মাছ আহরন করার সব আয়োজনে ব্যস্থ হাওর পাড়ের জেলেরা ! 

প্রকাশিত: ৬:৫৩ অপরাহ্ণ, মে ২, ২০২১

মাছ আহরন করার সব আয়োজনে ব্যস্থ হাওর পাড়ের জেলেরা ! 

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ হাওর তীরভর্তি অঞ্চলে যেমন নদ-নদীর তীর কেটে পরিবেশ ধবংস হচ্ছে ঠিক থেমনি করে হাওর বেষ্টিত এলাকায় বর্ষার কালের আনাগোনা শুরুর আগেই মাছ নিধন করার সব অয়োজন করে থাকেন সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার  স্থনীয় জেলেরা।মাছ প্রজনন কাল থেকে শুরু করে মাছের ডিমও নিরাপদ নয় হাওর অঞ্চলে।এক সময় দেশীয় মাছ আমিষের চাহিদা মিটিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে যতেষ্ট ভুমিকা রাখলেও এখন আর তা সম্ভব নয় বল্লেই হয়।বেপরোয়া হয়ে উঠেন অসাধু পেশাদার জেলেরা।চলতি মৌসুম থেকে তিন মাস দেশীয় মাছ শিকার করা প্রশাসনের বিধি নিষেধ থাকলেও এসব বিধিনিষেধ অমান্য করে দেশীয় পোনা মাছ ও মা মাছ আহন করে থাকেন জেলেরা।’

দেশীয় মাছের ডিম দেওয়ার সময় নদীতে জোয়ার আসলেই মা মাছের আভায়নযোগ্য খ্যাত বিশাল টাঙ্গুয়া হাওর, সহ তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন হাওরের বাঁধ ভেঙে ¯্রােতের জোয়ারে নতুন পানি হাওরে  প্রবেশ করার পর ক-মাসের মধ্যেই ডিম দেওয়ার জন্য মা-মাছ তাদের আশ্রয় স্থলে ছুটে  আসে ঝাঁকে ঝাঁকে হাওর গুলোতে।ঠিক তখনি শুরু হয় মাছ আহরনের পায়েতারা। স্থানীয়দের ভাষায় উইজ্যা বা মাছ শিকার করার (হিড়িক) পড়ে যায় উপজেলার হাওর গুলোতে। মাছ শিকার করার জন্য হাওর অঞ্চলের অসাধু জেলেরা বিভিন্ন ভাবে প্রস্তুতি নিয়ে থাকেন।যেমনঃতারা তাদের পুরনো নৌকা মেরামত করা থেকে নতুন নৌকা তৈরীতে ব্যস্থ থাকেন।সেই সাথে নিজেদের কারেন্ট জাল বানরীজাল তৈরি সহ বিভিন্ন ধরনের মাছ ধরার সরঞ্জাম তৈরি করে রাখেন আগে থেকেই।এছাড়াও উপজেলার তাহিরপুর সদর বাজার,বাদাঘাট বাজার,পাশ্ববর্তী ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগর বাজার সহ বিভিন্ন বাজার থেকে নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল ক্রয় করেন হাওর পাড়ের পেশাদার জেলেরা।’

স্থানীয়রা সচেতন মহল জানান,উপজেলার হাটবাজার গুলোতে নিষিদ্ধ কারেন্ট ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ করা সহ সবকটি হাটে নজরদারি বাড়াতে হবে প্রশাসনের।’

প্রজনন মৌসুমের শুরুতেই টাঙ্গুয়া হাওররের নজর খালি খাল থেকে সুলেমানপুর বাজার,শ্রীপুর বাজার,তাহিরপুর সদর বাজার,বাদাঘাট বাজারে কড়া নজর রাখতে হবে যাতে করে পোনা মাছ ক্রয়-বিক্রয় না করতে পারে তারা।এছাড়াও হাওরে নৌযানের মাধ্যমে অভিযান অভ্যাহত রাখতে হবে হাওরের দায়িত্বরত কমিউনিটি গার্ডদের।’

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পদ্মাসন সিংহ বলেন,উপজেলার বিশাল টাঙ্গুয়া হাওর সহ সব গুলো হাওরে বর্ষার শুরু থেকেই পোনা ও মা মাছ শিকার না করার জন্য মাইকিং করা হবে।এছাড়াও হাওরে মাছের উৎপাদন বাড়াতে প্রতি বছরের ন্যায় হাওরে পোনা মাছ অবমুক্ত করা হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ