‘সকল শর্ত পূরণ করেই বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি লাভ করেছে’

প্রকাশিত: ৬:৫৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৭, ২০২১

‘সকল শর্ত পূরণ করেই বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি লাভ করেছে’

অনলাইন ডেস্ক:: সিলেট বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার মো মশিউর রহমান এনডিসি বলেছেন, বাংলাদেশ কারো আনুকূল্যে নয়-জাতিসংঘের সকল শর্ত পূরণ করেই উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। এই অর্জন দায়িত্ব বাড়িয়ে দিয়েছে সবার। নিজ নিজ জায়গা থেকে সেই দায়িত্ব পালন করে ২০৪১ সালে সমৃদ্ধ স্বদেশ গড়ার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনারবাংলা প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

শনিবার সকালে সিলেট জেলা স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে জেলা প্রশাসন আয়োজিত দুদিনব্যাপী ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি : স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনী পর্বে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

বিভাগীয় কমিশনার বলেন, ২০০৮ সালের আগে বাংলাদেশে কেউ সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ও কর্মসূচি ঘোষণা করে জনগণের রায় নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনায় আসেনি। বঙ্গবন্ধু-কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনী অঙ্গীকার পূরণ করে দেশ ও দেশবাসীর মর্যাদা অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, পুলিশের উপ মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদউদ্দিন পিপিএম এবং আওয়ামী লীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান ও মহানগর সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন। সঞ্চালনায় ছিলেন, জেলা সাংস্কৃতিক কর্মকর্তা অসিত বরণ দাশগুপ্ত। এছাড়া নৃত্যশৈলী, রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদ ও নজরুল সংগীত শিল্পী পরিষদ নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করে।

বিশেষ অতিথি রেঞ্জ ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, বাংলাদেশে এমন কোন ক্ষেত্র নেই যেখানে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়নি। আমরা এখন স্যাটেলাইটের মালিক। বিশ্বের উন্নয়নকামী অন্যান্য দেশ আমাদেরকে অনুসরণ করছে। নিজের টাকায় পদ্মাসেতু তৈরি করেছি। আমাদের শৈশবে দেখা মানুষের দুঃখ-কষ্ট, অভাব-অনটন কিংবা অনাহার-অর্ধাহার এখন নেই।

বিশেষ অতিথি সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদউদ্দিন পিপিএম বলেন, বঙ্গবন্ধু জাতিকে স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন আর বঙ্গবন্ধু-কন্যা সেই স্বপ্ন পূরণ করছেন।
তিনি করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় যথাসময়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, প্রবাসীদের মাধ্যমে রেমিট্যান্স প্রবাহ বৃদ্ধি, গণমাধ্যমের বিকাশ, কৃষিতে বিপ্লব সাধন, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমান বাহিনী, বিজিবি ও পুলিশের আধুনিকায়ন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন ইত্যাদি বিষয় তুলে ধরে অন্তর দিয়ে দেশের সার্বিক অগ্রযাত্রাকে উপলব্ধি করার আহ্বান জানান।

আওয়ামী লীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসেছে বলেই বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের ‘রোল মডেল’। সিলেটে কেন্দ্রীয় কারাগার নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে ম্যারিন একাডেমি। আইসিটি পার্ক হচ্ছে। পূর্ণাঙ্গ রূপ পেয়েছে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর। এছাড়া সিলেট-ঢাকা মহাসড়ককে ৬ লেনে উন্নীত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন বলেন, জিয়াউর রহমান স্বাধীনতাবিরোধী শাহ আজিজুর রহমানকে প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছিলেন আর খালেদা জিয়া মন্ত্রী করেছিলেন মানবতাবিরোধী অপরাধী মতিউর রহমান নিজামী ও আলী আহসান মুজাহিদকে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত এখনো শেষ হয়নি। তাই সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বলেন, একসময় বাংলাদেশে অনেক মানুষের দিনে তিনবেলা খাওয়ার ব্যবস্থা ছিলনা। এখন একবেলাও উপবাসে থাকেনা কোন মানুষ। এমনকি করোনা পরিস্থিতিতেও কাউকে না খেয়ে থাকতে হয়নি। এই কৃতিত্ব বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার। বর্তমান সরকার প্রতিটি মানুষের অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা ও বাসস্থান নিশ্চিত করছে।তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিনবদলের সনদের ফলেই দেশের এই অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। জেলা প্রশাসক বলেন, একাত্তরে দেশ স্বাধীন করতে পেরেছি। ২০২১ সালের দেশকে উন্নয়নশীল দেশ করতে পেরেছি। ২০৪১ সালে সমৃদ্ধ দেশও গড়তে পারবো।

আলোচনা পর্ব শেষে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্রকাশিত ‘প্রকৃতিকন্যা সিলেট’ এর প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

এর আগে সকালে সিলেট কেন্দ্রীয় শহিদমিনার থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে জেলা স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয়।
এখানে বেলুন উড়িয়ে দুই দিন ব্যাপী সিলেট জেলা প্রশাসনের এই বর্নাঢ্য অনুষ্ঠানের শুভ সুচনা করা হয়।

শোভাযাত্রায় অন্যদের মধ্যে অংশ নেন, বিভাগীয় কমিশনার মো. মশিউর রহমান এনডিসি, পুলিশের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা ভবতোষ রায় বর্মণ রানা, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি, দৈনিক সিলেটের জমিনের উপদেষ্টা সম্পাদক আল আজাদ, সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহিত চৌধুরী, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি মিশফাক আহমদ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক রজতকান্তি গুপ্ত। এছাড়া বিভিন্ন সরকারি দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, স্কাউটস ও শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
     12
17181920212223
24252627282930
31      
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ