সুনামগঞ্জে ১১ উপজেলা প্লাবিত: মোকাবেলায় ৭৮টি আশ্রয়কেন্দ্র, চাল বরাদ্দ

প্রকাশিত: ৫:১২ অপরাহ্ণ, জুন ২৯, ২০২০

সুনামগঞ্জে ১১ উপজেলা প্লাবিত: মোকাবেলায় ৭৮টি আশ্রয়কেন্দ্র, চাল বরাদ্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক :: অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের নদ-নদীর পানি বাড়ছে। সুরমা নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করেছে। এ পর্যন্ত জেলার ১১টি উপজেলা প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে জেলার কয়েক লাখ মানুষ।

গতকাল রোববার সকাল ৯টায় সুরমা নদীর পানি বিপৎসীমার ৭০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল। আজ সোমবার নদ-নদীর পানি আরো বাড়ছে। তবে কমেছে বৃষ্টি।

অতিবৃষ্টি না হলে সুনামগঞ্জে পানি কমতে শুরু করবে এমন ধারণা করছেন সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের দায়িত্বশীলরা।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড ও জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গত ৭২ ঘণ্টার ভারতের মেঘালয় ও চেরাপুঞ্জিতে ৪৯৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হওয়ায় গতকাল সকাল ৯টায় সুরমা নদীর পানি ৭০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে।

এতে করে প্লাবিত হয়েছে জেলা সদর উপজেলা, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা, তাহিরপুর উপজেলা, জামালগঞ্জ উপজেলা, ছাতক উপজেলা, দোয়ারাবাজার উপজেলা, শাল্লা উপজেলা, ধর্মপাশা উপজেলা ও জগন্নাথপুর উপজেলার ৩২টি ইউনিয়ন। এর মধ্যে আশ্রয়কেন্দ্র খুলা হয়েছে ৭৮টি। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে জেলার প্রায় লক্ষাধিক মানুষ।

এদিকে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৪’শ ১০ মেট্রিকটন জিআর চাল, ২৯ লাখ ৭০ হাজার টিআর নগদ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে সুনামগঞ্জ শহরের ষোলঘর, কাজীর পয়েন্ট, হাছননগর, উকিলপাড়া, উত্তর আরপিননগর, তেঘরিয়া, বড়পাড়াসহ পুরো শহরে সড়কে হাটু পানির উপড়ে। ব্যাহত হচ্ছে চলাচলও। তবে অধিকাংশ বাসা-বাড়িতেও পানি ওঠেছে।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সবিবুর রহমান জানান, ভারতের মেঘালয়-চেরাপুঞ্জিতে অস্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হওয়ায় সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে। গতকাল সকাল ৯টায় সুরমা নদীর পানি বিপৎসীমার ৭০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল। আজ নদ-নদীর পানি আরো বাড়ছে। কাল থেকে পানি কমার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন, অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে বাড়ছে নদ-নদীর পানি। প্লাবিত হয়েছে সুনামগঞ্জে ১১ উপজেলা। শহরের অনেক এলাকাও প্লাবিত হয়েছে। আমরা প্রতিটি উপজেলাসহ প্লাবিত এলাকার মানুষদের উদ্ধার করে আশ্রয়কেন্দ্র পাঠাচ্ছি। প্লাবিত এলাকার মানুষেরকে সুকনো খাবারেরও ব্যবস্থা করেছি। বন্যা মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের পুরো প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানান তিনি।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ