সি আর দত্তকে নিয়ে শুভ্র দেবের স্মৃতি

প্রকাশিত: ২:৪৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৫, ২০২০

সি আর দত্তকে নিয়ে শুভ্র দেবের স্মৃতি

অনলাইন ডেস্ক : যুদ্ধ করে দেশকে শত্রুমুক্ত করা, ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অধিকার প্রতিষ্ঠা- এমন নানা ভূমিকায় জীবনভর অকুতোভয় সেনা ছিলেন চিত্ত রঞ্জন দত্ত (সি আর দত্ত)। আজ সকালে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই বীরের মৃত্যু সংবাদ, নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

শোকের এই ছায়া পড়েছে সংগীতশিল্পী শুভ্র দেব’র মনেও। বিমর্ষক্লিষ্ট এই পারিবারিক ঘনিষ্ঠজন স্মৃতিচারণ করেছেন সি আর দত্তকে নিয়ে।

জনপ্রিয় এই শিল্পীর গহীন ভেতরে একটি বিশেষ জায়গা রয়েছে তাঁর প্রিয় দত্ত দাদুর জন্য। শুভ্র দেব বলেন, ‘দত্ত দাদুকে অনেক শক্তিশালী মনে করতাম ছোটবেলা থেকেই; কখনো ভাবিনি দাদুকে আর কখনো দেখব না। আমাদের পারিবারিক সব অনুষ্ঠানে আসতেন দাদু। আমার ছেলের জন্ম হলো। খবর পেয়েই তিনি আমার বাসায় আসলেন দেখতে।’

সি আর দত্তকে নিয়ে নিজের শৈশবের স্মৃতি তুলে ধরতে গিয়ে বলেন, আমি যখন স্কুলে পড়ি তখন সিলেটে মাঝে মাঝে আসতেন আমাদের কাস্টঘরের বাসায়। এসেই আমার মায়ের নাম ধরে ডাকতেন ‘আরতি কইরে’। আমার মা উনাকে ‘রাখাল মামা’ ডাকতেন।

শুভ্র বলেন, ৭১-এ মুক্তিযুদ্ধের সময় আমরা তখন ঢাকা দক্ষিণে কালি প্রদীপ মামাদের বাসায়। কেবল দত্ত দাদুর কল্যাণে অনেকগুলো পরিবার তখন পাক সেনাদের হাত থেকে বেঁচে যাই। দাদু ইন্টেলিজেন্স রিপোর্ট পান যে চৌধুরীদের জমিদার বাড়ি গানপাউডার দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হবে। তখনই আমার মামা সুজেয় শ্যামকে দিয়ে কয়কেটি বাস পাঠিয়েছিলেন দাদু, তাই রক্ষা পেয়েছিলাম আমরা।

পাকিস্তানি শাসকদের বিরুদ্ধে দাদুর সাহসী ভূমিকা প্রসঙ্গে শুভ্র বলেন, ‘আমি তখন অনেক ছোট। দত্ত দাদু পাকিস্তানে একটি মিটিংয়ে। মিটিংয়ের ভেতর তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান সংখ্যালঘুদের নিয়ে কটূক্তি করেন। দত্ত দাদু এর তীব্র প্রতিবাদ করেন।’

শুভ্র দেব বলেন, দত্ত দাদু ছিলেন একজন অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধা। আমাকে অনেক বেশি আদর করতেন। দেখা হলেই পিঠে জোরে চাপট মেরে বলতেন, ‘আমার নাতি, আই এম প্রাউড অব ইউ।’ আমার মা যখন চলে যান পৃথিবী ছেড়ে তখনও দাদু আমাদের বাসায় এসে সমবেদনা জানান। ঈশ্বর যেন দাদুকে স্বর্গবাসী করেন।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ