হঠাৎ করে উড়ে এসে নেতা হওয়া যায়না : কাউন্সিলর আজাদ (ভিডিও)

প্রকাশিত: ১:৩৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০১৯

হঠাৎ করে উড়ে এসে নেতা হওয়া যায়না : কাউন্সিলর আজাদ (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদক : যুবলীগকে দেশের অন্যতম চালিকাশক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে হলে যোগ্য নেতৃত্বের বিকল্প নেই। হাইব্রিড নেতা দিয়ে সংগঠন চলেনা। সংগঠন করতে হলে সাংগঠনিক দক্ষতা থাকা চাই। আর সেই কাজটি করতে হলে সংগঠনের পতাকাতলেই থাকতে হবে-এবং দুর্যোগ মোকাবেলায় পরীক্ষা দিতে হবে প্রত্যেককে। জেলা যুবলীগের সম্মেলনেকে সামনে রেখে এমন অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছেন জেলা যুবলীগের বর্তমান কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ।

তিনি বলেন, মুজিবাদর্শের রাজনীতির দীক্ষা নিয়েছি ছাত্রজীবনেই। দুর্যোগ ও সংকট মোকাবেলায় সরব থেকেছি রাজপথে। নির্যাতিত হয়েছি একাধিকবার। তবুও হাল ছাড়িনি। রাজপথে সরব থেকে এক ঝাঁক উদ্যমী কর্মীর ভালোবাসাকে সাথে নিয়ে মোকাবেলা করেছি অসংখ্য প্রতিবন্ধকতার। ধাপে ধাপে পরীক্ষা দিয়েছি নেতৃত্বের। নিষ্টা, সততা এবং দলও কর্মীবান্ধব থাকার সুবাধে ছাত্রলীগ থেকে যুবলীগ এবং যুবলীগ থেকে আজ মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি। দু:সহ ওয়ান ইলেভেনের স্মৃতি স্মরণ করে সাবেক নির্যাতিত এই ছাত্রনেতা বলেন, মোট কথা তৎকালীন যুবলীগের আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়েই মাঠ পর্যায়ে আওয়ামী রাজনীতির একটি সুবাতাস ছিল সর্বত্র-যার ফলে তখন কালো মেঘ সরে গিয়ে জাতির পিতার সুযোগ্য কণ্যার নেতৃত্বে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ।

কাউন্সিলর আজাদুর রহমান তাঁর সময়কালীন যুবলীগের স্মৃতি স্মরণ করে বলেন, ২০০৩ সালের ৩০ জুলাই সিলেট জেলা যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেই সম্মেলনেই প্রথম সরাসরি কাউন্সিলররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে জেলা যুবলীগের নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত করে। সম্মেলনে জগদীশ চন্দ্র দাসকে সভাপতি এবং আমাকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। পরবর্তী নাগরিক প্রয়োজনে রাজনীতির প্রয়োজনে জনসেবার উদ্দেশ্যে ব্রতী হলে যুবলীগের পদ ছেড়ে কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হই। তার পরের ইতিহাস প্রত্যেকেরই জানা।

একান্ত সাক্ষাতকারে আজাদুর রহমান আজাদ বলেন, ১১ বছর যাবত যুবলীগে নেই। সেই শুন্যতা এখনও রয়ে গেছে যুবলীগে। এবার নি:সন্দেহে জেলা সম্মেলনের মধ্য দিয়ে যোগ্য নেতৃত্ব

তিনি বলেন, হাইব্রিডরা দলের জন্য হুমকীস্বরূপ। কর্মীদের সতর্ক করে তিনি বলেন, ত্যাগীরা নেতা নির্বাচিত হলে দল বিক্রী হয়না। কিন্তু হাইব্রিডরা নেতা হলে নিজেদের আখের গোছানোর সাথে সাথে সংগঠনকেও গিলে ফেলে। যারা শুরু থেকেই মুজিবাদর্শ বয়ে বেড়ায়, তাদের হাতে নেতাকর্মীরা তাকে সুরক্ষিত। হঠাৎ করে উড়ে এসে নেতা হওয়া যায়না-মেধা, যোগ্যতা এবং রাজনৈতিক দুরদর্শিতার প্রমান দিয়ে তিলে তিলে নেতা হতে হয়। তিনি জেলা সম্মেলনের সফলতা কামনা করে যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে তোলার জন্য সকল ভোটারদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের ফেইসবুক পেইজ