সুনামগঞ্জে জলমহাল নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ২৫, আটক ১০

প্রকাশিত: ৬:০৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০২০

সুনামগঞ্জে জলমহাল নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ২৫, আটক ১০

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় জলমহাল কেন্দ্র করে পূর্ববিরোধের জেরে দুপক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায় গ্রামের মাঠে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পশ্চিম বীরগাওঁ ইউনিয়নের উপ্তিরপাড় গ্রামের পাশে মনুকাটা জলমহাল নিয়ে মো. আলী আহমদ ও ফারুক আহমদ গংয়ের সঙ্গে মনুকাটা জলমহাল নিয়ে একই গ্রামের মো. আমির আলী ও হযরত আলী গংয়ের বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে বেশ কয়েকমাস ধরেই উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছিল। এই বিরোধকে কেন্দ্র করেই বৃহস্পতিবার এ সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। এতে উভয়পক্ষের ২৫ জন আহত হন।

আহতদের মধ্যে আলী আহমদের পক্ষের লোকদের মধ্যে রয়েছেন- উপ্তিরপাড় গ্রামের মো. উস্তার আলীর ছেলে আলী পাশা (৩০), মাছিম উল্ল্যার ছেলে মো. ফয়জুল হক (৩২), মৃত আব্দুল বারিকের ছেলে মো. ফরিদ মিয়া (৩৫) উল্লেখযোগ্য।

অপরদিকে মো. আমির আলীর পক্ষের আহতরা হলেন- মো. হযরত আলী (৪০); তিনি একই গ্রামের মৃত শওকত আলীর ছেলে, তার সহোদর মো. ছায়েদ আলী (৪৫) ও আমির আলীসহ (৫০) আরও ১৩ জন। বাকি আহতদের নাম পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

এদের মধ্যে হযরত আলীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে দ্রুত সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ দিকে, এই সংঘর্ষের ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে এবং প্রতিপক্ষকের লোকজনকে ফাঁসাতে গিয়ে হযরত আলীর পক্ষের মো. কদর আলী তার আপন বড়ভাই ওসমানী আলীর স্ত্রী লতিফা বেগমকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে। এ ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষণিক কদর আলীকে আটক করেছে।

এ ব্যাপারে আলী আহমদের পক্ষের মো. আলী আমজদ জানান, মো. আমির আলী ও হযরত আলী গ্রামের পাশে মনুকাটা জলমহালটি গত ১৩ বছর ধরে অবৈধভাবে দখলে রেখে মাছ চাষ করে আসছিল। গ্রামবাসী এতে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলেও তারা অর্থের জোরের কাছে লোকজন ছিলেন অসহায়।

অপরদিকে অভিযুক্ত আমির আলী বলেন, এই আলী আহমদ ও ফারুক মিয়া গং পুরো গ্রামবাসীকে একত্রিত করে আমাদের বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছিল। আমরা প্রায় সময়ই ঘর থেকে বের হতে পারছিলাম না।

১৩ বছর ধরে বিলটি অবৈধভাবে দখলে রাখার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এই জলমহাল অবৈধভাবে ফিসিং করা হয়নি। সরকার থেকে লিজ নিয়েই মাছ চাষ করা হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের ফেইসবুক পেইজ