবক্ষয় শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে সরকার বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে । ইউএন কনভেনসন টু কমবেট ডেজার্টিফইকেশন এ স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে এসব কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’

বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) ‘বিশ্ব মরুকরণ ও খরা দিবস ২০২১’ উপলক্ষে এক সেমিনারে সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এই তথ্য জানিয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন।

পরিবেশ মন্ত্রী বলেন, ‘সরকার মরুকরণ ও খরা প্রতিরোধে পানির অপ্রাপ্যতা, বন উজাড়, ভূমিক্ষয় এবং পরিবেশের ওপর মানুষের অপরিকল্পিত হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে নিরলসভাবে কাজ করছে।’

মন্ত্রী এসময় ভূমির অবক্ষয় রোধে ইট ভাটায় সনাতন পদ্ধতির পরিবর্তে আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করার উদ্যোগ নেওয়ার কথা উল্লেখ করে জানান, ২০২৫ সালের পরে সরকারি কাজে মাটির তৈরি ইট ব্যবহার করা যাবে না।

মন্ত্রী বলেন, ‘সরকার গত বছর সাড়ে আট কোটি গাছ রোপণ করেছে এবং এবছরও আট কোটি গাছ রোপণ করবে। যে কোনও প্রয়োজনে একটি গাছ কাটা হলে পাঁচটি গাছ লাগানোর নীতি বাস্তবায়ন করা হবে। এসকল উদ্যোগ ভূমির ক্ষয়রোধে কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে।’

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আশরাফ উদ্দিন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-মন্ত্রী হাবিবুন নাহার ও মন্ত্রণালয়ের সচিব জিয়াউল হাসান।

অন্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন সাবেক সচিব প্রফেসর ড. জহুরুল করিম, শের-ই-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পোস্ট গ্রাজুয়েট স্টাডিজ এর ডিন এবং মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. অলোক কুমার পাল, পরিবেশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হুমায়ুন কবির প্রমুখ।

সেমিনারে মন্ত্রণালয়ের সচিব জিয়াউল হাসান বলেন, ‘সরকার ভূমি অবক্ষয়, মরুকরণ এবং খরা মোকাবিলায় ‘ন্যাশনাল অ্যাকশন প্রোগ্রাম ফর কমবেটিং ডেজার্টিফিকেশন ল্যান্ড ডিগ্রেশন অ্যান্ড ড্রট ২০১৬+২০২৪’ বাস্তবায়ন করছে। জাতিসংঘের এসডিজি ১৫ এর টার্গেট ১৫ দশমিক ৩ ভূমির অবক্ষয় নিরপেক্ষতা ২০৩০ সালের মধ্যে অর্জনের জন্য বাংলাদেশ সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। ভূমি অবক্ষয় রোধে জাতীয় রোডম্যাপ তৈরি করা হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ও ঝুঁকি মোকাবেলায় জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ডের আওতায় কার্যক্রম এবং খরা ও ভূমিক্ষয় রোধে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ