রাজনগরে বয়স্ক বিধবা নারী গণধর্ষণের শিকার

প্রকাশিত: ৪:১৩ অপরাহ্ণ, জুন ১০, ২০২০

রাজনগরে বয়স্ক বিধবা নারী গণধর্ষণের শিকার

স্বপন দেব, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলায় এক বিধবা (৫৫) গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এলাকার তিনজন মিলে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে াবি করেছেনুই সন্তানের জননী ওই বিধবা নারী । ঘটনার পর ওই নারী মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (৪ জুন) রাতে উত্তরভাগ ইউনিয়নের পূর্ব সুরীখাল গ্রামের সনাতন ধর্মালম্বী এক বিধবা নারী (৫৫) প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরে যান। এসময় পূর্ব হতে ওৎ পেতে থাকা একই গ্রামের সুধীর বিশ্বাসের ছেলে বিজয় বিশ্বাস (২৫), মনসুর মিয়ার ছেলে সালমান শাহ (২০) সহ ৩ জন যুবক তার মুখ চেপে ধরে পাশের কচুক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে ওই তিন যুবক পালাক্রমে তাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণ শেষে চলে যাওয়ার সময় তিনি তাদের চিনতে পেরে নাম ধরে চিৎকার করেন।

চিৎকার করায় ধর্ষকরা ওই নারীকে গলাটিপে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। এ সময় পাশের কুশিয়ারা নদীতে মাছ ধরতে যাওয়া কয়েকজন তার গোঙানির শব্দ শুনে এগিয়ে আসেন। জেলেদের এগিয়ে আসা বুঝতে পেরে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়।

পরে ওই নারীকে উদ্ধার করে বাড়িতে পাঠানো হয়। পরদিন স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানকে জানানো হলে তাদের পরামর্শে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যার হাসপাতালে ভর্তি তাকে করা হয়। এ ঘটনায় ওই নারী রাজনগর থানায় শ্লীলতাহানীর অভিযোগ করেছেন। তবে ধর্ষণের শিকার ওই নারীর াবী, তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে তিন যুবক। তিনিুজনকে চিনতে পরলেও একজনকে চিনতে পারেন নি।

স্থানীয়রা জানান, ধর্ষণের ঘটনায় যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তারা আগে থেকেই গ্রামের নারীদের উত্ত্যক্ত করে আসছিল। এছাড়া এলাকায় চুরিসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত হয়ে এলাকাবাসীকে অতিষ্ট করে তুলেছে তারা। এর আগে গ্রামের এক নারীর (৩০) ঘরে ঢুকলে তিনি চিৎকার করেন। পরে তারা তাদের ব্যবহৃত কিছু জিনিস ফেলে পালিয়ে গেলে স্থানীয় প্রবীনদের জানানোর পরও ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। অভিযোগকারী ওই নারী বলেন, আমার ঘরে ঢুকার পর এলাকার মুরব্বিদের প্রমাণসহ বলার পরও বিচার করেননি। আগে থেকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে এ ধরনের ঘটনা ঘটতো না।

এদিকে লিখিত অভিযোগ পেয়ে রাজনগর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) বিনয় ভূষণ চক্রবর্তী বলেন, ওই নারী প্রথমে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ দিয়েছিলেন। ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতেই আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। তিনি এখন আবার নতুন করে অভিযোগ দিচ্ছেন।

রাজনগর থানার ওসি মো. আবুল হাসিম বলেন, ওই মহিলা লিখিত অভিযোগে শ্লীলতাহানীর কথা উল্লেখ করেছেন, ধর্ষণের কথা আগে উল্লেখ করেননি। এখন বলছেন তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে এমন অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ