সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কল্যাণে কাজ করছে ক্যাপ ফাউন্ডেশন

প্রকাশিত: ৬:৫০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২০

সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কল্যাণে কাজ করছে ক্যাপ ফাউন্ডেশন

সিলেট বিভাগের প্রত্যন্ত অঞ্চলের আর্তসামাজিক অবস্থার কাঙ্খিত পরিবর্তন সাধনে এবং আত্মনির্ভরশীল, সুখী ও সমৃদ্ধশালী অবক্ষয়মুক্ত সমাজ গঠনে কাজ করে যাচ্ছে ক্যাপ ফাউন্ডেশন। বৃহস্পতিবার নগরীর একটি রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান ফাউন্ডেশনের নেৃতৃবন্দ। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ফাউন্ডেশনের প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর মো. দেলোয়ার হোসেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, বিত্তবান বাংলাদেশি ও প্রবাসীদের অর্থায়নে পরিচালিত কমিউনিটি এগেইনস্ট পভারটি- ক্যাপ একটি টেকসই অর্থনীতি ও সমাজ নির্মাণের লক্ষে জাতি, ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষকে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, ক্যাপ ফাউন্ডেশন ২০১২ সাল থেকে তার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে ক্যাপ। এরমধ্যে রয়েছে সমাজের অবহেলিত অস্বচ্ছল পরিবারের মধ্যে কর্ণারশপ প্রদান, হাওর অঞ্চলের অস্বচ্ছল জেলে পরিবারের মধ্যে নৌকা এবং মাছ ধরার সামগ্রী বিতরণ, বিশুদ্ধ পানির জন্য টিউবওয়েল / নলকূপ এর ব্যাবস্থা করা, প্রি-প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করে শিশুদের পাঠদান করা, মসজিদ ও মাদ্রাসা নির্মান এবং অসহায় অবহেলিত দরিদ্র পরিবারকে গৃহ নির্মান করে দেয়া।
এছাড়াও পবিত্র মাহে রমজানে অস্বচ্ছল হত দরিদ্র পরিবারকে চাল, ডাল, তৈল, লবণ, পেঁয়াজ, ছানা, আলু ও খেজুর ইত্যাদি প্রদান করা। বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও মহামারীতে ডাক্তার ও স্বাস্থ্য কর্মীদের মধ্যে পিপিই, কেএন -৯৫ মাস্ক বিতরণ এবং বিভিন্ন হাসপাতাল ও সরকারি বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে জীবানু নাশক টানেল স্থাপনের ব্যাবস্থা করা। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য খাদ্য সামগ্রী, বিশুদ্ধ পানির জন্য নলকূপ স্থাপন, স্যানিটরী এবং তাদের শিশুদের জন্য প্রি-প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন ও গর্ভবতী মায়েদের জন্য এন্টিনেটাল হাসপাতাল স্থাপন।
তিনি আরও বলেন, সিলেট সদর উপজেলায় একটি “অরফানেজ ভিলেজ” নতুন কর্মসূচি শুরু করতে যাচ্ছি। এরই ধারাবহিকতায় ১৬ অক্টোবর সিলেট জেলার জৈন্তাপুর উপজেলার চারিকাটা ইউনিয়নের কাদল গ্রামে একটি কমিউনিটি মসজিদের উদ্বোধন করা হবে। পর্যায়ক্রমে গোয়াইনঘাট উপজেলায় দুইটি মসজিদ ও একটি মাদ্রাসা, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় একটি মসজিদ, সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলায় একটি মসজিদসহ মোট পাঁচটি মসজিদ ও একটি মাদ্রাসা উদ্বোধন করা হবে। ১৭ অক্টোবর সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার হাকালুকি হাওরের পারে বিভিন্ন গ্রামে বসবাসরত হতদরিদ্র ও অস্বচ্ছল পঞ্চাশটি জেলে পরিবারের মধ্যে নৌকা ও মাছ ধরার সামগ্রী বিতরণের কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। ১৮ অক্টোবর জৈন্তাপুর উপজেলায় একটি কর্ণার শপ এবং পর্যায়ক্রমে সিলেট সদর উপজেলা, কোম্পানিগঞ্জ উপজেলা, সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলাসহ সাতটি কর্ণার শপ ও একটি কমিউনিটি ওয়াটার ওয়েল উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। এছাড়াও ১৯ অক্টোবর জৈন্তাপুর উপজেলায় কমিউনিটি ওয়াটার ওয়েল ও একটি নতুন কমিউনিটি মসজিদের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন হবে । সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ, ফাউন্ডার এবং সিইও আব্দুন নূর মতিন, হেড মেন্টাল হেলথ প্রজেক্ট পলি ইসলাম, এডভাইজার এম্বেসেডার শেখ কাউসার আলী, প্রজেক্ট ভিডিওগ্রাফার আব্দুল মতিন মেট প্রমুখ।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ