মানবতায় অনন্য অবদান রাখলেন, ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দিলীপ কান্ত নাথ

প্রকাশিত: ৪:০৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০২০

মানবতায় অনন্য অবদান রাখলেন, ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দিলীপ কান্ত নাথ
গোয়াইনঘাট প্রতিনিধিঃ তখন রাত ২ঃ০০ টা ১৫ অক্টোবর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন দরিদ্র সংবাদকর্মী দুর্গেশ চন্দ্র সরকার বাপ্পী, তাও নরমাল কোনো অসুস্থতা নয় হার্ট অ্যাটাক। এমতাবস্থায় যে কোন পরিবারের মানুষ বিচলিত হয়ে পড়েন। দেখা দেয় মেডিকেল নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা। গভীররাত পরিচিত ডাইভারদের ফোন দেওয়া হয়, এমনকি নিকটবর্তী আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে খোঁজ নেওয়া হয় কেউ সাড়া দেয়নি, মোবাইলের কল কেউ রিসিভ করেনি। মোবাইল রিসিভ না হওয়ারই কথা এত রাতে কেউ জেগেও থাকে না। পরিবারের সব সদস্য উদিগ্ন দিশেহারা, তাৎক্ষণিক ফোন দেন বাংলাদেশ পুলিশের অতন্ত্র প্রহরী সালুটিকর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দিলীপ কান্ত নাথের মোবাইলে, সাথে সাথে মোবাইল রিসিভ হয় সব খুলে বলেন, শোনার পর ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দিলীপ কান্ত নাথ কালবিলম্ব না করে সংবাদকর্মী দুর্গেশ চন্দ্র সরকার বাপ্পীর বাড়িতে চলে যান এবং তদন্ত কেন্দ্রের টহলরত গাড়ি দিয়ে ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যান। শুধু কি তাই ভর্তি সহ প্রয়োজনীয় ঔষধ পত্রের ও ব্যবস্থা করে দেন।২১ অক্টোবর সুস্থ হয়ে দুর্গেশ চন্দ্র সরকার বাপ্পি বাড়িতে আসেন। একেই বলে মানবতা, মানবতার পুলিশ।
দুর্গেশ চন্দ্র সরকার বাপ্পি, সিলেটের গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাবের সাবেক প্রচার সম্পাদক। বর্তমানে তিনি গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাবের কার্যনিবার্হী কমিটির সদস্য। তার পিতা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিন্দ্র চন্দ্র সরকার। তার স্থায়ী ঠিকানা সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা উপজেলার সদর ইউনিয়নের দাসপাড়া গ্রামে। তিনি দীর্ঘ এক যুগ সময় ধরে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার নন্দীরগাওঁ ইউনিয়নের মিত্রিমহল গ্রামে বসবাস করে আসছেন। গত ১৫ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) দিবাগত রাত দেড়টায় হঠাৎ তার হার্ট এ্যাটাক হয়।
পুলিশের এই মহানুভবতার বিষয়টি অত্যন্ত আন্তরিকতা ও শ্রদ্ধার সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন, দূর্গেশ চন্দ্র সরকার বাপ্পির ছোট ভাই ঝলক চন্দ্র সরকার।
দিলীপ কান্ত নাথ বলেন, একজন মানুষ হিসেবে আমি তাঁর বিপদে এগিয়ে এসেছি। করোনা পরিস্থিতিতে আমাদের পরিবার-পরিজন ফেলে আমরা মাঠে কাজ করছি, আমি সেটা ভেবেই মানবিক দায়িত্ববোধ থেকে দায়িত্ব পালন করেছি। ভাল লেগেছে আমার কষ্ট স্বার্থক হয়েছে, আমরা যেন মানবিক পুলিশ সদস্য হয়েই মানুষের মাঝে বেঁচে থাকতে পারি।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ