মৌলভীবাজারে প্রথম ‘গোল্ডেন বাটন’ অর্জন করলেন মোর্শেদ

প্রকাশিত: ৮:১৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০২০

মৌলভীবাজারে প্রথম ‘গোল্ডেন বাটন’ অর্জন করলেন মোর্শেদ

স্বপন দেব, নিজস্ব প্রতিবেদক :: মিলিয়ন সাবসক্রাইবারপূর্ণ করে ইউটিউবের সম্মানসূচক গোল্ডেন প্লে বাটন অর্জন করলো জেলার রাজনগরের ছেলে মোর্শেদ হাসানের ইউটিউব চ্যানেল। এক মিলিয়ন সাবসক্রাইবারের মাইলফলক অর্জন করেছে তার ইউটিউব চ্যানেল ‘টেক নো’।
সিলেটি ইউটিউবারদের মধ্যে তিনিই প্রথম যিনি ইউটিউবে ১০ লাখ সাবসক্রাইবার অর্জন করেছেন। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ‘টেক নো’ নামের এই চ্যানেলে ১ লাখ সাবসক্রাইবার পূর্ণ হলে সিলেট বিভাগে প্রথম সিলভার বাটন অর্জন করেছিলেন মোর্শেদ। তাছাড়া তাঁর নিজের নামে ‘মোর্শদ হাসান’ ইউটিউব চ্যানেল থেকে ২০১৯ সালে আরেকটি সিলভার বাটন অর্জন করেন । তাঁর ‘টেক নো’ চ্যানেলে ১০ লাখ সাবসক্রাইবার পূর্ণ হওয়ায় চলতি মাসে তিনি গোল্ডেন বাটন অর্জন করেছেন। এই গোল্ডেন বাটন সিলেট বিভাগের ইউটিউবারদের মধ্যে প্রথম এমনটাই জানিয়েছেন মোর্শেদ।
মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার বালিগাঁও গ্রামের মোর্শেদ ২০১৩ সালে প্রথমে ইউটিউবে একটি গেইমিং চ্যানেল খোলেন সেই থেকে শুরু। পরবর্র্তিতে তিনি ২০১৬ সালে শিশুদের উপযোগি কন্টেন্ট তৈরি করতে থাকেন। এতে ভালই সাড়া পান। পাশাপাশি ইউটিউব থেকে ইনকাম হতে থাকে।
মোর্শেদ জানান, তাঁর এই সাফল্যের পেছনে দীর্ঘ দিনের পরিশ্রম যুক্ত। প্রথম দিকে নানান সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে৷ টেকনোলজি তেমন বুঝতেন না। ধীরেধীরে তিনি সব আয়ত্বে আনেন। এমন কি গ্রামে একসময় ইন্টারনেট সুবিধা তেমন ভালো ছিল না। ২ জি নেটওয়ার্ক দিয়ে ইউটিউব চালাতে হতো। সেই জায়গা থেকে ইউটিউব চ্যানেলটি এই অবস্থানে নিয়ে এসেছেন।
মোর্শেদের এই সাফল্য দেখে অনেক তরুণ উদ্ভুদ্ধ হচ্ছেন। ইউটিউব থেকে আয়ের আলাদা মাধ্যম হিসাবে অনেকেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
এ বিষয়ে মোর্শেদ জানান, ইউটিউবে চ্যানেল খুললেই ইনকাম হয়না। এ ক্ষেত্রে ভালো কন্টেন্ট তৈরি করতে হয় এবং লেগে থাকতে হয়, তবেই সাফল্য আসবে। তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে গ্রামে বসবাস করেও সাফল্য পাওয়া যায় তাঁর উদাহরণ মোর্শেদ হাসান। তরুণ মোর্শেদ ভালো কন্টেন্ট তৈরি করে ইউটিউব থেকে ইনকাম করে যেমন সাফল্য পেয়েছেন, তেমনি সিলেটের প্রথম ইউটিউবারের স্বীকৃতি ২টি সিলভার বাটন ও ১ টি গোল্ডেন বাটন অর্জন করেছেন।
১ মিলিয়ন সাবসক্রাইব উপলক্ষে মোর্শেদ হাসান সাংবাদিক দের সাথে মতবিনিময় করেন। সেসময় তার সাথে ছিলেন তার নিজ গ্রামের আব্দুল হান্নান, মহিদুর রহমান, আব্দুর রব, তুহিনুর রশিদ জুবায়ের।

 

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ