সিলেট-লন্ডন বিশেষ ফ্লাইটের টিকিট নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ ভিত্তিহীন

প্রকাশিত: ৬:২১ অপরাহ্ণ, জুলাই ৬, ২০২০

সিলেট-লন্ডন বিশেষ ফ্লাইটের টিকিট নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ ভিত্তিহীন

সিল-নিউজ-বিডি ডেস্ক :: সিলেট-লন্ডন বিশেষ ফ্লাইটের টিকিট নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ করেছিলো সিলেটের কিছু ট্রাভেল এজেন্সি। বিমান কর্তৃপক্ষ তাদের এই দাবীকে ভিত্তিহীন বলে নাকচ করে দিয়েছে।

সিলেটের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স জেলা ব্যবস্থাপক শাহনেওয়াজ মজুমদার বলেন, জাতীয় পতাকাবাহী একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এমন কল্পনাপ্রসুত বক্তব্য দু:খজনক।

বিমান সূত্রে জানা যায়, গত ২৯ জুন সিলেট অঞ্চলের অ্যাটাব নেতৃবৃন্দ বিমান সিলেটের জেলা ব্যবস্থাপক শাহনেওয়াজ মজুমদারের সাথে বৈঠকে বসেন। এবং সিলেট লন্ডন একটি বিশেষ ফ্লাইট -এর ব্যবস্থা করতে বলেন। শাহনেওয়াজ মজুমদার ঢাকার সাথে দেনদরবার করে ফ্লাইটটির ব্যবস্থা করেন। বিমান কর্তৃপক্ষ প্রথমে ১লক্ষ ৪০ হাজার ভাড়া দাবী করলেও শাহনেওয়াজ মজুমদার অনুরোধ করে এটি ১লক্ষ ২০ হাজারে নিয়ে আসেন। অ্যাটাব নেতৃবৃন্দও এতে সম্মতি জানান।

যথারীতি ২ জুলাই রাতে বিমান সিলেট অফিস ইমেইল পায় ৩ জুলাই শুক্রবার দুপুর ২টা থেকে এই ফ্লাইটের টিকেট বুকিং ওপেন হবে। বিমান অফিস থেকে রাতেই ইমেইল করে সংশ্লিষ্ট সকলকে জানিয়ে দেয়া হয়।

আশ্চর্যজনকভাবে ৩ জুলাই শুক্রবার দুপুর ২টা ৫ মিনিটের সময় ১৩০টি সিটের সব কয়টি সিট বুকিং হয়ে যায়।

পরবর্তিতে এফবিসিসিআই পরিচালক খন্দকার সিপার আহমদসহ যারাই টিকেটের জন্য সিসটেমে ঢুকেন তারা কেউ আর টিকেট বুকিং দিতে পারেননি।

পরবর্তিতে সিলেট অঞ্চলের অ্যাটাব ও হাব চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন বাবুল বিমানের বিশেষ ফ্লাইটের টিকিট বিক্রিতে দুর্নীতির অভিযোগ করে বলেন তারা টিকেট বুকিং দিতে পারেন নাই।

তাদের এই অভিযোগের সত্যতা খুজে পায়নি। জিডিএস সিসটেম থেকে টিকেট বুকিং-এর যে তথ্য পাওয়া যায় তাতে দেখা যায় দুইটি ট্রাভেল এজেন্সি ১৩০টি সিটের মধ্যে শতাধিক সিট বুকিং দেয়।

সুমা ইন্টারন্যাশনাল ৩ জুলাই প্রথম বুকিং করেন ৩১টি সিট। পরে বাতিল করেন ২৮টি। এর পর বিভিন্ন লিংকের মাধ্যমে আরো ৩৫টি সিট বুকিং করে।

লতিফ টেভেলস প্রথম বুকিং করেন ২৮ পরে বাতিল করেন ২০টি। পরবর্তিতে আরো ২২ টি সিট বুকিং করে বাতিল করেন। ঐদিন যারা বিমানের সিট বুকিং দিয়ে ছিলেন তাদের সকলের তথ্য দৈনিক সিলেটের হাতে আছে।

এ থেকে স্পস্ট বোঝা যায় এই বিশেষ ফ্লাইটের টিকিট বিক্রিতে বিমানের কোন দুর্নীতির কোন অবকাশ নেই।

এদিকে, বিমানের বিশেষ ফ্লাইটের টিকিট বিক্রিতে দুর্নীতির কথা অস্বীকার করে বিমানের জেলা ব্যবস্থাপক জানান, সিলেটের এজেন্সিগুলো প্রথমে সব সিট বুকিং করে ফেলে, বুকিং করে এখন আর টিকিট ইস্যু করে না। ওদের অভিযোগ ঠিক না। এখানে তো আমরা সিট রাখি নাই, যে যেখানে পাবে সিট সেল করবে। ওপেন টু অল। ইতোমধ্যে সব টিকেট বিক্রি হয়ে গেছে।

এদিকে সিলেট বিমানের জেলা ব্যবস্থাপক শাহনেওয়াজ মজুমদারকে জড়িয়ে এমন অসত্য অভিযোগে সিলেটের স্থানীয়রা চরমভাবে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। তারা বলেন শাহনেওয়াজ মজুমদার অত্যন্ত অমায়িক এবং হেল্পফুল পার্সন। তাকে নিয়ে এ ধরনের কাল্পনিক অভিযোগ দু:খজনক।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ