মরে গেছে লাউয়াছড়ার বিরল বৃক্ষ ‘আফ্রিকান টিক ওক’

প্রকাশিত: ৬:৩৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২২

মরে গেছে লাউয়াছড়ার বিরল বৃক্ষ ‘আফ্রিকান টিক ওক’

অনলাইন ডেস্ক :: দেশে থাকা একমাত্র ‘আফ্রিকান টিকওক’ গাছটিও মরে গেছে। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে রাস্তার পার্শ্বে ছিল এই বিরল প্রজাতির গাছটি। লাউয়াছড়ায় আসা পর্যটক ও গবেষকদের কাছে এই বৃক্ষটি খুবই আকর্ষণীয় ছিল। ‘আফ্রিকান টিক ওক (African Teak Oak Tree) এর বৈজ্ঞানীক নাম chlorophora spp।

বন বিভাগের ধারণা, শতবছর আগে ব্রিটিশরাই এই গাছটি লাগিয়েছিল। বনের রেল লাইনের পাশে আরো একটি ‘আফ্রিকান টিক ওক’ গাছ ছিল। সেটিও ২০০৬ সালে ঝড়ে উপড়ে পড়ে মারা যায়।

জানা যায়, প্রায় ১শ ফুট উচ্চতা ও ১২ ফুট প্রস্থ এই আফ্রিকান টিকওক গাছের নিম্নাংশে পচন ধরে। বন বিভাগের সিলভিকালচার টিচার্স বিভাগ অনেক চেষ্টা করেও বৃক্ষটি থেকে কোনো বংশবিস্তার করাতে পারেনি। কারণ এই বৃক্ষটির কোনো বীজ ছিল না। ফুল ধরলেও তা ঝরে পড়ে যেত। বছর কয়েক আগে এই বৃক্ষ থেকে কাটিং সংগ্রহ করা হয়েছিল। তাতেও কোন লাভ হয়নি।
সরেজমিনে দেখা যায়, মরা গাছটি উদ্যানের প্রবেশের রাস্তার ব্রিজের পাশে দাঁড়িয়ে রয়েছে। গাছের সব পাতা ঝরে গেছে। পচন ধরেছে গাছের গোড়া ও অন্যান্য জায়গায়। গাছের শুকনো ডালে পেচিয়ে আছে লতাজাতীয় গাছ ও অর্কিড।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, সম্ভবত ব্রিটিশরা ১০০ বছর আগে এই গাছটি এখানে রোপন করা করেছিল। আমাদের দেশে আর কোথাও এই গাছটির খোঁজ পাওয়া যায়নি। হয় বজ্রপাতে, না হয় জীবনীশক্তি হারিয়ে গাছটি মারা গেছে। এই গাছটি মারা যাওয়ায় বন থেকে একটি প্রজাতি হারিয়ে গেল। এই গাছটি বেঁচে থাকলে হিসেবের খাতায় বনের একটি প্রজাতির সংখ্যা বেশি থাকত। তিনি বলেন, এর টিস্যুকালচার করে কিছু চারা গাছ সৃষ্টির উদ্যোগ নিয়েছিল বাংলাদেশ বন গবেষণা ইন্সটিটিউট। কিন্তু গবেষকগণ সফল হতে পারেননি।

বন গবেষক খাইরুল আলম বলেন, আমরা ২০০৬ সালে ঝড়ে পরে যাওয়া গাছ থেকে টিসু সংগ্রহের চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু পারিনি। তবে চেষ্টার তো শেষ নেই, বর্তমানে যে গাছটি মারা গেছে এখনো যদি ওই গাছের শীর্ষ অংশ কাঁচা থাকে তাহলে চেষ্ট করে দেখতে পারে। তিনি বলেন, এই প্রজাতিটি শুধু লাউয়াছড়াতেই ছিল। এটি আমাদের দেশি গাছ নয়, ভিনদেশি। তবে দেশি হোক বা বিদেশি এই গাছটি যদি কোন ক্ষতি না করে তাহলে আমাদের সৌন্দর্য্য বর্ধক হয়ে থাকতে কোন ক্ষতি নেই।

বিডি প্রতিদিন

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
     12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31      
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ